JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
logo shaistaganj
,
ইসলামী একাডেমি এড
সংবাদ শিরোনাম :

নবীগঞ্জে বন্যাাশ্রয়কেন্দ্রসহ ১৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্লাবিত বন্ধ ঘোষণা, ত্রাণ বিতরণ

11111111

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ উজানের পাহাড়ি ঢলে কুশিয়ারা নদীর পানি বেড়ে বন্যায় প্লাবিত হওয়ায় নবীগঞ্জ উপজেলার ১৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে বন্যাশ্রয় কেন্দ্রসহ দুটি উচ্চ বিদ্যালয়, ১১ টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ৩টি মাদ্রাসা। অন্যদিকে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেছে জেলা প্রশাসন।

গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় কুশিয়ারা নদীর পানি বিপদসীমার ৫৫ সে.মি উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।

যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়েছে সেগুলো হচ্ছে-বন্যার্তদের আশ্রয় কেন্দ্র ইনাতগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়, মতিউর রহমান উচ্চ বিদ্যালয়, পারকুল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাজে সোনাইত্যা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মোস্তাফাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, দিঘলবাক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রাধাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দৌলতপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কসবা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ইনাতগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রোসনপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, মুকিমপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, দুর্গাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, ইনাতগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়, কসবা দাখিল মাদ্রাসা, মুকিমপুর সিনিয়র দাখিল মাদ্রাসা, মোস্তফাপুর সিনিয়র দাখিল মাদ্রাসা।

ইনাতগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বদরুল আলম ইলাক জানান, তাদের প্রতিষ্ঠানে বন্যাশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছিল। কিন্তু বিদ্যালয় প্রাঙ্গণসহ রাস্তাঘাট ডুবে যাওয়ায় আশ্রয় কেন্দ্রটি এখান থেকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। ক্লাশ নিতে আসছে না শিক্ষার্থীরা। তাই বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। নবীগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা কাজী সাইফুল ইসলাম বলেন, ১১ টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্যার পানির জন্য বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে। আরো বন্ধ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

অপর দিকে নবীগঞ্জের দীঘলবাক, ইনাতগঞ্জ ও আউশকান্দি ইউনিয়নের বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন হবিগঞ্জের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক তারেক মোহাম্মদ জাকারিয়া। পরিদর্শন শেষে তিনি জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেন। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে বন্যা কবলিত এলাকা দীঘলবাক, রাধাপুর, ফাদুল্লাহ ও জামারগাওসহ বিভিন্ন গ্রাম ও ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধ পরিদর্শন করেন তিনি। পরে দীঘলবাক ইউনিয়নের দীঘলবাক, রাধাপুর, জামারগাও ও কসবাসহ কয়েকটি গ্রামে বন্যার্তদের মাঝে ৩ টন চাল বিতরণ করেন।

এসময় অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকারে উপ-সচিব নুরুল ইসলাম, নবীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের ফজলুল হক চৌধুরী সেলিম, ভাইস চেয়ারম্যান (মহিলা) নাজমা বেগম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তৌহিদ-বিন হাসান, দীঘলবাক ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু সাঈদ এওলা মিয়াসহ অনেকেই।

আজ বুধবার দীঘলবাকে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আরও ৪টন চাল বিতরণ করা হবে বলে জানিয়েছেন নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তৌহিদ-বিন হাসান ।

এছাড়াও মঙ্গলবার দুপুরে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আউশকান্দি ইউনিয়নে ৫০০ কেজি চাল ও ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নে ৫০০ কেজি চাল বন্যার্তদের মাঝে বিতরণ করেন স্থানীয় চেয়ারম্যান।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *