রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৪:৫৯ অপরাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

স্বাধীনতার ৫০ বছর পার হয়ে গেলেও নবীগঞ্জে শহীদ ধ্রুবের কবর শনাক্ত হয়নি আজও

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০২১

আনোয়ার হোসেন মিঠু, নবীগঞ্জ প্রতিনিধি :

স্বাধীনতার ৫০ বছর পার হয়ে গেলেও নবীগঞ্জে শহীদ ধ্রুব’র কবর শনাক্ত হয়নি আজও। এ নিয়ে চোখে পড়ার মতো কোন উদ্দ্যগও নেয়া হয়নি। এ নিয়ে মুক্তিযুদ্ধাদের মাঝেও নেই তেমন আগ্রহ।

আজ ৪ঠা ডিসেম্বর মহান মুক্তিযোদ্ধের অকুতোভয় বীর এ শহীদ মুক্তিযোদ্ধা ধ্রুব’র শাহাদাত বরণের দিন। ১৯৭১ সালের এই দিনে নবীগঞ্জ শহরকে মুক্ত করতে পাক হানাদারদের সাথে মুক্তিযোদ্ধাদের সন্মুখ যুদ্ধে শহীদ হন এই বীর সেনা। স্বাধীনতার ৫০ বছর পেরিয়ে গেলেও মহাবীর এই শহীদের স্মৃতি রক্ষার্থে কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি কিংবা তার শাহাদাত বার্ষিকী পালন করতে কোন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়নি। অযত্ন, অবহেলায় হারিয়ে যেতে বসেছে এই বীর সেনানীর শেষ স্মৃতি।

এই সেই রাজনগর কবরস্থান যেখানের কোন এক জায়গায় সমাধিস্থ করা হয়েছিল শহীদ ধ্রুবকে।

সেদিন ছিল ১৯৭১ সালের ডিসেম্বর মাসের ৪ তারিখ। সারাদেশের মত নবীগঞ্জেও পাক হানাদার বাহিনীর হামলায় দিশেহারা অবস্থায় ছিলেন সাধারন মানুষ। নবীগঞ্জ থানা প্রাঙ্গনে বাংকার তৈরী করে রাজাকারদের সহায়তায় হানাদার বাহিনী শক্ত অবস্থান তৈরী করে বিভিন্ন গ্রাম-গঞ্জে ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। এমনি অবস্থায় মুক্তিযুদ্ধের আরেক সাহসী বীর সৈনিক আব্দুর রশীদ ও তার বাহিনী নবীগঞ্জ থানা প্রাঙ্গনে অবস্থিত হানাদারদের ক্যাম্পে হামলার সিদ্ধান্ত নেন। ঐদিন কাকডাকা ভোরে মুক্তিযোদ্ধা কনা মিয়ার বাড়ীর পুকুর পাড়ে রশিদ বাহিনী নবীগঞ্জ থানায় অবস্থান করা পাক হানাদারদের ক্যাম্প টার্গেট করে অবস্থান নেয়। এই দলের সর্ব কনিষ্ট সদস্য ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা ধ্রুব। অত্যান্ত সাহসিকতার সহিত পাক হানাদারদের ব্যাংকার ধ্বংস করার উদ্দেশ্যে গ্রেনেড হাতে ক্রলিং করে নবীগঞ্জ-বানিয়াচং সড়কের উপর দিয়ে অগ্রসর হতে থাকেন তিনি। তার সহযোদ্ধাগণ শক্রসৈন্যকে লক্ষ্য করে মেশিন গানের গুলি ছুড়তে থাকেন। পাক সেনারাও আক্রমন প্রতিহত করতে মুক্তিযোদ্ধাদের অবস্থান লক্ষ্য করে পাল্টা গুলি ছুড়তে থাকে।

এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে কয়েক ঘন্টব্যাপী গুলি বিনময় হয়। হানাদার বাহিনীর তীব্র আক্রমনের সামনে ঠিকতে পারেনি মুক্তিযোদ্ধারা। সূর্যের আলো দেখা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মুক্তিবাহিনী আত্মরার্থে পিছু হটতে থাকে। কিন্তু অসীম সাহসী মুক্তিযোদ্ধা ধ্রুব’র আর পিছু হটা হলো না। শত্রুর ছুড়া গুলিতে তার বুকের পাজর ঝাঝড়া হয়ে যায়। সাথে সাথেই শাহাদাৎ বরণ করেন এই অসীম সাহসী মুক্তিযোদ্ধা ধ্রুব। দীর্ঘক্ষণ তার লাশ পরে থাকে নবীগঞ্জ-বানিয়াচং সড়কের রাস্তার উপর।

এক সময় পার্শ্ববর্তী রাজনগর গ্রামের কিছু সাহসী যুবক জীবনের ঝুঁকি নিয়ে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা ধ্রুবের লাশ এনে সমাধিস্থ করেন নবীগঞ্জ-বানিয়াচং সড়কের ঐ গ্রামের কবরের এক পাশে। পরদিন ৫ই ডিসেম্বর বীর মুক্তিযোদ্ধা, তৎকালীন সাব-সেক্টর কমান্ডার মাহবুবুর রব সাদীর নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা নবীগঞ্জ থানা প্রাঙ্গনে অবস্থিত পাক হানাদারদের ক্যাম্পে আক্রমন চালিয়ে দখল করে মুক্ত করেন নবীগঞ্জ শহরকে। কিন্তু দেশের জন্য জীবন উৎসর্গকারী বীর মুক্তিযোদ্ধা ধ্রুবর সমাধিটি আজও সঠিকভাবে চিহ্নিত করা হয়নি।

২৬ শে মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবস, ১৬ই ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসে ফুল দিয়ে সম্মান জানানো হয় মুক্তিযুদ্ধের বীর সেনানীদের। কিন্তু ঠিকানা বিহীন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ধ্রুবের সমাধি আজও অচিহ্নিত অবস্থায় নবীগঞ্জ থানা সংলগ্ন নবীগঞ্জ-বানিয়াচং সড়কের পাশে রাজনগর গ্রামের কবর স্থানের এক পাশে পড়ে আছে অযত্ন আর অবহেলায়। একজন টগবগে যুবক যার তখনও মুক্তিযুদ্ধে যাওয়ার বয়স হয়নি কিন্তু দেশ মার্তৃকার টানে ধ্রুব অপরিণত বয়সে যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিল। স্বাধীনতার পর দীর্ঘ ৫০ বছর পার হয়ে গেলে ও তার সহযোদ্ধারা অনেক অনুসন্ধান করে তাঁর জন্মস্থান ও পিতামাতার সন্ধান পান নাই।

খোঁজ নিয়ে অনেকের কাছ থেকে জানা যায় শ্রীমঙ্গলের কোন এক চা-বাগানের দরিদ্র শ্রমিক পিতা মাতার সন্তান ছিল শহীদ ধ্রুব। এক দিকে ঠিকানা বিহীন, অন্যদিকে সমাধি অচিহ্নিত, অবহেলিত এই কি ছিল শহীদ ধ্রুবের স্বপ্নের স্বাধীন বাংলাদেশ? আজ স্বাধীনতার ৫০ বছর পর মুক্তিযুদ্ধের অনুসারী নবীগঞ্জের সচেতন নাগরিক সমাজ এই অবহেলিত শহীদ মুক্তিযোদ্ধার সমাধি চিহ্নিত করার উদ্যোগ নিচ্ছেন বলে একটি সুত্রে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক কমান্ডার নুর উদ্দিন ( বীর প্রতীক) এর সাথে মোবাইল ফোনে সর্বশেষ অবস্হা জানতে চাইলে তিনি বলেন, শহীদ ধ্রুব’র সমাধিস্হল চিন্হিত করার জন্য একাধিকবার চেষ্টা করেও সম্ভব হয়নি। চেষ্টা অব্যাহত আছে বলেও তিনি জানান।

বিষয়টি নিয়ে বর্তমানে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের দায়িত্বে থাকা নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, তিনি এ উপজেলায় যোগদানের পর এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন জেলা প্রশাসক বরাবরে প্রেরণ করেছিলেন। তিনি মুক্তিযোদ্ধাসহ সকলের সহযোগিতা চেয়ে বলেন, সকলে মিলে সহযোগিতা করলে অবশ্যই আমরা শহীদ ধ্রুব’র সমাধিস্থল চিহ্নিত করতে পারব।

বর্তমানে মুক্তিযদ্ধের স্বপক্ষের সরকার ক্ষমতায় আসীন রয়েছেন। তাই অচিরেই শহীদ ধ্রুবের সমাধিস্থল সনাক্ত করে সরকারীভাবে সেখানে একটি স্মৃতিসৌধ নির্মান করে প্রতি বছর শাহাদাৎ বার্ষিকী পালনের জন্য সরকারের প্রতি দাবী জানিয়েছেন নবীগঞ্জের সচেতনমহল।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!