JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
logo shaistaganj
,
sumon
সংবাদ শিরোনাম :
«» আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মুখলিছ মিয়ার উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল «» নবীগঞ্জে পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ভিজিএফ কার্ডের চাল বিতরণী অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন’ «» সৌদি আরবে পুড়লো বাংলাদেশিদের শতাধিক দোকান «» হবিগঞ্জে বিআরটিএ উদ্যোগে মোবাইল কোর্ট পরিচালনায় মোটর সাইকেল আটক «» শাহজীবাজারে ইয়্যুথ সোস্যাল অর্গানাইজেশনের উদ্যােগে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্বরণে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্টিত «» চুনারুঘাটে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদশর্ন করলেন পুলিশ সুপার জয়দেব কুমার ভদ্র «» চুনারুঘাটে পানিবন্দি ১১’শ পরিবার «» নূরপুর ইউনিয়নের ২টি গ্রাম প্লাবিত শতাধিক পরিবার পানিবন্দী «» নূরপুরে তরুণ সমাজ সেবক “অপুর” দরিদ্রদের মাঝে ঈদ বস্ত্র বিতরণ «» সাংবাদিক সুলতান খানের মায়ের মৃত্যুতে চুনারুঘাট সাংবাদিক ফোরামের শোক

নবীগঞ্জের চাঞ্চল্যকর স্কুল ছাত্র শাহনাজ হত্যাকান্ড অবশেষে নায়ক সুজন’র ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

৮৭৬

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি : বহুল আলোচিত বোয়ালজুর গ্রামের গিয়াস বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড স্কুল ছাত্র শাহনাজ হত্যাকান্ডের নায়ক ধৃত সুজন মিয়া’র ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন বিজ্ঞ আদালত। গত ১৬ই মার্চ ডিবি পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদনসহ আদালতে সোর্পদ করলে গতকাল সোমবার দীর্ঘ শুনানী শেষে তার ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়। বাদী পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন বিজ্ঞ আইনজীবি তাজুল উদ্দিন আহমেদ সুফি। বিবাদীর পক্ষে ছিলেন এডভোকেট আকল মিয়া।

এদিকে তার গ্রেফতারে বোয়ালজুর সহ আশপাশ এলাকার সচেতন মহলের মধ্যে স্বস্থি ফিরে এসেছে। আউশকান্দি রশিদিয়া পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেনীর ছাত্র ও কৃতি ফুটবলার শাহনাজকে নির্মমভাবে হত্যা হওয়ার মামলাটি একটি স্পর্শকাতর ও চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলা। থানা পুলিশের নানা টালবাহানার ফলে চাঞ্চল্যকর এ মামলাটি বর্তমানে হবিগঞ্জের ডিবি পুলিশ তদন্ত করছেন। এদিকে আলোচিত সুজন মিয়া গ্রেফতারে স্কুল ছাত্র শাহনাজ হত্যাকান্ডের মুলরহস্য উদঘাটন হতে পারে বলে মনে করছেন সচেতন মহল। এতে শুরু হয়েছে নানা আলোচনা ও সমালোচনা!

ডিবি পুলিশের একটি প্রতিবেদনে উল্লে¬খ করা হয়েছে যে, শাহনাজ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত ও এজহারে উল্লে¬খিত আসামীদের সাথে ধৃত আসামী সুজন একটি গোষ্ঠির নেতৃত্ব দাতা।

এছাড়াও তার বিরোদ্ধে ৭/৮টি মামলা আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। তার জামিনের বিরোধীতা করে ডিবি পুলিশ বিজ্ঞ আদালতে একটি আবেদনসহ ৭ দিনের রিমান্ডের প্রার্থনা করেন। ফলে আদালত ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এলাকাবাসী মতে সুজন মিয়া জামিনে মুক্তি পেলে শাহনাজ হত্যাকান্ডের মতো মারাত্মক অপরাধ পূণরায় সংঘটিত সহ ঐ এলাকায় আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির ব্যাঘাত ঘটতে পারে। এলাকা ও সচেতন মহলের লোকজনের দাবী সঠিক তদন্ত এবং ধৃত সুজনকে রিমান্ডে এনে নিভিড়ভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই হত্যা কান্ডের মুল মুটিভ বেরিয়ে আসতে পারে ।

হবিগঞ্জের ডিবি’র এস.আই মোঃ আব্দুল করিম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সুজন গ্রেফতারে অনেক তথ্য বেরিয়ে এসেছে। অচিরেই তার অন্যান্য সহযোগীদের আইনের আওতায় আনা হবে। তদন্তের স্বার্থে অন্য কারো নাম প্রকাশ করতে অপারকতা প্রকাশ করেন।

সর্বশেষ গত ২০১৬ সালের ৪ঠা ডিসেম্বর রবিবার একই গ্রামের কৃষক ইউনুছ মিয়ার পুত্র আউশকান্দি রশিদিয়া পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজের ৮ম শ্রেনীর ছাত্র শাহনাজ (১৬) কে ফুটবল খেলার পোষ্ঠার লাগানোর কথা বলে ঘর থেকে ডেকে নিয়ে যায় একই গ্রামের জসিম সহ আরো কয়েকজন।

এর পর থেকে শাহনাজ আর বাড়িতে ফিরে আসে নি। সারা রাত গ্রামের বিভিন্ন স্থান সহ আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে খোজাখুজির পর এক পর্যায়ে পরদিন সোমবার সকাল ৭ টার দিকে স্থানীয় লোকজনের মাধ্যমে খবর পাওয়া যায় স্থানীয় জোয়াল ভাঁঙ্গা হাওরের পাশে শাহনাজের গলা কাটা ক্ষতবিক্ষত মৃত দেহ পড়ে আছে। পরে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে হবিগঞ্জ মর্গে ময়না তদন্ত শেষে নিহতের স্বজনদের কাছে লাশ হস্তান্তর করলে ওই দিন রাতে তার গ্রামের কবরস্থানে দাফন করা হয়।

তবে, শাহনাজ হত্যা মামলার প্রধান আসামী সহ ৮ থেকে ১০টি মামলার অন্যতম আসামী জসিম এখনও পুলিশের ধরাছোয়ার বাহিরে! সে প্রকাশ্যে এলাকায় ঘুরা ফেরা করায় নিহতের পরিবার ও সচেতন মহলের লোকজনের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের পাশাপাশি নানান প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। অনেকেই বলছেন জসিমের খুটির জোর কোথায় ? জসিম লোকমূখে বলে বেড়াচ্ছে টাকা থাকলে হত্যা মামলা কেন, ফাঁিসর আসামীকেও বাচাঁনো যায়! অপরদিকে গিয়াস বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড ঘটনার নায়ক সুজন ডিবি পুলিশের কাছে আটক হওয়ায় গিয়াস ও তার পুত্র জসিম বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। তারা পাগলের ন্যায় এলাকায় ঘুরাফেরা করছে। ফলে বাদীর পরিবারসহ এলাকার নিরীহ লোকজনের মধ্যে চরম আতংক বিরাজ করছে। চাঞ্চল্যকর স্কুল ছাত্র শাহনাজ হত্যাকান্ডের ঘটনার সাথে জড়িত ও একাধিক মামলার আসামী সুজন ডিবি পুলিশের কাছে গ্রেফতারে ওই এলাকায় স্বস্থির নিঃস্বাস এসেছে। অনেকেই বলেছে সুজনকে রিমান্ডে আনলেই বেরিয়ে আসবে মূল রহস্য ও তলের বিড়াল।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *