রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ১০:৩৫ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

নবীগঞ্জে ইউনিক আইডি পেতে শিক্ষার্থীদের বিড়ম্বনা

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ২০ নভেম্বর, ২০২১

আনোয়ার হোসেন মিঠু, নবীগঞ্জ : হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে ৬ষ্ঠ শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের ইউনিক আইডি তৈরি কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। নবীগঞ্জ উপজেলার অভিভাবকদের তাদের সন্তানদের ইউনিক আইডির জন্য ডিজিটাল জন্মনিবন্ধন সনদ পেতে নাজেহাল অবস্থায় পড়তে হচ্ছে। ডিজিটাল জন্মসনদ ছাড়া ইউনিক আইডি তৈরি করা যায় না। তাই অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা ডিজিটাল জন্মসনদ পেতে ইউনিয়ন সেবা কেন্দ্রে দৌড়াচ্ছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অভিভাবকরা জন্মনিবন্ধন তৈরিতে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে নিয়মিত আসা-যাওয়া করছেন। প্রতি শিক্ষার্থীর কাছ থেকে জন্মসনদ তৈরিতে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদ ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে ১ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করছে উদ্যোক্তারা। এতে সাধারন মানুষের মাঝে বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। জন্ম সনদ নিতে হয়রানির শিকার হওয়া সাধারন মানুষ ও শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা মনে করেন পরিষদের চেয়ারম্যানই উদ্যোক্তাদের মাধ্যমে এমন বাণিজ্য করাচ্ছেন।

জানা যায়, শিক্ষা অধিদপ্তরের নির্দেশনায় শিক্ষার্থীদের ইউনিক আইডি তৈরির কার্যক্রম শুরু করতে এর মধ্যেই মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজে তথ্য ফরমসহ নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে। চার পাতার তথ্য ফরমে শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল নাম্বরযুক্ত জন্মনিবন্ধন ফরম, বাবা-মা’র জাতীয় পরিচয়পত্র ও ইউনিয়নের ডিজিটাল নম্বরসহ জন্মনিবন্ধন সনদ প্রয়োজন।

শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গ্রামাঞ্চলের অধিকাংশ শিক্ষার্থীরই জন্মনিবন্ধন সনদ নেই। অনেক অভিভাবকেরও জন্মনিবন্ধন সনদ বা এনআইডি নেই। এছাড়া গ্রামাঞ্চলের লোকজন ও তাদের সন্তানদের ডিজিটাল জন্মসনদ, মৃত্যু সনদ এবং ক্রটিপুর্ণ জন্মসনদ সংশোধিত করে আনতে ইউনিয়ন পরিষদে ডিজিটাল সেন্টারে উদ্যোক্ততাদের কাছে ধর্ণা দিচ্ছেন।

উদ্যোক্তারা এই সুযোগে একেকটি জন্মসনদ আনতে বা সংশোধন করতে হলে দিনের পর দিন ধর্ণা দিতে হয়। তাও আবার উদ্যোক্তাদের দিতে হচ্ছে ৫০০ থেকে ১ হাজার টাকা।

এনিয়ে প্রত্যোকটি ইউনিয়নে উদ্যোক্তাদের দুর্নীতির কারনে অতিষ্ট সাধারন মানুষ। বিশেষ করে এবিষয়টি নিয়ে উপজেলার বাউসা ইউনিয়নের উদ্যোক্তা ফখরুল ইসলামের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক প্রধান শিক্ষক জানান, ইউনিক আইডির ফরম আগামী বছরের প্রথম থেকে পূরণ করা হবে বলে জানানো হয়েছে। ইতোমধ্যে শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংগ্রহ করে রাখার জন্য বলা হয়েছে। তিনি আরও জানান, স্বাভাবিকভাবেই বাবা-মার ভোটার আইডি কার্ডের সঙ্গে নামের মিল রেখেই শিক্ষার্থীদের জন্মনিবন্ধন অনলাইন করতে হবে।

এ বিষয়ে উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাদেক হোসেন জানান, শিক্ষা অধিদপ্তর শিক্ষার্থীদের সঠিক তথ্য গ্রহণ করে ইউনিক আইডির আওতায় আনতে কার্যক্রম চালু করেছে। ইউনিক আইডি শিক্ষার্থীদের এক ধরনের পরিচয়পত্র, যার সবকিছুই অনলাইনে আপলোড থাকবে, যা পরবর্তীতে তাদের ভোটার আইডি কার্ডের মতো ব্যবহার করা হবে। ইউনিক আইডির জন্য আলাদা কোনো ফি দিতে হবে না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!