সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ০৭:৫৪ অপরাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

নবীগঞ্জে পাওনা টাকা আদায়ে মামলা করে বিপাকে লিটন

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ১৭ নভেম্বর, ২০২০

নবীগঞ্জ(হবিগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ

নবীগঞ্জ উপজেলার কুর্শি ইউনিয়নের কুর্শি গ্রামের মৃত মইনুল ইসলাম চৌধুরীর ছেলে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামী ইকরামুল ইসলাম চৌধুরী ও তার লোকজন কতর্ৃক মামলার বাদী লিটন মিয়াকে প্রাণনাশের হুমকী দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে লিটন মিয়া জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে নবীগঞ্জ থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করা হয়েছে। ১৩ লক্ষ টাকা পাওনা আদায়ের মামলা করেও চরম বিপাকে এবং নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন বাদী লিটন মিয়া।
সুত্রে জানাযায়, প্রায় ৪ বছর আগে কুর্শি গ্রামের আব্দুল আলীর ছেলে লিটন মিয়ার শাশুড়ী সাফারুন বিবি মালিকানাধিন দখলীয় প্রায় ৩২ শতক আমন রকম ভুমি একই গ্রামের মৃত মইনুল ইসলাম চৌধুরীর ছেলে সুচতুর ইকরামুল ইসলাম চৌধুরী ১৩ লাখ ৬০ হাজার টাকায় এর্নাজি কোম্পানী তৈরীর জন্য খরিদ করেন। বিনিময়ে ৯ লাখ টাকার চেক এবং ৪ লাখ ৬০ হাজার টাকা বদলে স্ট্যাম্পে লিখিত অঙ্গিকারনামা প্রদান করেন দাতার জামাতা লিটন মিয়ার নামে। ফলে বিশ্বাস করে ভুমি দাতা বাকীতে চেক ও স্ট্যাম্পের বিনিময়ে ৩২ শতক আমন রকম ভুমি রেজিষ্ট্রি করে দেন। ভুমি রেজিষ্ট্রারী ও দখল বুঝিয়ে দেয়ার পর চেক নিয়ে ব্যাংকে গেলে ব্যাংকে পর্যাপ্ত পরিমান বেলেন্স (টাকা) না থাকায় ৯ লাখ টাকার চেক ডিজঅনার করেন। প্রতারনার শিকার লিটন মিয়া বাধ্য হয়ে হবিগঞ্জ আদালতে সিআর মামলা নং-২৪/২০১৮ইং দায়ের করেন। এক পর্যায়ে মামলাটি বিচারের জন্য বিজ্ঞ যুগ্ম দায়রা জজ, ২য় আদালত, হবিগঞ্জ এ স্থানান্তর করা হয়। যা দায়রা মামলা নং ৬০৪/২০১৮ইং। আদালতের বিজ্ঞ বিচারক বিগত ৫ই অক্টোবর উক্ত মামলায় বিচারকালীন সময়ে আচরন ও চেকে বর্নিত টাকার পরিমান ও সার্বিক বিবেচনায় চেক ডিজনার এ্যাক্ট ১৮৮১ এর ১৩৮ ধারায় দোষী সাব্যস্থক্রমে ১ (এক) বছরের সশ্রম কারাদন্ড এবং চেকে উল্লেখিত টাকার সমপরিমান অর্থাৎ ৯ লক্ষ টাকা অর্থদন্ডে দন্ডিত রায় প্রদান করেন। উক্ত রায়ের পর থেকেই সাজাপ্রাপ্ত আসামী ইকরামুল ইসলাম চৌধুরী পলাতক থেকে তার লোকজন দিয়ে এবং একটি প্রভাবশালী মহলের চত্রছায়ায় মামলা তোলে নেয়ার জন্য বাদী লিটন মিয়াকে প্রাণনাশের হুমকীসহ তার জানমালের ক্ষতি সাধনের হুমকী দিয়ে আসছে বলে অভিযোগ রয়েছে। অসহায় লিটন মিয়া সাজাপ্রাপ্ত আসামী ও তার পরিবারের লোকজনের অগণিত হুমকীতে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন। আতংকে সময় অতিবাহিত করছেন তার পরিবার। এ ব্যাপারে গতকাল সোমবার বিকালে নবীগঞ্জ থানায় একটি সাধারন ডায়েরীর আবেদন করেছেন। এ ব্যাপারে লিটন মিয়া বলেন, বিশ্বাস করে নগদ টাকার বদলে চেক ও স্ট্যাম্পে লিখিতের বিনিময়ে ভুমি রেজিষ্ট্রারী করে দিলাম। অথচ ইকরামুল ইসলাম চৌধুরী তার সাথে প্রতারনা করেছেন। ফলে টাকা উদ্ধার করতে না পেরে আইনের আশ্রয় নিয়েও জীবনের চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি। যে কোন মুহুর্তে ইকরামুল ইসলাম ও তার লোকজন তার বা তার পরিবারের লোকজনের উপর হামলাসহ জানমালের ক্ষতি করতে পারে। তারা মামলা তোলে নিতে এসব হুমকী দিচ্ছে বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!