শুক্রবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:৫০ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

নবীগঞ্জে অবাধে ফসলী জমির মাটি বিক্রির মহোৎসব চলছে দেখার কেউ নেই ?

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০১৫

হুমকির মুখে পরিবেশ ও ফসল উৎপাদন
OLYMPUS DIGITAL CAMERA
মতিউর রহমান মুন্না, নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) :হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার সর্বত্র এখন চলছে ফসলী জমির মাটি বিক্রির মহোৎসব। গ্রামের সহজ সলর মনা জমির মালিকেরা অতি সামান্য টাকার লোভে পড়ে মাটি ব্যবসায়ীদের কাছে ফসলী জমির উর্বর মাটি বিক্রি করছেন। যার কারনে জমির উর্বরতা কমে গিয়ে পরিবেশের ভারসাম্য বিনষ্ট হওয়ার সম্বাবনা দেখা দিয়েছে।

উপজেলার সর্বত্র ঘোরে দেখা যায়, প্রতি বছর ডিসেম্বর, জানুয়ারী ও ফেব্রুয়ারী মাস আসলেই জমে উঠে এই ফসলি জমির মাটির বেচা কেনার ব্যবসা। আর এ সব মাটি কেনার জন্য এক শ্রেনীর দালাল রয়েছে। তাদের কাজ হল গ্রামে গ্রামে ঘোরে কৃষকদের লোভ দেখিয়ে কম মুল্যে মাটি সংগ্রহ করা। এর বিনিময়ে তাদের বেশ মুনাফা অর্জন করা। এই সব মাটি বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় ইট ভাটার কাজে ব্যবহার হয়ে তাকে। তাছাড়া রাস্তা ঘাট নির্মান ও বসতভিটার কাজে ও ব্যবহার হয়ে তাকে। জমির মালিকরা এর কুপল বিবেচনা না করেই পানির মুল্যে মাটি বিক্রি করে যাচ্ছেন। এলাকার অসংখ্য ইট ভাটা থাকার কারনে অনেক প্রভাবশালী ভাটার মালিকরা তাদের দালালদের মাধ্যমে অতি কৌশলে জমির মালিকদের বস করে মাটি নিতে বাধ্য করে। স্থানীয় বাজারে যে মাটি প্রতি হাজার ঘনফুট ১হাজার থেকে সর্বোচ্চ ১ হাজার ৫০০ টাকা বিক্রি হয় সেই মাটি কৃষকদের কাছ থেকে দালালেরা ৬ শ থেকে ৮০০ টাকায় ক্রয় করে। এলাকার সমাজ সচেতন ব্যক্তিরা বলেন, প্রতি বছর যে হারে ফসলি জমির মাটি বিক্রি হচ্ছে তাতে মুঠে ও ভাল লক্ষন নয়। এর পরিদি দিন দিন আরো বৃদ্ধি পাওয়ার সম্বাবনা রয়েছে। এতে একদিকে যেমন ফসলি জমির উর্বরতা নষ্ট হচ্ছে আর অন্য দিকে পরিবেশের ভারসাম্য ও বিনষ্ট হচ্ছে। তাছাড়া ভবিষ্যতে দেশে খাদ্য ঘাটতি ও দেখা দিতে পারে। পরিবেশের ভারসাম্য ও খাদ্য ঘাটতি মোকাবেলায় ফসলী জমির মাটি বিক্রি বন্ধ করা অতি জরুরী।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ দুলাল উদ্দিন বলেন, ফসলী জমি থেকে মাটি কাটার ফলে জমির জৈব পদার্থ কমে যায়। এতে ফসলের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়। এই জমি গুলোতে কয়েক বছর ভালো ফসল উৎপাদন হবে না। তাছাড়া পরিবেশের ও ভারসাম্য ক্ষতির সম্মখিন হবে। দেশে চাহিদা মতো খাদ্য উৎপাদনের সার্থে ফসলী জমি থেকে মাটি কাটা বন্ধ জরুরী ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!