মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৯:২৩ অপরাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

নবীগঞ্জে গুলি ও বোমা ফাটিয়ে লন্ডনীর কোটি টাকার বাড়ি দখলের ঘটনায় তোলপাড়

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ১১ জানুয়ারী, ২০১৫

Nabiganj kuti takar bari dokol (3)মতিউর রহমান মুন্না, নবীগঞ্জ থেকে: নবীগঞ্জ পৌর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফয়েজ আমীন রাসেলের নেতৃত্বে একদল লোক হামলা চালিয়ে লন্ডন প্রবাসী চাচার কোটি টাকার বাড়ি দখল, লুটপাট, ভাংচুরের ঘটনায় সর্বত্র তোলপাড় চলছে। এ ঘটনায় নবীগঞ্জ থানায় পাল্টাপাল্টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। হামলায় গুলিবিদ্ধ আলাউর রহমান সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। পুলিশ এ ঘটনায় হামলা গুলি ও বোমবাজির অভিযোগে দায়েরকৃত মামলায় সাবেক চেয়ারম্যান ও রাসেলের পিতা শাহনেওয়াজ এর লাইসেন্সকৃত বন্দুক জব্দ করেছে এবং একই মামলায় ২জনকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতরা হল, জাহির আলী (২০) এবং জামাল হোসেন (৩০)। মামলা দায়ের করা হলেও আলিশান বাড়িটির দখলে বহাল তবিয়তে রয়েছে রাসেল। পুলিশি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বীরদর্পের মতো দেয়াল নির্মান কাজ চালিয়ে যাচ্ছে দেখার যেন কেউ নেই। মামলার এফআইআর ভুক্ত আসামী হয়ে ও প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে কিন্তু পুলিশ তাকে কেন গ্রেফতার করছেনা এ প্রশ্ন এখন সাধারন মানুষের মধ্যে। পুলিশ ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলার গজনাইপুরের কায়স্থগ্রামের লন্ডন প্রবাসী আলী নেওয়াজ চৌধুরী প্রায় ৫ বছর পুর্বে কোটি টাকা ব্যয়ে একটি আলিশান বাড়ি নির্মান করেন। নির্মানের পর তিনি লন্ডনে চলে যাওয়ার সময় তার আপন চাচাতো ভাই ও শ্যালক জিতু মিয়া মেম্বারকে কেয়ারটেকার হিসেবে দায়িত্ব দিয়ে চলে যান। এর কিছু দিন পরই তিনি মারা যান। এর পর থেকেই ওই আলিশান বাড়ীর দিকে দৃষ্টি পড়ে তারই ভাতিজা নবীগঞ্জ পৌর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফয়েজ আমীন রাসেলের। ওই বাড়িটি দখল করার জন্যে সে মরিয়া হয়ে উঠে। এক পর্যায়ে সে বিভিন্ন সময়ে জোর দখলের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়। এ স্থানীয় মুরুব্বিয়ান বিভিন্ন সময়ে সালিশ বৈঠক করেন। এ অবস্থায় গত ৩০ ডিসেম্বর সন্ধার পর হঠাৎ করে রাসেল পুলিশ এবং একদল ভাড়াটিয়া লোক নিয়ে ওই বাড়িতে হামলা করে। এ সময় হামলাকারীরা বোমা ফাটিয়ে মানুষের মধ্যে আতংক সৃষ্টি করে ঘর দখল করার চেষ্টা করে। তখন বাড়ীর কেয়ারটেকার জিতু মিয়া মেম্বার ও তার পরিবারের লোকজন বাধা দিলে তাদের উপর অর্তকিতভাবে বন্দুক দিয়ে কয়েক রাউন্ড গুলি ছুড়ে। এতে ওই পরিবারের শিশুসহ অন্তত ৭জন গুলিবিদ্ধ হয়। এ সময় হামলাকারীরা ওই বাড়ী ছাড়া ও পাশের ঘরে হামলা ও লুটপাটের তান্ডব চালিয়ে ঘরের আসবাবপত্রের ব্যাপক ভাংচুর করে। গুলিবিদ্ধ আহত আলউর রহমান (আলা মিয়া) ও তার সহোদর ইয়ারুপ মিয়া সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন। এ ঘটনার পর আলীশান বাড়ির কেয়ারটেকার জিতু মিয়া মেম্বার বাদী হয়ে রাসেল, তার পিতা সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান শাহনেওয়াজসহ ভাড়াটিয়া ১৬ জন কে আসামী করে নবীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। অপরদিকে একই ঘটনায় ফয়েজ আমীন রাসেল বাদী হয়ে ৯জন আসামী করে পাল্টা আরেকটি মামলা দায়ের করেন। পুলিশ এ ঘটনায় রাসেলের ভাড়াটিয়া ২জনকে গ্রেফতার করে এবং হামলায় ব্যবহৃত তার পিতার লাইসেন্সকৃত বন্দুক জব্দ করে থানায় নিয়ে যায়। এ ঘটনায় মামলার বাদী জিতু মিয়া মেম্বার অভিযোগ করে বলেন, পুলিশের সহযোগিতায় ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী নিয়ে বোমা ফাটিয়ে ও গুলাগুলি করে আমার বাড়ী দখল করে প্রকাশ্যে রাসেল ঘুরে বেড়াচ্ছে কিন্তু পুলিশ তাকে গ্রেফতার করছেনা। উল্টো সে ক্ষমতা দেখিয়ে আমাদের উপর বাড়ী দখলের মামলা করেছে। পুলিশ ওই মামলা এফআইআর ভুক্ত করেছে। এতে আমরা পুলিশের ভয়ে গুলিবিদ্ধ হয়েও সুচিকিৎসা নিতে পারছিনা। এব্যাপারে সাবেক চেয়ারম্যান পুত্র পৌর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফয়েজ আমীন রাসেল জানান, প্রবাসী চাচাতো ভাই বদিউজ্জামানের ভোগদখলে থাকা কোটি টাকার বাড়িটি জিতু মিয়া মেম্বার লোকজন নিয়ে জবর দখলের চেষ্টা করলে বাধা দেয়া হয়। কিন্তু তারা বাধা না মেনে আমার পিতা ইউনিয়নের সাবেক সুনামধন্য চেয়ারম্যান শাহ্ নেওয়াজকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে প্রাণে হত্যার চেষ্টায় মারপিট করে এবং গুলি বর্ষন করেছে। এব্যাপারে একই গ্রামের ছনর মিয়া, আব্দুরর্ উফ, নুর ইসলাম, আব্দুর রহমান, বাচ্চু মিয়াসহ অনেকেই জানান, কেয়ারটেকার জিতু মিয়ার দখলে থাকা আলী নেওয়াজ চৌধুরীর বাড়ীতে ওই দিন হঠাৎ করে রাসেল পুলিশ ও ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীদের নিয়ে বোমা ফাটিয়ে ও গুলাগুলি করে বাড়ীটি দখলে নেয়। এ সময় প্রানের ভয়ে আমরা কেউ এগিয়ে আসিনি। অনেক্ষন পর এগিয়ে এসে আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করি। এ ব্যাপারে স্থানীয় চেয়ারম্যান ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি শাহ আবুল খায়ের গোলাপ গুলি ও দখলের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বিরোধীয় ভূমি পারিবারিকভাবে আমরা কয়েকবার নিস্পত্তি করেছিলাম। প্রায় ৫ বছর পুর্বে প্রবাসী আলী নেওয়াজ চৌধুরী প্রায় কোটি টাকা ব্যয় করে ওই ভূমিতে দু’তলা ভবন নির্মাণ করেন। তিনি লন্ডন যাওয়ার সময় তার আপন চাচাতো ভাই ও শ্যালক জিতু মিয়া মেম্বারের দায়িত্বে বাড়ীটি রেখে যান। এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ লিয়াকত আলী বলেন, পুলিশের উপস্থিতিতে কোন মারামারি হয়নি। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। বাড়ির দেয়াল নির্মাণ বন্ধ এবং সংঘর্ষে ব্যবহৃত সাবেক চেয়ারম্যান শাহ নেওয়াজ মিয়ার লাইসেন্সকৃত বন্দুক জব্দ করা হয়েছে। এনিয়ে পৃথক দুটি মামলা হয়েছে। শান্তি-শৃংখলা রক্ষায় পুলিশের অভিযান জোরদার করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!