সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ০২:০৬ অপরাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

লাখাইয়ের ১৪ তরুণ নিখোঁজ

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ১৭ জুন, ২০১৫

LAKHAIনিজস্ব প্রতিনিধি : হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার ১৪ তরুণ তিন মাস ধরে নিখোঁজ রয়েছেন।

নিখোঁজ তরুণরা হলেন-লাখাই উপজেলার বালি-ফরিদপুর গ্রামের নোয়াব মিয়ার ছেলে রুবেল মিয়া (২২), একই গ্রামের মানিক মিয়ার ছেলে সালেক মিয়া (২২), খেলু মিয়ার ছেলে বাসেদ মিয়া (১৮), তাহের মিয়ার ছেলে কুদ্দুস মিয়া (২৫), জয়নাল মিয়ার ছেলে মুজিবুর (২০), সাদেক মিয়ার ছেলে আমির উদ্দিন (২২), সোয়াব মিয়ার ছেলে রতন মিয়া (২০), মৃত নিকাইল মিয়ার ছেলে ওসমান মিয়া (২০), কাজল মিয়ার ছেলে এনাম মিয়া (২৬), সুনই মিয়ার ছেলে নাসির মিয়া (৩০), ফজল উল্লার ছেলে সাজিদ উল্লাহ (১৯), পাশের বানিয়াচং উপজেলার বাজুকা গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে সাইকুল মিয়া (২২), একই গ্রামের আব্দুল হেকিমের ছেলে শিপন মিয়া (২০) ও কিশোরগঞ্জ জেলার অষ্টগ্রাম উপজেলার বালি গ্রামের মস্তু মিয়ার ছেলে মহসিন মিয়া (২০)।

 

তিন মাস ধরে তাদের কোনো খোঁজ পাচ্ছেন না পরিবারের সদস্যরা। তারা বেঁচে আছেন, না মারা গেছেন তাও জানতে পারছেন না স্বজনরা।

এদিকে, বিভিন্ন গণমাধ্যমে মানবপাচার সংক্রান্ত খবর দেখে নিখোঁজ তরুণদের চিন্তায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তারা। এরই মধ্যে তাদের ফেরত দেওয়ার নামে দালালরা ১৫ লাখ ২৮ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে চম্পট দিয়েছেন।

তবে, দালালরা যুবকদের কারও কাছ থেকেই অগ্রিম টাকা নেননি। তাদের চট্টগ্রাম নিয়ে জাহাজে তুলে জিম্মি করে মেরে ফেলার হুমকি বা ফিরিয়ে দেওয়ার কথা বলে টাকাগুলো হাতিয়ে নিয়েছেন।

বালি-ফরিদপুর গ্রাম ঘুরে নিখোঁজদের স্বজনদের সঙ্গে আলাপকালে তারা জানান, একই গ্রামের দালাল আদম আলী, তার ছোট ভাই মালয়েশিয়ায় বসবাসরত রবিউল ইসলাম, ভাগ্নে জুলহাস, একই গ্রামের ওয়াদুদ ও মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত ইউসুফের মাধ্যমে ওই ১৪ যুবক মালয়েশিয়া যাওয়ার প্রস্তুতি নেন।

 

চৈত্র মাসের ১ তারিখ (১৩ মার্চ, ২০১৫) দালালদের খপ্পরে পড়ে তারা সমুদ্রপথে জাহাজে করে মালয়েশিয়ার উদ্দেশে রওনা হন।

 

তিন থেকে চারদিন পর দালাল আদম আলী, আবদুল ওয়াদুদ ও জুলহাস ওই যুবকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে স্বজনদের বলেন, তারা (ওই ১৪ যুবক) জাহাজে আটক রয়েছেন। তাদের মারপিট করা হচ্ছে। মুক্তিপণ হিসেবে দুই লাখ ২০ হাজার টাকা করে দিতে হবে। অন্যথায় তাদের মেরে ফেলা হবে।

এমনকি দালালরা মোবাইল ফোনে কান্নার শব্দও শুনিয়েছেন স্বজনদের।

তবে, স্বজনরা জানেন না যে যাদের কান্না শোনানো হয়েছে তারা তাদের ছেলে কী না।

এতে ভয় পেয়ে ছেলেদের ফিরে পেতে নিখোঁজ যুবকদের মধ্যে রুবেল, সালেক, বাসেদ, কুদ্দুস, মুজিবুর, আমির, রতন, ওসমান, সাইকুল ও শিপনের স্বজনরা জায়গা-জমি, বাড়ি-ঘর বিক্রি করে নগদ এবং বিকাশের মাধ্যমে দুই লাখ ২০ হাজার টাকা করে এবং এনাম, নাসির, সাজিদ ও মহসিনের স্বজনরা ৮২ হাজার টাকা করে স্থানীয় দালাল ও টেকনাফে অবস্থানরত দালালদের হাতে তুলে দেন।

টাকা দেওয়ার পরও তাদের আর খোঁজ মিলছে না। তারা কী সমুদ্র পাড়ি দিয়ে মালয়েশিয়ায় গেছেন, না মালয়েশিয়া-থাইল্যান্ডের কোনো কারাগারে আছেন, না জাহাজে করে সমুদ্রে ভাসছেন, না তাদের মেরে ফেলা হয়েছে-কিছুই জানেন না স্বজনরা।

এ ব্যাপারে নিখোঁজ নাসিরের মা জামেলা খাতুন (৪৫) কান্না জড়িত কণ্ঠে জানান, তিনি ছেলেকে ফিরে পেতে স্থানীয় দালাল ওয়াদুদের হাতে তিন দফায় ৮২ হাজার টাকা দিয়েছেন। এরপরও ছেলেকে ফিরে পাননি। এমনকি ছেলের সঙ্গে তিনি কথাও বলতে পারেননি।

 

নিখোঁজ কুদ্দুসের বাবা তাহের মিয়া  কাছে অভিযোগ করেন, তার ছেলে বিপদে রয়েছে, তাকে উদ্ধার করতে হলে টাকা দিতে হবে-এ কথা বলে স্থানীয় দালাল আদম আলী ও তার ভাগ্নে জুলহাস দুই লাখ ২০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। এরপর ছেলের খোঁজ পাওয়া তো দূরে থাক, দালাল আদম আলী ও জুলহাস এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে।

স্থানীয় মসজিদের ইমাম ফজল উল্লা  জানান, তার ছেলে সাজিদ উল্লাহ ১৩ মার্চ স্থানীয় দালাল ওয়াদুদ ও মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত ইউসুফের মাধ্যমে জাহাজ পথে মালয়েশিয়া যেতে বাড়ি থেকে বের হন। এর তিন থেকে চারদিন পর এক দালাল চট্টগ্রাম থেকে তাকে ফোন করে ছেলের কথা বলে টাকা চান। তিনি ছেলেকে ফেরত পেতে নগদ ও বিকাশের মাধ্যমে ৮২ হাজার টাকা দেন। এরপরও ছেলেকে ফেরত পাননি।

দালাল আদম আলী তার ছেলের সঙ্গে যোগাযোগ করিয়ে দেবেন বলে দুই লাখ ২০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। টাকা নেওয়ার পর থেকে আদম আলীরও খোঁজ মিলছে না বলে জানিয়েছেন নিখোঁজ মুজিবুরের বাবা জয়নাল মিয়া ও মা মনোয়ারা খাতুন।

 

মনোয়ারা খাতুন আরো যোগ করেন, পুত না থাহলে ট্যাহা দিয়া কি অইবো। তাই জমির ফসিল কাইট্টা বাড়িত না আইন্যা, বেইচা দালালরে ট্যাহা দিছি।

নিখোঁজ আমিরের মা তকিয়া খাতুন  জানান, তিনি ছেলেকে ফিরে পেতে ঋণ করে আর জমি ও গরু বিক্রি করে দুই লাখ ২০ হাজার টাকা দালাল আদম আলী ও তার ভাগ্নে জুলহাসের হাতে তুলে দিয়েছেন।

রুবেলের পিতা নোয়াব মিয়া জানান, আদম আলী তার ছেলের না বলে একজনের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলিয়ে দিয়েছেন। তবে, তিনি শুধুমাত্র ‘হ্যালো’ বলায় ওই প্রান্তে তার ছেলে না অন্য কেউ ছিল তা বুঝতে পারেন নি। এরপরও ছেলের খোঁজ পেতে তিনি দুই লাখ ২০ হাজার টাকা দিয়েছেন।

 

তিনি আরো জানান, মে মাসের মাঝামাঝিতে আদম আলী নিখোঁজ যুবকদের স্বজনদের বলেন, আগামি ছয়দিনের মধ্যে ছেলেদের খোঁজ না পেলে সবার টাকা ফেরত দেবেন। এ বলে তিনি শুক্রবার দিন টাকা ফেরতের তারিখ দেন। আর বৃহস্পতিবার রাতেই আদম আলী তার ভাগ্নে দালাল জুলহাসকে নিয়ে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যান।
‌‌‌‌
প্রায় একই ধরনের অভিযোগ নিখোঁজ রতন, এনাম, বাসেদ, সালেক, শিপন ও মহসিনের বাবার।

নিখোঁজ ছেলেকে ফিরে পেতে তাদের কেউ ঋণ করে আবার কেউ বাড়ি, জমি, গরু বা ফসল বিক্রি করে দালালদের হাতে টাকা তুলে দিয়েছেন। তারপরও তারা খোঁজ পাননি সন্তানের।

স্থানীয় বুল্লা ইউনিয়ন পরিষদের ছয় নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য বালি-ফরিদপুর গ্রামের বাসিন্দা মুখলেসুর রহমান এ ব্যাপারে  জানান, দালালরা এলাকার সহজ-সরল ছেলেদের ধোকা দিয়ে পাচার করেন। পরে ছল-চাতুরির মাধ্যমে তাদের মা-বাবার কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেন। তারা কোথায় আছেন, জীবিত না মৃত তা কেউ বলতে পারছে না।

এ ব্যাপারে লাখাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাম্মেক হক  বলেন, মানবপাচারের বিষয়টি শুনেছি। তবে, এলাকার কেউ এখনো লিখিত বা মৌখিক কোনো অভিযোগ করেননি। এ ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে দেখবো।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!