JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
logo shaistaganj
,
sanvi stor
সংবাদ শিরোনাম :
«» নিখোঁজের দেড় মাস পর নবীগঞ্জে গৃহবধূর কংকাল উদ্ধার, আটক ১ «» অলিপুরে ট্রাক-মোটর সাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১ «» বাহুবলে নানা আয়োজনে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালন «» শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে হবিগঞ্জে আলোক প্রজ্বলন «» নবীগঞ্জে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু «» নাসিরনগরে মহাজোট প্রার্থী বিএম ফরহাদ হোসেন সংগ্রামের নির্বাচনী সভা অনুষ্ঠিত «» নাসিরনগরে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা «» নবীগঞ্জে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করলেন আ.লীগ প্রার্থী মিলাত গাজী «» চুনারুঘাটে নৌকার মাঝি এমপি মাহবুব আলীকে বিজয়ী করতে ছাত্রলীগের বর্ধিত সভা «» চুনারুঘাটে এমপি মাহবুব আলীকে ক্রেস্ট প্রদান করেন নারী নেত্রী রুবি আক্তার

শায়েস্তাগঞ্জে নিষিদ্ধ পলিথিনের ছড়াছড়ি

indexহবিগঞ্জ

সৈয়দ আখলাক উদ্দিন মনসুর, শায়েস্তাগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি : সরকারিভাবে পলিথিন নিষিদ্ধ হয়েছে। কিন্তু শায়েস্তাগঞ্জ যেন এর বাইরে। কাঁচা বাজার, সবজির দোকান, মাছ বাজার, মুরগীর, মুদী, পশুপাখি খাদ্য দোকানসহ ফলের দোকান থেকে শুরু করে যত্রতত্র এখন পলিথিনের ছড়াছড়ি। থেমে নেই এর বাজারজাত।

সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলা বাছিরগঞ্জ বাজার, শাহাজিবাজার (সুতাং), নসরতপুর, রেল গেইট বাজার, পুরিকলা বাজার, সাধুর বাজার, শায়েস্তাগঞ্জ পৌর শহরে নতুনব্রীজ বাজার, পুরান বাজার, দাউদনগর বাজার, গালস স্কুল রোড, হাসপাতাল সড়ক, ষ্টেশন রোড, ড্রাইভার বাজার, কলিমনগর বাজার দুই পাশের পাইকারী ও খুচরা দোকান গুলোতে দেদারছে কেনাবেচা হচ্ছে এসব নিষিদ্ধ পলিথিন। পলিথিনের অবাধ ব্যবহারের ফলে পলিথিন মাটির উর্বরতা হারাচ্ছে। তৈরি হচ্ছে ড্রেনে-নর্দমায় জলাবদ্ধতা। ভয়াবহ বিপর্যয়ের মুখে পড়ছে হাওড়ের পবিবেশ প্রতিবেশ।

২০০২ সালে সরকার পরিবেশ রক্ষায় পলিথিনের উৎপাদন, বিপণন ও মজুদ নিষিদ্ধ করে আইন প্রণয়ন করে। কিন্তু পরিবেশ অধিদপ্তরের নিষ্ক্রিয়তায় পলিথিন নিষিদ্ধের এই আইন বাস্তবে প্রয়োগ না থাকায় অকার্যকর হতে চলেছে। পরিবেশবাদীরা বলছেন, একটি পরিবার প্রতিদিন গড়ে একটি করে পলিথিনের ব্যাগ ব্যবহার করে থাকেন। ব্যবহৃত পলিথিনের এসব বর্জ্য পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতির পাশাপাশি সৃষ্টি করছে জলাবদ্ধতার। এছাড়া ব্যবহৃত পলিথিন উপজেলার, শহর ও ইউনিয়নের গ্রাম অঞ্চলের বিভিন্ন সড়কের মোড়ে ও আবাসিক এলাকার রাস্তার পাশে উন্মুক্ত স্থানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে ফেলে স্তুপ করে রাখা হচ্ছে। অভিযোগ রয়েছে পরিবেশ অধিদপ্তরের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের ম্যানেজ করে নির্বিঘেœ চালাচ্ছে পলিথিন বেচাকেনা। পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের (পবা) মৌলভীবাজারের সভাপতি আবু নাসের খান এ প্রসঙ্গে জানান, ‘শুধু বিদেশে রপ্তানিকারক পলিথিন কারখানা মালিকদের অনুমোদন আছে।

অনেকে এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে দেশের মধ্যে অবৈধভাবে পলিথিন বাজারজাত করছেন। তবে অবৈধ পলিথিন কারখানা চালু থাকার ক্ষেত্রে পরিবেশ অধিদপ্তর, স্থানীয় প্রশাসন ও আইনশৃংখলা বাহিনী কখনই দায় এড়াতে পারে না’। নিষিদ্ধ পলিথিন মজুত ও বিক্রির দায়ে ১৯৯৫ সালের পরিবেশ আইনে দোষী সাব্যস্ত করে অর্থদন্ড দেওয়ার বিধান থাকলেও এ আইনটি যথাযথ প্রয়োগ হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেন তিনি।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *