রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ০৯:০০ অপরাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

অখন্ড ভারত আন্দোলনের নেতা বিপিন পাল হবিগঞ্জের অহংকার

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ৮ মে, ২০১৫

এ. কে. এম নূরুজ্জামান তরফদার( স্বপন)

অখন্ড ভারত আন্দোলনের নেতা বিপিন পাল হবিগঞ্জের অহংকার । তিনি ১৮৫৮ খ্রি. ৭ নভেম্বর হবিগঞ্জ সদর উপজেলার পৈল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পড়াশুনার হাতেখড়ি পরিবার থেকে বিশেষ করে শিক্ষা গ্রহনের প্রথম ধাপ সম্পন্ন করেন বাবার কাছ থেকে । পাঁচ বছর বয়সেই বাংলা বর্ণমালা শিক্ষা শুরু হয়। রামায়ণ-মহাভারত-পুরাণের শ্লোক শুনে তাঁর বাল্যশিক্ষা শুরু হয়। ১৮৬৬ সালে বিপিনচন্দ্র পালকে তাঁর বাবা নয়া সড়ক স্কুলে ভর্তি করিয়ে দেন। তারপর ১৮৬৯ সালে তাঁকে সিলেট গভর্নমেন্ট স্কুলে ভর্তি করানো হয়। এই স্কুল থেকে তিনি এন্ট্রান্স পরীক্ষায় রেকর্ড সংখ্যক নম্বর পেয়ে পাশ করেন। ১৮৭৪ সালের ডিসেম্বর মাসে উচ্চশিক্ষার জন্য কলকাতায় যান। ১৮৭৫ সালে তিনি প্রেসিডেন্সি কলেজে ভর্তি হন। এই কলেজ থেকে এফ.এ. কোর্স ফাইনাল পরীক্ষা দেয়ার কিছুদিন আগে তিনি জল বসন্তে আক্রান্ত হন। ফলে ফাইনাল পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারেননি। এরপর তিনি ক্যাথিড্রাল মিশন কলেজে ভর্তি হন। এখান থেকে ১৮৭৭ সালে পুনরায় এফ.এ. পরীক্ষা দেন।

তিনি ১৮৮০ খ্রি. সিলেটের মুফতি স্কুলের ভগ্নাংশ নিয়ে সিলেট জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয প্রতিষ্ঠা করে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেন। ১৮৮০ খ্রি. সিলেটের প্রথম বাংলা সংবাদপত্র পরিদর্শন প্রকাশ করেন । এছাড়া তিনি বেঙ্গল পাবলিক অপিনিয়ন, ট্রিবিউন, স্বরাজ, হিন্দু রিভিউ, সোনার বাংলা, ইনডিপেনডেন্ট, ডেমোক্রেট সহ অনেক পত্রিকায় সাংবাদিক ও সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। তাঁর সবচেয়ে বড় পরিচয় তিনি ছিলেন অখন্ড ভারত আন্দোলনের প্রথম সারির নেতা। এছাড়া বাংলা ও ইংরেজী ভাষায় লিখিত তাঁর ২৫ টিরও বেশী বই বিশ্বের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে পড়ানো হয়।

তিনি ব্রিটিশ বিরোধী এই বিপ্লবী বিরল প্রতিভার অধিকারী বিপিন পাল একাধারে রাজনীতিবিদ, লেখক, সাংবাদিক ও সমাজ সংস্কারক। উপমহাদেশের রাজনীতিবিদদের মধ্যে তাঁর বাগ্মীতা ছিল অসাধারণ। ব্রিটিশ সরকারের বিরুদ্ধে তিনি অনলবর্ষী বক্তৃতা দিতেন। তাঁর আহবানে হাজার হাজার যুবক ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়ে। তিনি ছিলেন চরমপন্থী রাজনীতির অন্যতম প্রধান প্রবক্তা।

বঙ্গভঙ্গের প্রতিবাদে দেশ উত্তাল হয়ে ওঠায় বিপিনচন্দ্র পালের বুকে স্বদেশ প্রেমের আগুন জ্বলে উঠে ছিল। আচার্য শিবনাথ শাস্ত্রীর পৌরোহিত্যে বিপিন পাল বুকের রক্ত দ্বারা লিখে শপথ করেছিলেনঃ
১. সরকারী চাকুরী করিব না
২. বৃটিশের দাসত্ব করিব না।
৩. প্রয়োজনের অতিরিক্ত সঞ্চয় করিব না।
৪. যথাসাধ্য স্বাধীনতা সংগ্রামে আত্মনিয়োগ করিব।

তাঁর করা উপরের প্রতিজ্ঞা থেকে বোঝা যায় জাতীয় স্বাধীনতা আন্দোলন বিপিনচন্দ্র পালের মনে প্রচণ্ডভাবে রেখাপাত করেছিল। তিনি যেসব প্রতিজ্ঞা করেছিলেন তা রক্ষা করার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করেছিলেন।

একজন প্রবাদতুল্য রাজনৈতিক হিসেবে রাজনীতিতে প্রত্যক্ষ ভূমিকা পালন করেও তিনি তাঁর অসাধারণ সৃষ্টিকর্মের জন্য আজও আমাদের প্রেরণার উৎস হয়ে বেঁচে আছেন। উনিশ শতকের আধুনিক বাংলা সাহিত্যের ক্রমবিকাশ হয়েছিল একদল তরুণ লেখকের হাতে। তাঁদের মধ্যে বিপিনচন্দ্র পালের ভূমিকা অন্যতম। রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের পরও বিপিনচন্দ্র পালের জীবনের একটা বড় অংশ জুড়ে আছে সাহিত্য সাধনা। জীবিকার জন্য কখনও বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেছেন আবার কখনও স্বাধীনভাবে সাংবাদিকতা করেছেন। উপমহাদেশের সাড়া জাগানো বহু সংবাদপত্রের সম্পাদনাও তিনি করেছেন।

তখনকার সময় ইংরেজি শিক্ষিত তরুণরা সাহেবী জীবনের প্রতি আকৃষ্ট হতেন কিংবা সরকারি চাকুরি গ্রহণ করতেন। কিন্তু বিপিনচন্দ্র পাল তা করেননি বরং তাঁর কাছে প্রথম ও প্রধান বিষয় ছিলো ‘স্বাধীনতা লাভ’। স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মানুষের মুক্তির জন্য জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত ব্যয় করেছেন। তাঁর কর্মজীবন পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, ভোগ নয়, ত্যাগই মুখ্য। দারুণ অর্থ কষ্টের মধ্যেও ‘দেশ-মাতা’র কথা ভেবে ভুলে গেছেন সকল যন্ত্রণা।

বৃটিশ সরকার ভারতের শাসন সংস্কারের জন্য ১৯২৭ সালে সাইমন কমিশন গঠন করেন। এই কমিশনে কোন ভারতীয়কে গ্রহণ না করায় সাইমন কমিশন বর্জন করার দাবিতে দেশ উত্তাল হয়ে উঠে। বিপিনচন্দ্র পাল সাইমন কমিশন বর্জনের জন্য জ্বালাময়ী ভাষায় বিভিন্ন জনসভায় বক্তব্য রাখেন। শ্রীহট্টের সুনামগঞ্জে সাইমন কমিশন বয়কটের দাবীতে অনুষ্ঠিত জনসভায় তিনি সাইমন কমিশন বয়কট অন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়তে আহ্বান জানান।

১৯৩২ খ্রি. ২০ মে বিপিন পাল তাঁর জন্মস্থান হবিগঞ্জ জেলার পৈল গ্রামেই দেহত্যাগ করেন। তাঁর মৃত্যুর পর ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরু হবিগঞ্জে এসে এই বাগ্মী নেতার জন্ম ও মৃত্যু স্থান পৈল গ্রামে অনেকক্ষণ অবস্থান করেন এবং পৈলের মাটি সঙ্গে করে নিয়ে যান, যা আজও ভারতের দিল্লীস্থ ন্যাশনাল মিউজিয়ামে সংরক্ষিত আছে।

তথ্য ও ছবিসূত্র:
১। বিপিন চন্দ্র পাল: রফিকুল ইসলাম (শেখ রফিক)

২। উইকিপিডিয়া

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!