JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
logo shaistaganj
,
ইসলামী একাডেমি এড
সংবাদ শিরোনাম :
«» শায়েস্তাগঞ্জে দুই দিন ব্যাপী শিশু মেলার সমাপণী ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত «» বানিয়াচংয়ে দরিদ্র মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে বৃত্তি প্রদান «» পুলিশ সদস্যের আত্মাহুতি,গ্রামের বাড়ীতে শোকের মাতম «» নবীগঞ্জের ওসমানী রোডে মার্কেটে আগুন লেগে দোকান পুড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি «» নিজের অস্ত্র দিয়ে হবিগঞ্জের এক পুলিশ সদস্যর আত্মাহত্যা «» চুনারুঘাটের চিমটিবিল সীমান্তে ১২৮ কেজি চা পাতা আটক «» শায়েস্তাগঞ্জে প্রান আরএফএল স্কুলের ৭ দিন ব্যাপী বার্ষিক প্রতিযোগীতার উদ্ভোধন «» মাধবপুরে সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেপ্তার «» চুনারুঘাটে শ্রীশ্রী বাসুদেব মন্দিরে ২৪ প্রহর ব্যাপী নাম সংকীর্ত্তন মহাযজ্ঞ «» শায়েস্তাগঞ্জ থেকে চুরি হওয়া ট্রাক ময়মনসিংহের তারাকান্দা থেকে উদ্ধার

দখলে বিলীন হচ্ছে মরা খোয়াই নদী

82691

চুনারুঘাট প্রতিনিধি : হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে গেছে এক সময়ের খরস্রোতা খোয়াই নদী। উপজেলাবাসীর সুবিধার্থে এরশাদ সরকারের আমলে এই নদী শহরের তিনশত গজ পূর্বে খনন করে নিয়ে যাওয়া হয়। ফলে নদীর পূর্বের অংশ মরা নদীতে পরিণত হয়। এরপর থেকেই এই নদীটির নাম হয় মরা খোয়াই নদী।

অবৈধ দখলের কারণে এখন বিলীন হতে চলছে এ নদীটি। যে যার মতো দখল করে নিচ্ছে মরা খোয়াই নদী।

জানা যায়, উপজেলার বড়াইল, পশ্চিম পাকুড়িয়া, গুচ্ছগ্রামসহ চুনারুঘাট সদরের মরা খোয়াই নদীর আশপাশের বাসিন্দা ও উপজেলার বিভিন্ন স্থানের প্রভাবশালীরা এসে নদীতে মাটি ভরাট করে অবৈধ ভাবে স্থাপনা ও দোকানপাট নির্মাণ করছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় কয়েকজন জানান, মরা খোয়াই নদীর দুই তীরের পৌরশহরের অংশ দখল নিয়ে কিছু লোক অবৈধ স্থাপনা ও দোকান নির্মাণ করেছে। বছরের পর বছর ধরে তারা এসব জমি দখল করে রেখেছে। অনেকেই আবার এসব জমি অবৈধভাবে বেচাকেনা করছে এবং দখল করে দোকানপাট ভাড়া দিচ্ছেন।

শুষ্ক মৌসুম আসলেই বেড়ে যায় নদী দখলের প্রবণতা। এই সময়ে মরা নদীতে কোনো জল থাকে না। ফলে দখল করতে সুবিধা হয়।

দখলদারকের বিরুদ্ধে প্রশাসন কোন উদ্যোগ না নেওয়ায় তারা আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।

এ ব্যাপারে চুনারুঘাট পৌর মেয়র মো. নাজিম উদ্দিন শামসু বলেন, আমরা নদী দখলমুক্ত করতে হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করেছি। তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে দিয়ে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের পাশাপাশি অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *