JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
logo shaistaganj
,
ইসলামী একাডেমি এড
সংবাদ শিরোনাম :
«» পাকিস্তানের বিপক্ষে টসে জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ «» ঢাকার শিশু ধর্ষণ মামলার আসামি হবিগঞ্জে গ্রেপ্তার «» নবীগঞ্জে ৬ জন মাদকসেবীকে ভ্রাম্যমান আদালতের কারাদন্ড «» বাহুবলে ঢাকা-সিলেট পুরাতন মহাসড়কে বাস খাদে পড়ে নিহত ৩ «» শায়েস্তাগঞ্জে দুই দিন ব্যাপী শিশু মেলার সমাপণী ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত «» বানিয়াচংয়ে দরিদ্র মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে বৃত্তি প্রদান «» পুলিশ সদস্যের আত্মাহুতি,গ্রামের বাড়ীতে শোকের মাতম «» নবীগঞ্জের ওসমানী রোডে মার্কেটে আগুন লেগে দোকান পুড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি «» নিজের অস্ত্র দিয়ে হবিগঞ্জের এক পুলিশ সদস্যর আত্মাহত্যা «» চুনারুঘাটের চিমটিবিল সীমান্তে ১২৮ কেজি চা পাতা আটক

হবিগঞ্জে বাসের টিকিটের সূত্র ধরে হত্যার রহস্য উন্মোচন

FB_IMG_1577902504987

হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের সদর উপজেলার রাজিউড়া গ্রামে চাঞ্চল্যকর আকলিমা হত্যা মামলার রহস্য উন্মোচিত হয়েছে। বাসের টিকিট ও কল লিস্টের সূত্র ধরে হত্যাকারি প্রতারক প্রেমিক আনোয়ার হোসেন ওরফে সোবান মিয়াকে (২৮) আটক করেছে পুলিশ। পরে আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দিয়েছে সে।

বুধবার (০১ জানুয়ারী) ভোরে আকলিমার ব্যবহৃত মোবাইল কল লিস্টের সূত্র ধরে উচাইল গ্রামে অভিযান পরিচালনা করে সদর থানা পুলিশ। এ সময় ওই গ্রামের আব্দুল আহাদের ছেলে কাঠমিস্ত্রি আনোয়ার হোসেন ওরফে সোবানকে আটক করা হয়।

পরে তাকে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিনা হকের আদালতে সোপর্দ করা হলে হত্যার দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় সে।

আদালতকে সে জানায়- মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার সিন্ধুর খান ইউনিয়নের জাম্বুরাছড়া গ্রামের হেলাল মিয়ার মেয়ে আকলিমা আক্তার (২৫) প্রায় এক বছর আগে তালাকপ্রাপ্তা হয়ে ৫ বছরের এক ছেলে সন্তানসহ পিত্রালয়ে অবস্থান করে। প্রায় ৮ মাস আগে আনোয়ারের সাথে মোবাইল ফোনে পরিচয় হয় আকলিমার। একপর্যায়ে তারা চুনারুঘাটে দেখা-স্বাক্ষাত করে। এরই মধ্যে আকলিমা গার্মেন্টে কাজ নিয়ে ঢাকায় তার খালার বাসায় অবস্থান করে। গত ২৩ ডিসেম্বর রাত ৮টায় খালার বাসা থেকে আনোয়ারের কথা মতো শায়েস্তাগঞ্জের ওলিপুরে আসে আকলিমা। সেখান থেকে তাকে নিজ বাড়িতে নিয়ে যায় আনোয়ার। পরে জানাজানি হয় উভয়ই বিবাহিত। এ নিয়ে তাদের মধ্যে মনোমলিন্য দেখা দেয়। এ সময় আকলিমাকে খুন করার ফন্দি আঁটে আনোয়ার। পরিকল্পনা অনুযায়ি ২৫ ডিসেম্বর ভোরে আকলিমাকে আত্মিয়ের বাড়িতে নিয়ে বিয়ের কথা বলে স্থানীয় বেরিখাল এলাকায় যায়। এ সময় ওই এলাকার একটি ঝোঁপে নিয়ে গলায় উড়না পেছিয়ে তাকে হত্যা করে আনোয়ার।

আনোয়ার আরও জানায়- সে নিজেও বিবাহিত। পারিবারিক বিরোধের কারণে বর্তমানে তার স্ত্রী শশুরালয়ে রয়েছে। ইতোপূর্বে আকলিমার সাথে তার শারিরিক সম্পর্ক হয়েছে। নিজেদের বিবাহের বিষয়টি একে-অপরের কাছে গোপন রেখেছিল। আকলিমাকে বাড়িতে রাখার বিষয়টি পরিবারের অন্য কেউ জানত না। ঘরের একটি কক্ষে তালাবন্ধ করে রেখেছিল তাকে।

আটক অভিযানে নেতৃত্ব দেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম, সদর মডেল থানার ওসি মোঃ মাসুক মিয়া ও ওসি অপারেশন দৌস মোহাম্মদ। ওসি মোঃ মাসুক মিয়া জানান- লাশ উদ্ধারের পরদিন সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়। পরে আকলিমার ভাই আমীর হোসেন বাদি হয়ে অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে হবিগঞ্জ সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। আকলিমার শরির থেকে পাওয়া এনা পরিবহণের টিকিট ও তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনের কল লিস্টের সূত্র ধরে আনোয়ারকে আটক করা হয়েছে। আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি দেয়ার পর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *