বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০৪:৫৮ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

প্রাথমিক শিক্ষার বর্তমান সংকট

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ১৫ জুলাই, ২০১৬

একটা জাতির সার্ভিক উন্নয়নে শিক্ষা অপরিহার্য উপাদান।এই শিক্ষা ব্যবস্থার ভিত্তি হল প্রাথমিক শিক্ষা।এদেশে রয়েছে প্রাথমিক শিক্ষার গৌরব উজ্জ্বল ইতিহাস।

স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে যুদ্ধ বিধ্বস্থ দেশে প্রাথমিক শিক্ষাকে জাতীয় উন্নয়নের হাতিয়ার ও সুনাগরিক গড়ে তোলার মাধ্যম হিসেবে বিবেচনা করে জাতীর জনক এক ঘোষনায় ১৯৭৩ সালে ৩৭১০০ প্রাথমিক বিদ্যলয়কে জাতীয় করণ করেন।

গঠন করা হয় শিক্ষা কমিশন যা ডঃ কুদরতই খুদা শিক্ষা কমিশন নামে পরিচিত।

১৯৭৪ সালে ঘোষিত হয় শিক্ষানীতি কিন্তু সেটি বেশি দূর এগুতে পারেনি।তারপর থেকে প্রাথমিক শিক্ষা চলতে থাকে একটি স্বল্প মেয়াদি পরিকল্পনার মাধ্যমে।এরই মধ্যে কয়েক দশক পেরিয়ে গেল।

প্রাথমিক শিক্ষার ক্ৃষেত্র অনেক ইতিবাচক পরিবর্তন ও উন্নয়ন লক্ষ্য করা গেল।সরকার আসল সরকার গেল সকলেই উন্নয়নের চেষ্টা করে গেলেন।

সর্বশেষ ২০১৩ সালের ৯ ই জানুয়ারি এক ঐতিহাসিক ঘোষনার মাধ্যমে বর্তমান প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৬১৯৩ টি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যলয়কে সরকারি করে প্রাথমিক শিক্ষার উন্নয়নে এক মাইল ফলক স্থাপন করেন।শুরু হল নতুন যাত্রা। কিন্তু যাত্রা পথেই হোঁচট খেল প্রাথমিক শিক্ষার অগ্র যাত্রা।

যে ভাবে মন্ত্রনালয় ও অধিদপ্তর সেটাকে পরিচালনা করার কথা ছিল সভাবে পারেনি।বর্তমানে এক সংকটের ভিতর দিয়ে প্রাথমিক শিক্ষা হামাগুড়ি দিচ্ছে।

সংকটের কিছু বিষয় নিয়ে আলোকপাত করছি-: —-

(১) প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয় বর্তমানে অনেক গুলো ঝামালায় জর্জরিত।দুর্বল আইনী ভিত্তির উপর দাঁড়িয়ে বেশ কিছু পরিপত্র ও নীতিমালা তৈরী করে শিক্ষক নিয়োনিয়োগ, পদোন্নতি, দপ্তরী ও নৈশ প্রহরী নিয়োগ, শিক্ষক কর্মচারীদের বেতন- ভাতা প্রদান সংক্রান্ত একাধিক বিষয়ে অনেক গুলো মামলায় জড়িয়ে পড়েছে মন্ত্রনালয়।এ পর্যন্ত একটি মামলায়ও জিততে পারেনি সরকার।এক্ষেত্রে মন্ত্রনালয়ের অদক্ষতা ও খাম-খেয়ালীকে দায়ী করেছেন শিক্ষাবিদরা।

এই মামলা জনিত কারণে বন্ধ রয়েছে নিয়োগ ও পদোন্নতির মত গুরুত্ব পূর্ণ বিষয় গুলো।সারাদেশে প্রধান ও সহকারী শিক্ষক মিলে ৬৩ হাজার পদ খালী রয়েছে যার জন্য ভেঙ্গে পড়েছে প্রাথমিক শিক্ষা।

যেখানে প্রাথমিক শিক্ষার অনেক গুলো অর্জন ছিল যেমন- শতভাগ ভর্তির হার, মান সম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে অনেক গুলো পদক্ষেপ গ্রহণ, মেয়ে শিশুর ভর্তির হার বৃদ্ধি ইত্যাদি।কিন্তু বর্তমান এই সমস্যা ও সংকট সকল অর্জনকে ম্লান করে দিয়ে অগ্রগামী প্রাথমিক শিক্ষাকে পিছনে ঠেলছে।

প্রতিদন গড়ে ২০০ জন করে শিক্ষক অবসরে যাচ্ছেন।শিক্ষক স্বল্পতায় মান সম্মত প্রাথমিক শিক্ষা অর্জন সম্ভব হচ্ছেনা।প্রায় ৭ বছর যাবৎ পদোন্নতি বন্ধ,৫ বছর যাবৎ শূন্য পদে নিয়োগ বন্ধ রয়েছে।

এগুলো থেকে উত্তোরনের জন্য মন্ত্রনালয়কে চিঠি চালাচালি ব্যতিত তেমন কোন উল্লেখ যোগ্যউদ্যোগ গ্রহণ করতে দেখা যাচ্ছে না।

(২) জাতীয় করণকৃত বিদ্যালয় গুলোর অবস্থা আরও করুণ।২০১৩ সালে জাতীয় করনের ঘোষনা করা হলেও ৩ বছরেও এর সকল কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব হয়নি।

আমলা তান্ত্রিক জঠিলতায় মাসের পর মাস বছরের পর বছর চলে যাচ্ছে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে প্রাথমিক শিক্ষা পিছিয়ে যাচ্ছে দেশ। জাতীয় করণকৃত বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের টাইমস্কেল,জৈষ্ঠতা, পদোন্নতি বিষয়ে সুস্পস্ট ব্যাখ্যা না থাকায় পূর্বের সরকারী বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সাথে উল্লেখিত বিষয় নিয়ে অনাকাংখিত জঠিলতা সৃষ্টি হয়ে মামলায় জড়িয়ে পড়েছে।

(৩) পিডিপি ৩ তে অবকাঠামোগত উন্নয়নের যে পরিকল্পনা ঘোষনা করা হয়েছিল সে ভাবে বাস্তবায়ন না হওয়ায় বর্তমানে অবকাঠামোগত সমস্যা তীব্র আকার ধারণ করেছে।তদুপরি প্রাক- প্রাথমিক শ্রেণি যুক্ত হওয়ায় তা অনেকটা সমস্যার সৃষ্টি করছে।

কাজের গুনগত মান ভাল না থাকায় পুরাতন ভবন গুলো বিনষ্ট হচ্ছে ফলে নতুন ভবন নির্মাণ করেও অবকাঠামোগত চাহিদা পূরণ সম্ভব হচ্ছে না।

(৪) পরিকল্পনা প্রনয়নে মাঠ পর্যায়ে কর্মকর্তা বা শিক্ষকদের অংশ গ্রহণ না থাকায় বা তাদের মতামতকে গুরুত্ব না দেওয়ায় যে কোন পরিকল্পনা মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়ন করার ক্ষেত্রে অনেক গুলো জঠিলতা দেখা দেয়ফলে এই জঠিলতা নিরসনে চিঠি চালাচালিতে অনেক মূল্যবান সময় ব্যয় করতে হয়।তাছাড়া ঘনঘন সিদ্ধান্ত পরিবর্তনে কোন কাজের গুনগত মান সঠিক থাকে না।

(৫) বর্তমানে প্রাথমিক শিক্ষায় শ্রেণি পাঠ দানের চেয়ে তত্ব প্রদান ও টেবিল ওয়ার্কেই শিক্ষকদের অধিক সময় ব্যয় করতে হয়।

অনেক ক্ষেত্রে তথ্য গুলো এমন স্বল্প সময়ের মধ্যে চাওয়া হয় যা আদৌ সে সময়ের মধ্যে প্রদান করা সম্ভব নয়।এ ক্ষেত্রে সাম্প্রতিক কালের উপবৃত্তির তথ্য তৈরী ও প্রদান বিশেষভাবে উল্লেখ যোগ্য।

(৬) ২০১০ এর শিক্ষানীতি অনুযায়ী ২০১৮ সালের মধ্যে সকল প্রাথমিক বিদ্যলয়কে ৮ম শ্রেণিতে রুপান্তর করে ৮ বছর মেয়াদী প্রাথমিক শিক্ষা চালু করার কথা।কিন্তু অদ্যবদী পর্যন্ত তেমন কোন অগ্রগতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে না।

সারাদেশে প্রায় ৬০০ এর মত প্রাথমিক বিদ্যলয়কে ৮ম শ্রেণিতে উন্নিত করা হলেও নেই পর্যাপ্ত শিক্ষক,নেই কোন আনুসাঙ্গিক ব্যয় বরাদ্দ, নেই কোন আলাদা কারিকুলাম, সিলেবাস ও শিক্ষা প্রশিক্ষণ।সিদ্ধান্ত গ্রহণের এই দ্বীর্ঘ সূত্রিতা শিক্ষানীতি বাস্তবায়নের প্রধান অন্তরায়।

(৭) প্রধান ও সহকারী শিক্ষকদের ২০১৪ সালের উন্নিত স্কেলে বেতন নির্ধারণ জঠিলতা, নতুন নিয়োগ – বিধি প্রণয়ন,পদোন্নতি ও নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে নেই কোন সময়োপযোগী পদক্ষেপ যাতে করে প্রাথমিক শিক্ষার ভবিষ্যৎ অগ্রগতি হয়ে পড়েছে স্থবির।

(৮) দুর্নীতি আর একটি জঠিল সমস্যার নাম।মাঠ পর্যায়ে দুর্নীতি সহনীয় পর্যায়ে নিয়ে আসার জন্য নেই পর্যাপ্ত মনিটরিং ও জবাব দিহিতা।যার ফলে প্রাথমিক শিক্ষা হারাচ্ছে তার গতিপথ।

এ সকল জঠিলতা নিরসনে প্রথমে উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে মন্ত্রনালয়কেই পাশাপাশি সহযোগীতা ও পরামর্শ নিতে হবে সকল অংশীজনের ও বিশিষ্ট শিক্ষাবিদদের।

725

মোঃ জালাল উদ্দিন
প্রধান শিক্ষক কাচুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
চুনারুঘাট, হবিগঞ্জ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!