বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৩:১৮ অপরাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

হবিগঞ্জ শহরে দখল হয়ে যাচ্ছে প্রাচীন পুকুর হুমকিতে পরিবেশ,বাড়ছে ভূমিকম্প ঝুঁকি

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী, ২০১৬

452এম এ আই সজিব ॥ হবিগঞ্জে এক সময় উলেখযোগ্য সংখ্যক পুকুর ছিল। এসব পুকুর শহরের সৌন্দর্য বাড়িয়ে ছিল। শুধুই কি তাই, প্রাচীন এই শহরের পরিবেশকে সুন্দর করে রেখেছিল। সব দিক থেকে মানুষের দৈনন্দিন চাহিদাও পূরণ করে চলছিল এসব পুকুর।

কিন্তু কালের পথ চলায় হবিগঞ্জের পুকুরগুলো ক্রমে ক্রমে হারিয়ে যাচ্ছে। পরিবেশ রক্ষায় সরকার যখন একের পর এক পদক্ষেপ গ্রহণ করছে, হবিগঞ্জ তখন চলছে উল্টো পথে। এখানকার দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি ও প্রশাসন পরিবেশ রক্ষায় এতটাই উদাসীন যে এ সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় মানববন্ধনের মাঝেই সীমাবদ্ধ থাকে। শুধু তাই নয়, জলাধারা সংরক্ষণ আইন না মেনে পুকুর ভরাট করার ফলে হারিয়ে যাচ্ছে হবিগঞ্জ শহরের ঐতিহ্যের ধারক পুকুরগুলো।

পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষা অন্যতম জরুরি কাজ। এসব সম্পদ ধ্বংসরোধে পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ও জলাধার সংরক্ষণ আইন সংসদে পাস হওয়ার পর জনমনে আশার সৃষ্টি হয়েছিল। সরকার বিষয়টির গুরুত্ব অনুভব করে সংবিধানে পরিবেশ সংরক্ষণে বিধান অন্তর্ভুক্ত করে। এরপরও প্রতিনিয়ত হবিগঞ্জে নদী, খাল-বিল, পুকুর, জলাধার ভরাট চলছেই। বিভিন্ন সময় এ সব দখলের সংবাদ প্রকাশিত হয় গণমাধ্যমে। সংবাদ প্রকাশের পর অধিকাংশ ক্ষেত্রেই স্থানীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় আদালত পর্যন্ত গড়ায় বিষয়টি। আদালত রায় না দিলে পরিবেশ রক্ষায় নিজ উদ্যোগে কেউ এগিয়ে আসে না।

বিশিষ্ঠজনরা বলছেন, প্রকৃতির পরিবেশ রক্ষায় এক সময় শহরের বিভিন্ন প্রান্তের ছোট বড় পুকুরগুলোর বিশেষ অবদান ছিল। বর্তমানে আইন কানুন উপেক্ষা করে পুকুর ভরাট অথবা দখল করে নেয়ার ফলে শহরের পরিবেশের উপর বিরূপ প্রভাব পড়েছে যা আগামীতে আরো বড় বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে। পরিবেশ ও আইনবিদদের বিষয়টি খতিয়ে দেখা প্রয়োজন বলে মনে করছেন তারা। এ ক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা নেয়ার পাশাপাশি প্রকৃতি ও পরিবেশ রক্ষায় শহরের সব শ্রেণী পেশার মানুষ ও বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গও এগিয়ে আসা উচিত বলেও জানিয়েছেন কেউ কেউ। বিশেষজ্ঞদের মতে, শহর সুন্দর হলে এবং শহরের পরিবেশ ভালো থাকলে শহরে বসবাসকারীও ভালো থাকবেন।

সরেজমিনে হবিগঞ্জ শহরের বিভিন্নস্থান ঘুরে দেখা গেছে, শহরের অধিকাংশ পুকুরই ভরাট হয়ে গেছে। কোন কোন পুকুর ভরাট করে গড়ে তুলা হয়েছে বহুতল ভবন। জানা যায়, হবিগঞ্জ শহরে প্রবেশ মুখ শায়েস্তানগর পানি উন্নয়ন বোর্ড সংলগ্ন ঐতিহ্যবাহি প্রাচীন পুকুরটি ভরাট করে মার্কেট নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয় হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ ২য় মেয়াদে দায়িত্বে থাকাকালীন সময়ে। এজন্য তিনি একটি প্রকল্পও গ্রহণ করেন। পৌরসভার বাজেটে এখানে মার্কেট নির্মাণের জন্য রাখা হয় বরাদ্দও। কিন্তু আইনী ঝামেলা কারণে এখানে মার্কেট নির্মাণ করা হয়ে উঠেনি। এর মধ্যে তিনি হবিগঞ্জের একটি স্পর্শকাতর মামলায় কারাগারে থাকায় লাল ফিতায় আটকে থাকে প্রকল্পটি।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, গত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে হবিগঞ্জ ফৌজদারী কোর্ট এলাকা থেকে ফুটপাত ব্যবসায়ীদের উচ্ছেদ করা হয়। তখন ফুটপাত ব্যবসায়ীদের পুনাবার্সনের দাবি উঠে। পানি উন্নয়ন বোর্ড সংলগ্ন পুকুর (যা সরকারি পুকুর নামে পরিচিত ছিল) এটির পানি তৎকালীন সময়ে বিভিন্নভাবে দূষিত হয়ে যাওয়ায় মেয়র জি কে গউছ ওই পুকুরটির সামনের অংশে সীমিত আকারে সকাল ৭ টা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত অস্থায়ীভাবে ৩৬ ফুটপাত ব্যবসায়ীদের ব্যবসার অনুমতি দেন। দীর্ঘ আট বছরে এখানে একটি ট্রাক স্ট্যান্ডসহ শতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। প্রচার আছে, অস্থায়ী ব্যবসায়ীরা তাদের স্থায়ীত্বের জন্য মেয়র জিকে গউছের নিকট পরবর্তীতে দাবি জানালে তিনি মানবিক বিষয়টি বিবেচনা করে তাদের জন্য শহরের শ্মশানঘাটস্থ এলাকায় একটি জমির ব্যবস্থা করে দেন। সম্প্রতি তিনি আবারো কারাগারে থাকার কারণে ফুটপাত ব্যবসায়ীদের স্থায়ীভাবে এখনো পুনবার্সন করা যায়নি। ফলে তারা বিশাল কলেবরে ওই পুকুরটির চারপাশে গড়ে তুলেছে স্থাপনা। কিন্তু মাঝখানে পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে আছে বিশাল এ পুকুরটি।

বর্তমানে এতে বড় আকারের কচুরীপানা, কচুসহ বিভিন্ন প্রজাতির গুল্ম বেড়ে উঠেছে। স্থানীয়রা অনেকেই জানান, এখনো এ পুকুরটিতে পানি আছে, বড় বড় কই, মাগুর মাছ আছে। তবে কাদার পরিমাণই বেশী। যদি পুকুরটি পুনঃখনন করার ব্যবস্থা করে এর চারপাশে বিভিন্ন প্রজাতির ফুলের গাছ লাগিয়ে বিনোদন পিপাসুদের জন্য বিনোদন কেন্দ্র গড়ে তুলা সম্ভব হতো। এ পুকুরটি ছাড়াও শহরের ঘোষপাড়া তারা পুকুর, পুরান মুন্সেফী পুকুর, নিউ মুসলিম কোয়ার্টারসহ বিভিন্ন এলাকার পুকুরগুলোও ভরাট হয়ে যাচ্ছে। বিশেষজ্ঞদের মতে পুকুর ভরাটের ফলে একদিকে যেমন পরিবেশ হুমকিতে পড়ছে তেমনি বাড়ছে ভূমিকম্প ঝুঁকিও। পানির ভূগর্ভস্থ স্তর দিন দিন নিচে নামছে। সব মিলিয়ে মরুময়তার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে খোয়াই তীরবর্তী হবিগঞ্জ শহর। শুকনো মৌসুমে খোয়াই নদীতে পানি প্রবাহ কমে যাওয়া এবং অব্যাহতভাবে পুকুর ভরাটের ফলে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। হবিগঞ্জে পুকুর দখলের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় মানববন্ধন ও সমাবেশ হয়েছে। কিন্তু আজ পর্যন্ত কোন একটি পুকুর পুনঃখনন করে পুকুরের চারপাশে বিভিন্ন প্রজাতির ফুলের গাছ লাগিয়ে বিনোদন পিপাসুদের জন্য বিনোদন কেন্দ্র গড়ে তুলা যায়নি। যদি ভরাট হয়ে যাওয়া পুকুরগুলো খনন করে চারপাশে বিভিন্ন প্রজাতির ফুলের গাছ লাগিয়ে বিনোদন কেন্দ্র গড়ে তুলা হলে পরিবেশ সংরক্ষণের পাশাপাশি জীব পরিবেশ সংরক্ষণ ও বিনোদনে সহায়ক ভূমিকা রাখবে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। শুধু তাই নয়, এসবের ফুলের পাশাপাশি বিভিন্ন প্রজাতির বৃক্ষ রোপন করলে গড়ে উঠবে সবুজ নগরী, বাড়বে শহরের নান্দনিকতা। পুকুর ভরাট বন্ধে সচেতনতা বাড়ানোর পাশাপাশি আইন-প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোকে আরো বেশি সক্রিয় হওয়া জরুরী বলে মত দিয়েছেন অনেকে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!