সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৩:১৪ অপরাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

রক্ষকরাই যখন বক্ষক পদক্ষেপ নিলে কি হবে!সাতছড়ি তেলমা বন বিটের গাছ কাটার মহোৎসব

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ৪ মার্চ, ২০১৬

78জাহাঙ্গীর আলম জয়,মাধবপুর থেকে॥ বিরান ভুমিতে পরিণত হচ্ছে সাত ছড়ি ও তেলমা ছড়া বনাঞ্চল। চোরাকারবারী রাজনৈতিক দলের নেতা ও এক শ্রেণীর সরকারী কর্মকর্তার দূর্নীতির কারণে দিন দিন উজার হচ্ছে এ বনাঞ্চল। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে রয়েছে যে, এখনই কঠোর ব্যবস্থা না নেয়া হলে আগামী কয়েক বছরেই বনাঞ্চলে গাছ পালা বলতে কিছু থাকবে না। ইতি মধ্যে রশিদ পুর বন বিট উজার হয়ে গেছে । বন বিভাগ এই বিটকে প্রায় ১০ বছর আগেই পরিত্যক্ত ঘোষনা করেছে। বাকি বিট গুলো চোরাকারবারীরা গ্রাস করতে শুরু করেছে। হবিগঞ্জ জেলার বনাঞ্চলের আয়তন ৩৬ হাজার একর ।

৪টি রেঞ্জে বিভক্ত বন বিভাগে রয়েছে ১১ টি বিট ্। এ বিট গুলো হচ্ছে হবিগঞ্জ- ১ (শায়েস্তাগঞ্জ) এ আত্ততায়-১ টি হবিগঞ্জ-২ (কালেঙ্গা) ৪টি সাত ছড়ি ও ২টি রঘুনন্দন রেঞ্জের আওতায় ৪টি বিট। বনাঞ্চলের প্রায় ৯৫ ভাগ জায়গাতেই বন বিভাগে সেগুন ,গর্জন,শাল,গামার জারুল,আকাশ মনি,বেলজিয়াম, লোহা গাঠ,আগর,চাপালিশ,বাশঁ, বেত জাতীয় গাছ,সৃজন করেছে। শত কোটি টাকা এই বন সম্পদ লোটে নিতে রাজনৈতিক ও প্রভাবশালীদের ছত্র ছায়ায় গড়ে উঠেছে বন দস্যু। এরা সুযোগ বুঝে দিনে অথবা রাতে কেটে নিয়ে যাচ্ছে মূল্যবান গাছ।

প্রতিদিন রাতের আধার ট্রলি ট্রাক যোগে লাখ লাখ টাকার গাছ পাচার হলেও বন বিভাগ ও পুলিশ অনেকটা দেখেও না দেখার বান করছে। কাছ কাটা পাচার পর্যন্ত সমস্ত কিছুই হচ্ছে নগদ নারায়নের মাধ্যমে । বন বিভাগে কিছু অসৎ বিট অফিসার ও রক্ষীদের প্রত্যক্ষ পরোক্ষ সহযোগিতায় গাছ পাচার চলছে। কয়েক দিন ঝড় বৃষ্টি হলেই শত শত গাছ পড়ে গেছে বলে দাবী ও সাতছড়ি বনাঞ্চলে ঘুরে দেখা গেছে চোরা কারবারীরা গহীন বন থেকে গাছ কেটে নেওয়ার করা হয়। কিন্তু বাস্তবে বন কর্মকর্তা গাছ কেটে বিক্রি করে দেয়্ । সরজমিনে তেলমা ছড়া পর গাছের মোথা আগুনে পুরে আলামত নষ্ট করে দেয়। একজন গাছ চোর প্রতি ঘন ফুট গাছের জন্য দিতে হয় ৪শত টাকা বিট কর্মকর্তাকে অর্থ লেন দেনের শেষে অসৎ কর্মকর্তা ভিলেজার ও রক্ষী গাছের প্রধান অংশ গুলো তুলে আলামত নষ্ট করে ফেলে। আর ডগার অংশ গুলো নিয়ে যাওয়া হয় বিটে।

যা আহরিত বন সম্পদ হিসাবে পরিচিত। অবৈধ গাছ গুলো প্রকাশ্যেই ঠেলা গাড়ি, রিক্সা বা ট্রাকে করে নিয়ে যাওয়া হয় চুনারুঘাট ও তেলিয়াপাড়া বিভিন্ন করাত কলে। সেখান থেকে পাচার হয় হবিগঞ্জ সহ সারা দেশে । পাচারের সময় রাস্তা কর্মরত বন বিভাগের চেক পোষ্ট ,পুলিশ কে নির্দিষ্ট পরিমান চাদাঁ দিতে হয়। সাংবাদিক নাম ধারী কিছু লোক বন কর্মীদের অবৈধ গাছ চুরি ব্যবসাকে বৈধতা দিতে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় তাদের সাফাই গেয়ে প্রতিবেদন লেখেন। সর জমিনে আরো জানা গেছে তেলমা ছড়া বিটের ভিলেজারের নেতৃত্বে দিবা রাত্রে গাছ পাচার হচ্ছে।

ভিলেজারা স্থানীয় গাছ চোরদের সাথে সখ্যতা গড়ে তুলে হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা। স্থানীয় লোকজন প্রতিবাদ করলে তাদের কে বন আইনে বিভিন্ন মামলা দিয়ে হয়রানি করা হয়। গত কয়েক দিন আগে ক্রাইম নিউজে এ বিষয়ে একটি নিউজ হলে তুলফার সৃষ্টি হয়। ভিলেজারা বলে বেড়ায় এসব অনলাইনে ন্উিজ উঠলে কি যায় আসে না। উদ্ধতন কতৃপক্ষ এ বিষয়ে অবগত আছে। বিট কর্মকর্তা জুলহাস উদ্দিন খানের যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান , আমার এখানে গাছ চুরি নেই বলেই চলে। কিন্তু লোক বলের অভাবে কিছু গাছ পাচার হচ্ছে। এ ব্যাপারে ভিলেজারদের অনেক বার সতর্ক করেছি। তাদের বিরুদ্ধে অনেকেই অভিযোগ করেছে। ২০১৫ সালে বন আইনে কতটি মামলা এবং কত জন গাছ চোরকে আটক করেছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন পরে যোগাযোগ করবেন। তিনি তথ্য দিতে অনেকটা অপারগতা প্রকাশ করেন। তাই সচেতন মহলরা মনে করেন রক্ষরাই যখন বক্ষকের ভুমিকা পালন করে এ টা এখন চিন্তার বিষয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!