সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৮:৩৪ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

মাধবপুরের চৌমুহনী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশিপ্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ শুরু

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১৬

৮৬৩৩২৫হামিদুর রহমান,মাধবপুর প্রতিনিধি : সিলেট বিভাগের প্রবেশদ্বার হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর উপজেলার চৌমুহনী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টি (এরশাদ) সম্ভাব্য প্রার্থীরা দলীয় মনোনয়ন পেতে লবিং-গ্রুপিং শুরু করেছে।

 

নির্বাচনের দিন-তারিখ ঘোষনা না হলেও নিজেকে প্রার্থী হিসাবে জানান দিতে ইংরেজি নববর্ষের শুভেচ্ছা সম্বলিত ব্যানার, পোষ্টার লাগিয়েছেন। পৌরসভার নির্বাচনের পরপরই চৌমুহনীতে পুরোপুরি ইউনিয়ন নির্বাচনের আমেজ বিরাজ করছে। প্রধান দু’রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগ ও বিএনপি’র দলীয় মনোনয়ন কে পাচ্ছেন তা নিয়ে চা-ষ্টলসহ সর্বত্র আলোচনা চলছে। অনেকেই দলীয় মনোনয়ন পেতে দলের নেতা থেকে শুরু করে কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ বৃদ্ধি করেছে। চেয়ারম্যানদের পাশা পাশি প্রচারণায় ব্যস্ত রয়েছে মেম্বার প্রার্থীরাও ।

 

পর পর দুইটি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদটি বিএনপির দখলে রয়েছে। গত নিবার্চনে উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান সোহাগ, উপজেলা জাতীয় শ্রমিকলীগের আহব্বায়ক আপন মিয়াকে পরাজিত করে চৌমুহনী ইউনিয়নে দ্বিতীয়বারের মত চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এবার দলীয় প্রতীকে নির্বাচন ঘোষনা দেয়ার পর অনেকেই নড়েচড়ে বসেছেন। দলীয় মনোনয়ন পেতে সর্বাতœক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। আওয়ামীলীগ দলীয় প্রার্থীরা হবিগঞ্জ-৪ (মাধবপুর-চুনারুঘাট) আসনের সংসদ সদস্য এড.মাহবুব আলীর আস্থাভাজন হওয়ার চেষ্টা করছেন।আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়ন পেতে গত নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী উপজেলা শ্রমিকলীগের আহব্বায়ক আপন মিয়া,উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও চৌমুহনী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি আজহার উদ্দিন ভূইয়া,চৌমুহনী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বর্তমান সভাপতি আঃ খালেক,সহ সভাপতি আঃ রউফ মেম্বার,গত নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন ছুরুক,ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা তাছাদ্দুক আহম্মদ মাষ্টার প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন। মাধবপুর উপজেলা শ্রমিকলীগের আহব্বায়ক আপন মিয়া বলেন, আমি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও জননেত্রী শেখ হাসিনার আদর্শ বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছি। আশা করি দল আমাকে মূল্যায়ন করবে। ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য আজহার উদ্দিন ভূইয়া বলেন ,আমি ছাত্র জীবন থেকে সুদিন-র্দুদিনে আওয়ামীলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। দলীয় মনোনয়ন পেতে শতভাগ আশাবাদী।

 

ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ও ৯নং ওয়ার্ডের বর্তমান মেম্বার আঃ রউফ বলেন, দল মনোনয়ন দিলে নির্বাচন করব। আশা রাখি দল আমাকে মূল্যায়ন করবে। ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন ছুরুক বলেন, ছাত্র জীবন থেকে আমি সুদিন-র্দুদিনে আওয়ামীলীগের কর্মী হিসাবে রাজনীতি করে আসছি। গত নির্বাচনেও আমি প্রার্থী হিসাবে নির্বাচন করেছি আশা রাখি দল থেকে আমি এবার মনোনয়ন পাব। আওয়ামীলীগ নেতা তাছাদ্দুক আহম্মদ মাষ্টার বলেন,দল মনোয়ন দিলে নির্বাচন করব।গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আমি প্রার্থী হয়েছিলাম সেই পেক্ষাপটে দল আমাকে মূল্যায়ন করবে।

 

 

এছাড়াও সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আতাউর রহমান চৌধুরী সেলিম ও আওয়ামীলীগের মনোয়ন চাইবেন বলে শুনা যাচ্ছে।আওয়ামীলীগ থেকে একাধিক প্রার্থী মনোয়ন প্রত্যাশি হওয়ায় আওয়ামীলীগের মনোয়ন নিয়ে দেখা দিয়েছে জটিল সমিকরণ। বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থীরা অন্যদের মতো প্রচারণায় ব্যস্থ রয়েছেন তারাও তাদের মতে তৃণমূল ও হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি সৈয়দ মোঃ ফয়সল ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি সৈয়দ মোঃ শাহজাহানের মন জয় করে দলীয় প্রতীকে নির্বাচন করার দৌড় ঝাপ করছেন। তবে বর্তমান রাজনৈতিক পেক্ষাপটে বিএনপি স্থানীয় সরকারের ওই নির্বাচনে অংশ নেওয়ার দলীয় কোন সিদ্ধান্ত না নিলেও চৌমুহনী ইউনিয়নের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীরা প্রচারণা তুঙ্গে রয়েছেন।বিগত দু’টি নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী হিসাবে চেয়ারম্যান নির্বাচন করে বিজয় ছিনিয়ে এনেছেন মাধবপুর উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও চৌমুহনী ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান সোহাগ।

 

 

এবারও তিনি দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী। তৃণমূল বিএনপির নেতাকর্মীদের সাথে কথা বললে তারা জানান,আগামী ইউ/পি নির্বাচনে বর্তমান চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান সোহাগের নাম বিএনপির একক প্রার্থী হিসাবে প্রায় চূড়ান্ত শুধু মাত্র ঘোষণার বাকী । এ ব্যাপারে মাহবুবুর রহমান সোহাগ বলেন , ছাত্রজীবন থেকেই আমি শহীদ জিয়ার আদর্শের রাজনীতি করে আসছি এবং দলও আমাকে যথাযথ মূল্যায়ন করেছে। ইনাশাল্লাহ আশাকরি দল এবারও আমাকে মূল্যায়ন করবে। এদিকে মাধবপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সিনিয়র যুগ্ন আহব্বায়ক ও চৌমুহনী ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা ফরিদুর রহমানফরিদচেয়ারম্যানপ্রার্থী হিসাবে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে আসছে। চৌমুহনী ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ফরিদুর রহমান ফরিদ বলেন,আমি ছাত্র জীবন থেকেই শদীদ জিয়ার আর্দশে আদর্শিত হয়ে ছাত্র রাজনীতি করেছি।দলের সু দিন র্দূ দিনে আমি দলীয় নেতা কর্মীদের পাশে ছিলাম তাই দল আশা করি আমাকে যথাযথ মূল্যায়ন করবে। দল আমাকে মনোনয়ন দিলে অবশ্যাই নির্বাচন আমি জয়ের শত ভাগ আশাবাদি।

 

অপর দিকে ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাবেক সাধারন সম্পাদক ও তরুণ আইনজীবি আনিছুল আবদাল শাহ লিটন,দলীয় মনোনয়ন চাইবেন বলে শুনা যাচ্ছে। তবে দলীয় সিদ্ধান্তে যে মনোনয়ন পাবেন তার পক্ষেই নির্বাচন করবেন। বিগত তিনটি’নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে নির্বাচনে প্রতিদন্ডিতা করে আসছেন শাহ সৈয়দ আমানউল্লাহ চুন্নু। এবারও তিনি নির্দলীয় প্রার্থী হিসাবে নিবার্চন করবেন বলে প্রচার প্রচারনা চালিয়ে আসছে। এছাড়াও দক্ষিণ মাধবপুর উন্নয়ন পরিষদের ব্যানারে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসাবে প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন দক্ষিণ মাধবপুর উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি আনোয়ার হোসেন বেলাল।চৌমুহনী ইউনিয়ন বিএনপির মধ্যে প্রকাশ্যে কোন কোন্দল নেই। জেলা বিএনপির সভাপতি সৈয়দ মোঃ ফয়সল ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি সৈয়দ মোঃ শাহজাহানের সিদ্ধান্তই এখানে চুড়ান্ত।

 

 

 

এদিকে বাংলাদেশ সাম্যবাদি দল(দিলিপবড়–য়া) সমর্থতিত একক প্রার্থী হিসাবে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে আসছে সাংবাদিক সৈয়দ শাহরুল ইসলাম সুমন।তবে জাতীয় পার্টি (এরশাদ) থেকে সমর্থন নিয়ে চৌমুহনী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসাবে নির্বাচন করবে বলে এমন কোন প্রার্থীর নাম এখনো শুনা যায়নি।স্থানীয় সরকার হিসাবে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সরাসরি জনগণের সাথে সম্পৃক্ত এবং জনগণের অতি কাছে বলে জনগন এই নিবার্চনকে গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। এতো কিছুর পরও জনগণের মাঝে একটি বিরুপ ধারণা ও মন্তব্য রয়েছে এ নির্বাচন কে ঘিরে। আর তা হচ্ছে প্রার্থীদের নির্বাচনের আগের বক্তব্যে আর নির্বাচিত হওয়ার পরের বক্তব্যের মাঝে যথেষ্ট পাথর্ক্য খুজেঁ পান জনগন। তাদের মতে মূলত জনগনের কল্যানের চেয়ে তাদের কল্যাণই বেশি হয়ে থাকে। তাই কে সৃষ্টি করবেন এমন ইতিহাস,যিনি ব্যতিক্রম পরিষদ গড়বেন ? সকল প্রকার দূর্নীতির উর্ধ্বে থাকবেন ? এর সঠিক উত্তর যিনি জনগনের মাঝে প্রকাশ করে বিশ্বাস স্থাপন করতে পারবেন তিনিই নির্বাচনে জয় লাভের সম্ভবনা । এমনটাই মনে করে এলাকার মানুষ ও সুশীল সমাজ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!