JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
logo shaistaganj
,
sanvi stor
সংবাদ শিরোনাম :

আজ পবিত্র আশুরা

images

সৈয়দ শাহান শাহ্ পীরঃ হিজরী সনের প্রথম মাস মহররমের ১০ তারিখ ১০ম দিবসকে বলা হয় আশুরা। ইসলামের এক মহা পবিত্র দিন। ৬৮০ খ্রিষ্টাব্দে মহররম মাসের ১০ তারিখেই শাহাদাত বরণ করেন মহানবী সাইয়েদেনা হযরত মোহাম্মদ (সাঃ) এর নাতি ও হযরত আলী (রাঃ) পুত্র ইমাম হুসেন (রাঃ)। খিলাফত অধিকারের এক রক্তাক্ত যুদ্ধে কারবালার প্রান্তরে উমাইয়া বংশীয় মুয়াবিয়ার পুত্র ইয়াজিদের হাতে শহীদ হন ইমাম হোসেন (রাঃ)।

স্বভাবতই ঘটনাটি ইসলামের ধর্মাবলম্বী সব সম্প্রদায়ের মানুষকে ব্যতিত করে। শোকাবিভূত করে। এক সময় তারা এ শোক পালনের জন্যে বিলাপধর্মী শোভাযাত্রার আয়োজন করে সুদূর ইরানের ঐতিহ্যবাহী মাটিতে। কারবালার সেই বিয়োগান্তক শাহাদতের স্মৃতিতে স্মরণীয় করে রাখার জন্যে আয়োজন করে এক বেদনাবিধুর অনুষ্ঠানের। শুরুতেই ইরানের শিয়া সম্প্রদায়ের উদ্যোগে হলেও পরবর্তীকালে তাতে প্রত্যক্ষ অংশ নেয় সব সম্প্রদায় নির্বিশেষে সব মুসলিম। তারপর কাল প্রবাহে এ শোক পালনের আয়োজন ভারত উপমহাদেশে প্রচলিত হয় ইরান থেকে ধর্মপ্রচারার্থে আগত মুসলামনদের মাধ্যমে। তবে ঢাকা বা এদেশে অধিকাংশ স্থানে ছড়িয়ে পড়ে এবং প্রচলনের শুরু হয় ১৬৪২খ্রিষ্টাব্দে মুঘল সুবাদার শাহ্ সুজার শাসন আমলে। অর্থ্যাৎ বাংলাদেশে প্রায় ৪০০ বছর যাবৎ আশুরা উৎযাপন হচ্ছে।

সুবেদারের নৌবাহীনির তথ্যাবদায়ক শিয়া দরবেশ হিসেবে পরিচিত সৈয়দ মোরাদ মীর হযরত ইমাম হুসেন (রাঃ) এর স্মৃতি স্বারক হিসেবে পুরান ঢাকায় একটি হুসাইনী দালান বা স্মৃতি শৌধ নির্মাণ করেন। আর এ স্মৃতিকে ধারন বা কেন্দ্র করেই শুরু করেন শোক পালনের অনুষ্ঠান। উল্লেখ্য, সারা বিশ্বে এ যাবত প্রায় ১৩৭৭ বছর পর্যন্ত মহররমের আশুরা দিবসটি পালন করা হচ্ছে বলে ঐতিহাসিক বই পুস্তুক দ্বারা প্রমাণিত। অর্থ্যাৎ হুসেন (রাঃ) এর শাহদাৎ দিবস আজ ১৩৭৭ বছর পূর্ণ হয়েছে। উল্লেখ্য, প্রতি বছর হবিগঞ্জ জেলাসহ সারাদেশে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে যথাসময়ে অর্থ্যাৎ আজ ১০ মহররম পবিত্র আশুরা দিবস উদযাপন করা হচ্ছে। স্বরণার্তীকাল থেকেই এই দিনটি ঘটনাবহুল তাৎপর্য বহন করে আসছে। বহু ঐতিহাসিক ঘটনার নীরব স্বাক্ষী এই আশুরা। ৬১ হিজরির ১০ই মহররম কারবালা নামকস্থানে শেষ এবং শ্রেষ্ট নবী সাইয়্যেদেনা হযরত মোহাম্মদ (সঃ) নাতী সাইয়্যেদেনা হযরত হোসেন (রাঃ) ইসলামের জন্য শহীদ
হয়েছিলেন। তাই বলা হয়ে থাকে “ইসলাম জিন্দা হোতা হায় হর কারবালাকি বাদ ”।

নতুবা ইসলাম আজ এজিদ বাহিনীর হাতেই শাসনভার প্রতিষ্টিত হত (নাউজুবিল্লাহ)। উল্লেখ্য, হবিগঞ্জ জেলার ঐতিহাসিক সুতাং সুরাবই গ্রাম, সুলতানশী,চন্দ্রচুরি,লস্করপুর,নরপতি,পুরাসুন্দা,পাঁচগাও,নূরপুর,নছরতপুর,চন্ডিপুর,বারলাড়িয়া,লাদিয়া অলিপুর,রায়পুর,শৈলজুড়া,জয়নগর,রিয়াজনগর,উচাইল ,বহুলা এবং হবিগঞ্জ পৌরসভাসহ জেলার প্রায় সবর্ত্র গ্রাম বাংলায় পবিত্র আশুরা পালনের ঐতিহ্য যোগ-যোগ ধরে চলে আসছে। বাংলাদেশে প্রায় ৪শ’ বছর যাবৎ আশুরা পালন হচ্ছে। আর প্রায় ১৩৭৭ বছরে পর্দাপন নিয়ে সারা বিশ্বে হোসেন (রাঃ) কে উদ্দেশ্য করে আশুরা পালন হচ্ছে। তবে উক্ত আশুরাটি অর্থাৎ ১০ই মহররম সৃষ্টির আদিকাল থেকেই উৎযাপিত হয়ে আসছিল। কারণ এই আশুরাতেই মানব সৃষ্টি এবং মানব ধ্বংসসহ বিশ্বালয়ের সবকিছু ধ্বংসপ্রাপ্ত হবে আল্লাহ ছাড়া (কিয়ামত) । সারা বিশ্বের মুসলিম উম্মার কাছে এ দিবসটি অতীব শিক্ষার। এই আশুরাতেই উল্লেখিত গ্রামগুলোতে জড়িয়ে আছে লোক সাহিত্য ও লোকজসংস্কৃতি। প্রতি বছরের মহররম মাসের ১ তারিখ থেকে ১০ তারিখ পবিত্র আশুরা পর্যন্ত দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে হাজার-হাজার ভক্ত আশেকান দলে-দলে যোগ দেন।

অধিকাংশ ভক্ত আশেকানদের মহররম পালনের শেষ দিন হচ্ছে পবিত্র আশুরা। আবার কোনো কোনো ভক্তরা পুরো এক মাস পালন করেন। অসংখ্য আশেকান জারী,মুর্শিয়া এবং তাবুত জীবন্ত ঘোড়া,কাগজের ঘোড়াসহ হাতে-হাতে নানা রংঙ্গের পতাকা ,জাতীয়পতাকা ও ইসলামের পতাকাসহ ইয়াহোসেন- ইয়াহোসেন ধ্বনিতে মিছিল করে গ্রাম এলাকাসহ পাঞ্জাতন স্বৃতিসৌধতে দূরোদশরীফ ও সালাম পড়ে থাকেন। মহররমের ৯ ও ১০ তারিখ দুদিনই ভক্তদের উপছে পড়া ভীড় থাকে খুব বেশী। এ দু-দিন গ্রাম বাংলার জনপদের সকলের মুখে-মুখে উচ্চারিত হয় ইয়াহোসেন-ইয়াহোসেন। সর্বশেষে ১০ আশুরার সন্ধ্যার পূর্বে তাবুত-তাজিয়াগুলো স্বৃতিসৌধ বা কোনো নিরব নির্জন স্থানে উৎসর্গ করা হয়।উল্লেখ্য,এ মাস মুসলিম মিল্লাতের ত্যাগ-শিক্ষার মাস।

কারবালার প্রান্তরেলোমহর্ষক ঘটনাসহ বহু ঐতিহাসিক ঘটনাবলির মহা সমাহারে এ মাস আমাদের নিকট সীমাহীন গুরুত্বের দাবীদার।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *