JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
logo shaistaganj
,
banner728x90
সংবাদ শিরোনাম :
«» চুনারুঘাটে অগ্রণী উচ্চ বিদ্যায়লে মাদক, জঙ্গীবাদ, সন্ত্রাস, বাল্য বিবাহ, যৌতুক ও ইভটিজিং বিষয়ে কর্মশালা ও প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শনী «» সুপ্রীমকোর্ট প্রাঙ্গনের মূর্তি অপসারণ ও মদ-জুয়া-গান-বাজনা বন্ধের দাবিতে বাহুবলে বিশাল সমাবেশ «» ভারত থেকে আসা এক স্কুলছাত্রী পথ ভুলে শায়েস্তাগঞ্জে «» বানিয়াচংয়ে পাইপগানসহ ডাকাত গ্রেফতার «» মাধবপুরে গৃহবধূ হত্যার অভিযোগে শ্বশুর গ্রেফতার «» আজমিরীগঞ্জে গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক «» শায়েস্তাগঞ্জে প্লাস্টিকের বস্তা ব্যবহারের দায়ে ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা «» নবীগঞ্জ মুক্তাহার গ্রামের “বীরমুক্তিযোদ্ধা শ্রী রবীন্দ্র চন্দ্র দাস গ্রন্থশালা”-এর পাঠ কার্যক্রম চালু চালু «» পুটিজুরীর কাদির লণ্ডনীর বাড়ি থেকে কোন প্রকার চোরাই মাল উদ্ধার হয়নি «» বাহুবলে বিশ্ব পানি দিবস পালিত

ধাতব মুদ্রা নিয়ে বিপাকে চুনারুঘাটের ব্যবসায়ীরা ব্যাংক কর্মকর্তাদের ভিন্ন বক্তব্য

639

আজিজুল হক নাসিরঃ ধাতব মুদ্রা নিয়ে বিপাকে রয়েছেন চুনারুঘাট উপজেলার ক্ষুদ্র, খুচরা ও পাইকারী ব্যবসায়ীরা।

চুনারুঘাট উপজেলার বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, ক্ষুদ্র এবং খুচরা ব্যবসায়ীদের অনেকেরেই বোয়ম ভর্তি এক টাকা, দুই টাকার কয়েন জমানো রয়েছে।

যার পরিমাণ এক থেকে তিন হাজার টাকা পর্যন্ত। তাদের অভিযোগ, মহাজন কিংবা কোম্পানীর লোকেরা এমন কি কাস্টমাররাও এক টাকা দুই টাকার কয়েন নিতে চান না। চুনারুঘাট বাজারের ছবিঘর সিনেমা হলের সামনের টং ব্যবসায়ী রফিক মিয়া জানান, এক টাকা দুই টাকার কয়েন গুলো কোম্পানীর লোক কিংবা মহাজনরা নিতে চান না কিন্তু কাস্টমাররা তাদের ধমক দিয়ে দোকানদার নিতে বাধ্য করেন। এ জন্য তার সামান্য পূজির মাঝে আটকা পড়েছে হাজারেরও বেশি ধাতব মুদ্রা। বিশেষ করে সিগারেট কোম্পানী গুলো কয়েন দেখলেই মাল না দিয়ে চলে যায়। আর তার দোকানটা মূলত পান সিগারেটের উপর নির্ভরশীল।

আমুরোড বাজারের ব্যবসায়ী ফরিদ আলী মীর জানান, এক টাকার কয়েন ভিক্ষুককে দিলেও না নিয়ে চলে যায়। একই বাজারের ব্যবসায়ী মাথাওয়ালা সুমন জানান, প্রায় তিন হাজার টাকার কয়েন তার দোকানে আটক। কেউ তা নিতে চায়না। আসামপাড়া বাজারের টং ব্যবসায়ী বকুল মিয়া জানান, কয়েনের কোন বিধি ব্যবস্থা না হলে তার ব্যবসা করাই কঠিন। তার পূজির অনেকটাই এখন কয়েন। যার দ্বারা তিনি কোন পণ্য খরিদ করতে পারতেছেন না।

কোম্পানী যেমন কয়েন গুলো নিতে চায় না কাস্টমাররাও কয়েন না নিয়ে ক্যান্ডি-সুইংগাম নিয়ে চলে যায়। আবুল খায়ের টোবাক্যোর এক ডিপু ম্যানেজার জানান, তার মোটা অংকের লেনদেন হয় পূবালী ব্যাংক রাজার বাজার শাখায় কিন্তু ওই ব্যাংক কয়েন নিতে অনিহা প্রকাশ করাতে তার কাছেও আটকা পড়েছে কয়েক হাজার টাকা।

এগুলো স্টাফদের বেতন হিসাবে দিয়ে অল্প অল্প করে সারাচ্ছেন। এ ব্যাপারে পূবালী ব্যাংক রাজার বাজার শাখার ব্যবস্থাপকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সত্যতা স্বীকার করে বলেন, কয়েন গুলো গ্রাহকরা দিতে চায় কিন্তু এ গুলো আবার তাদেরকে দিতে চাইলে তারা বড় নোট ছাড়া নিতে চায় না। তাই তারা বাধ্য হয়ে টাকা গুলো ব্যাংক জমা না নিয়ে বাহিরে খরচ করার পরামর্শ দেন। তবে, একেবারেই যে নেন না এটাও সত্য নয়।

তারা ক্ষেত্র বিশেষ রাখেন। তাঁর মতে ধাতব মুদ্রার চেয়ে কাগজের টাকা গুলোর প্রতিই কাস্টমারদের আগ্রহ বেশি। কৃষি ব্যাংক মিরাশী শাখার একজন কর্মকর্তা জানান, তারা কয়েন গুলোকে উপজেলা বা জেলা শাখায় জমা দিতে গেলে বিভিন্ন ঝামালার স্বীকার হন। এজন্যই তারা সাধারণত ছোট কয়েন গুলো এড়িয়ে চলেন।

সোনালী ব্যাংক চুনারুঘাট শাখার ব্যবস্থাপক জানান, বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশ মতে যে কোন ব্যাংক ধাতব মুদ্রার লেনদেন করতে বাধ্য। তাঁর কাছে কেউ যেকোন মূল্যের কয়েন নিয়ে গেলে তিনি ফিরিয়ে দেন না। তবে, এর জন্য গ্রাহককে নিয়ম মত গাঢ় পলিব্যাগে ৫০০ বা ১০০০ টাকার পুতলা বেঁধে দিতে হয়। তিনি বলেন, যদি কোন ব্যাংক ধাতব মুদ্রা নিতে অনিহা বা অনাগ্রহ প্রকাশ করে তবে, তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক ১৬২৩৬ এই নাম্বারটি দিয়েছে। যাতে যোগাযোগ করলে বাংলাদেশ ব্যাংক যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করবে।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *