সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ০১:২০ অপরাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

শায়েস্তাগঞ্জের গ্রামে গ্রামে বাহারি সাজনালতা

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ১০ এপ্রিল, ২০২০

সৈয়দ হাবিবুর রহমান ডিউক : শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলে গাছে গাছে ধরেছে বাহারি রংগের সাজনা লতা। এখনো পুরোপুরি খাবারের জন্য পরিপুক্ত না হলেও বাজারে এসেছে গ্রীষ্মের সুস্বাদু সবজি সজিনা।

IMG_20200410_153207-1-1

সরজমিনে দেখা যায়, শায়েস্তাগঞ্জের সুতাং, শৈলজুড়া, বাছিরগঞ্জ, নুরপুরের অনেক জায়গায় গাছে গাছে ভরপুর হয়ে আছে সাজনায়। কোথাও কোথাও অনেকেই দুপুর বেলায় গাছে উঠে সাজনা পাড়তে দেখা যায়।স্থানীয় ভাষায় যাকে সাজনা এবং কোনো কোনো জায়গায় সজনে বলা হয়ে থাকে।

এক সময়ের ফেলনা সবজি হিসেবে পরিচিত এই সাজনা এখন ধনিক শ্রেণীর মানুষের খাবারে পরিণত হয়েছে। সজিনা এখনও পরিপক্ব বা খাবার উপযোগী হয়নি। এরপরও লতার মতো চিকন চিকন এ সবজি বাজারে আমদানি হয়েছে। এক কেজি সজিনা বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৫০ টাকা কেজি দরে।

images(15)

নতুন সবজি হিসেবে বাজারে সজিনার আমদানি দেখে মানুষ আগ্রহভরে কিনতে যায়। কিন্তু দাম শুনে হতাশ হয়ে ফিরে আসতে হয়। তবে সমাজের ভাগ্যবানরা এই চিকন লতিসদৃশ সজিনাই চড়া দামে কিনে নিচ্ছে। সজিনা বা সজনেকে বলা হয় পুষ্টির ডিনামাইট। সজিনার ফুল, ফল, পাতা, ছাল খুবই উপাদেয় খাবার। শায়েস্তাগঞ্জসহ দেশের অনেক এলাকার মানুষ সজিনাকে ওষুধি সবজি হিসেবে জানে। তারা মনে করে সজিনা একটি মহৌষধ।

ঠান্ডা লাগলে সজিনার ছাল বেটে ভর্তা বানিয়ে গরম ভাতের সাথে রোগীকে খেতে দেয়া হয়। প্রচন্ড গরমের সময় ডালবাটা ও সজিনার পাতা একত্রে মিশিয়ে বড়া বা কাটলেট তৈরি করে পানতা ভাতের সাথে খাওয়া হয়। সজিনার ফুল বেটে ভর্তা বানিয়েও খাওয়া যায়। গা- গেরামে বসন্ত রোগের প্রাদুুর্ভাব দেখা দিলে সকলেই সজিনা ও দেশী আলুর নিরামিষ ঝোল রেধে খায়।

দেশীয় টোটকা চিকিৎসকদের মতে, সজিনার ঝোল যেমন প্রতিষেধক তেমনি নিরাময়কারী ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। ভোজনবিলাসী লোকজনের মতে, সজিনার সাথে চিংড়ি দিয়ে ঝোল তরকারি খুবই সুস্বাদু হয়ে থাকে। শিংমাছ সজিনা ও দেশীয় আলু মিলিয়ে ঝোল রান্না করলে কৃষকের হাঁড়ির ভাতে টান পড়ে যায়। অনেক পরিবারের সদস্যরা বিশেষ করে মহিলারা সজিনা, গুঁড়া আলু, উচ্ছে একত্র করে শুঁটকি দিয়ে রেধে খেতে খুবই পছন্দ করে।

আশির দশকেও বাংলাদেশ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তালিকায় সবজি সজিনার নাম ছিল না। সজিনা ছিল গৌণ বা ফেলনা সবজি। কিন্তু গত আড়াই দশকে সজিনার কদর বেড়েছে বহু গুণ। সেই সাথে দাম বেড়েছে কয়েক শ’ গুণ। সজিনা সাধারণত দুই ধরনের হয়ে থাকে। একটি হচ্ছে লম্বা ত্রিকোণাকৃতির। আর অপরটি হচ্ছে লম্বা গোলাকৃতির।  আর গোলাকৃতিরটিকে বলা হয় সজিনা বা সাজনা। প্রতি বছর বসন্তের শেষ দিকে গাছে গাছে সজিনার ফুলে ভরে যায়। গাছের ডালগুলোতে এত বেশি ফুল ধরে যে, ফুলের ভারে গাছের ডাল পর্যন্ত ভেঙে যায়।

এরপর সজিনা লতা আকারে ঝুলতে শুরু করলে কৃষকরা ডালে ডালে বাঁশ দিয়ে ঠেকা দিয়ে রাখে। গ্রীষ্মকালে ঝড়-তুফান হলে সজিনার ডাল ভেঙে গুঁড়িয়ে যায়। তখন বাজারে সজিনার ব্যাপক আমদানি হয়। দামও কমে যায়। আবার কোনো বছর খরা হলে ফুল, ফল দুটোই কমে যায়। সে বছর দামও থাকে খুব চড়া। সজিনার গাছ খুবই নরম বিধায় চাষিরা বাণিজ্যিক ভিত্তিতে সজিনার চাষ করে না। বাড়ির আনাচে-কানাচে ১-২টি গাছ লাগালে কৃষকেরও খাওয়া চলে, আত্মীয়দেরও দেয়া যায় এবং বাকিগুলো বাজারে বিক্রি করা যায়।

কৃষি বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, সজিনাকে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে চাষাবাদ করতে হলে এর ওপর আরো সরকারি ভাবে পৃষ্ঠপোষকতা দরকার।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!