JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
logo shaistaganj
,
sanvi stor
সংবাদ শিরোনাম :
«» নিজামপুরে ধানের শীষের সমর্থনে জনসভা অনুষ্ঠিত «» শায়েস্তাগঞ্জের বিশিষ্ঠ মুরুব্বী জিতু মিয়া আর নেই, জানাযায় মুসল্লির ঢল «» চুনারুঘাটে ইউনিসেফের যৌথ পরিদর্শনে বিদ্যুৎ সংযোগ পেয়েছে সুন্দরপুর কমিউনিটি ক্লিনিক «» নিখোঁজের দেড় মাস পর নবীগঞ্জে গৃহবধূর কংকাল উদ্ধার, আটক ১ «» অলিপুরে ট্রাক-মোটর সাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১ «» বাহুবলে নানা আয়োজনে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালন «» শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে হবিগঞ্জে আলোক প্রজ্বলন «» নবীগঞ্জে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু «» নাসিরনগরে মহাজোট প্রার্থী বিএম ফরহাদ হোসেন সংগ্রামের নির্বাচনী সভা অনুষ্ঠিত «» নাসিরনগরে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা

জনগণের জন্য কাজ করে শান্তি পাই-এমপি আবু জাহির

3 (1)

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ-৩ (সদর-লাখাই-শায়েস্তাগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট মোঃ আবু জাহির বলেছেন, ২০০৫ সালে খুনীদের গ্রেনেড হামলায় অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া’র সাথে আমিও মৃত্যুপথযাত্রী ছিলাম। তখন ভাবতেও পারিনি আমি বেঁচে থাকব। আপনাদের দোয়ায় আল্লাহ আমাকে বাঁচিয়ে রেখেছেন। শরীরে শতাধিক ছিটাগুলির যন্ত্রণা নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি। বিগত দুইবার আপনারা আমাকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত করেন।

বিশেষ করে ২০০৮ সালে প্রায় ১ লাখ ভোটের ব্যবধানে আমাকে বিজয়ী করেছিলেন। বিনিময়ে আমি দিনরাত আপনাদের জন্য পরিশ্রম করে যাচ্ছি। কি কাজ করেছি, তা আপনাদের চোখের সামনেই। আমার চাওয়া-পাওয়ার কিছু নেই। জনগণের জন্য কাজ করতে পারলেই মনে শান্তি পাই। শুধু দোয়া করবেন আমার কাজগুলো যেন ইবাদত হিসেবে কবুল হয়। মানুষ যখন কাজ করে, বিনিময়ে ভালবাসা প্রত্যাশা করতে পারে। আমি দিনরাত কাজ করেছি বলেই আপনারা আমাকে বিভিন্ন সময়ে মূল্যায়ন করেছেন। আগামী নির্বাচনেও আপনাদের ভোট এবং ভালবাসা পাওয়ার প্রত্যাশা করছি।

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে গোপায়া ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে আয়োজিত পৃথক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি’র বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

এমপি আবু জাহির বলেন, বিএনপি’র আমলে সাইফুর রহমান অর্থমন্ত্রী ছিলেন। হবিগঞ্জে দূরে থাক, তার এলাকা মৌলভীবাজারেও একটি মেডিকেল কলেজ করতে পারেননি। আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট থেকে উপহার হিসেবে আপনাদের জন্য একটি মেডিকেল কলেজ নিয়ে এসেছি। হবিগঞ্জ আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালকে আড়াইশ’ শয্যায় উন্নীত করেছি। মেডিকেল কলেজের সম্পূর্ণ কাজ শেষ হলে সেখানে আরো ৫শ’ শয্যার হাসপাতাল হবে। তখন আর হবিগঞ্জবাসীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা-সিলেটে উদ্দেশ্যে রওযানা দিয়ে পথিমধ্যে প্রাণ হারাতে হবে না। বরং দেশের বিভিন্ন স্থানের লোকজন এখানে এসে উন্নত চিকিৎসা গ্রহণ করবে। এর মাধ্যমে ব্যবসা-বাণিজ্যের উন্নয়নসহ ব্যাপক কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে। তিনি আরো বলেন, কিছুদিনের মধ্যেই আপনাদের জন্য আরো একটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করা হবে। হবিগঞ্জের সর্বত্র উন্নয়ন হয়েছে। পিছিয়ে নেই গোপায়া ইউনিয়নও । এখানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং রাস্তাঘাট ও ব্যাপক অবকাঠামোগত উন্নয়ন করেছি। বিশেষ করে একাধিক ব্রীজ এবং রাস্তা নির্মাণের ফলে গোপায়া ইউনিয়ন শহরে পরিণত হয়েছে। বাকী যেগুলো রয়েছে সেগুলো পর্যায়ক্রমে করব ইনশাল্লাহ। ব্যাপক উন্নয়ন কমকান্ডের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াতের আমলে হবিগঞ্জে দেশের সম্পদ লুটপাট হয়েছে। কিন্তু বিগত ১০ বছর ধরে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকাকালে- আমরা আপনাদের জন্য উন্নয়ন কাজ করে যাচ্ছি। সকল শ্রেণি-পেশার লোকজন যার যার দৈনন্দিন কর্মকান্ড অত্যন্ত স্বাচ্ছন্দ্যের সাথে পরিচালনা করতে পারছেন।

তিনি বলেন, যতবারই আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে দেশের অগ্রগতি হয়। ১৯৭০ সালে জনগণ নৌকায় ভোট দিয়েছিল। কিন্তু পাকিস্তানীরা ক্ষমতা হস্তান্তর করেনি। তখনই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের ডাক দেন। পরবর্তীতে জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে মানুষের ভোটের অধিকার ক্যান্টনমেন্টে বন্দি করে। দীর্ঘ চড়াই-উৎরাই পেড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসে জনগণের ভোটের অধিকার ফিরিয়ে দিয়েছেন। দেশকে নিয়ে গেছেন উন্নয়নের মহাসড়কে।

এ সময় উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আগামী নির্বাচনেও নৌকায় ভোট দেয়ার আহবান জানান তিনি। পৃথক জনসভায় উপস্থিত আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও স্থানীয় জনতা হাত তুলে তার বক্তৃতার প্রতি সমর্থন জানান এবং নৌকাকে বিজয়ী করার অঙ্গীকার করেন।

পৃথক আলোচনা সভায় অন্যান্যের মাঝে বক্তৃতা করেন ও উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মশিউর রহমান শামীম, উপ দপ্তর সম্পাদক এডভোকেট শাহ ফখরুজ্জামান, জেলা যুবলীগ সভাপতি আতাউর রহমান সেলিম, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট আব্দুল আহাদ ফারুক, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ তালুকদার ইকবাল, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল্লাহ সরদার, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুজ্জামান চৌধুরী, গোপায়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আক্তার হোসেন, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল মালেক, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জালাল মেম্বার, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আবুল কালাম, নজরুল ইসলাম শামীম, জেলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া চৌধুরী, জেলা যুবলীগ নেতা জাহির আহমেদ, হাজী চেরাগ আলী, আরফান হাজী, জালাল সরদার, অধ্যক্ষ রফিক আলী, কুতুব উদ্দিন, সিরাজ খান, নজরুল ইসলাম সিদ্দিকী, বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট আজিজুর রহমান খান সজল, রাজিউড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফরিদ আহমেদ, সদর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি শেখ সেবুল আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন সুমন, পোদ্দার বাড়ি আঞ্চলিক আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল গণি সরদার, সাধারণ সম্পাদক তানভীর আহমেদ জুয়েল, সহ সভাপতি আলমগীর আলম, আছকির মিয়া, লস্কর গাজী, আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল করিম, ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক জালাল মিয়া, খালেক মেম্বার, ফজল মেম্বার, অনু মিয়া মেম্বার, সাবেক মেম্বার ফারুক মিয়া, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি ছাব্বির আহমেদ রনি, ডাঃ কামাল, গউছ মিয়া, নওশের আহমেদ, রিপন মিয়া প্রমুখ।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *