মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৫৯ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

বাহুবল মডেল প্রেসক্লাবের বনভোজন সম্পন্ন

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ১ মার্চ, ২০১৫

Picnic-02-300x137
বাহুবল প্রতিনিধি:-হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল মডেল প্রেসক্লাবের বার্ষিক বনভোজন অানন্দঘন পরিবেশে শুক্রবার (২৭ ফেব্রুয়ারী) সম্পন্ন হযেছে।

সকাল ৮টায় হবিগঞ্জ-সিলেট বিরতিহীন এক্সপ্রেসের এ্কটি বাস মডেল প্রেসক্লাবরে সামনে এসে দাড়ায়। কিছুক্ষন পরে বনভোজনের আয়োজক মজিদ তালুকদার ও হারিছ একটি ব্যানার গাড়িতে লাগান আর আজিজুল হক সেলিম মিউজিক বক্স ও মাইক সেট করেন। এরপরই শুরু হয় আনন্দের গান। আর এই গানের তালে-তালে একে একে সহধর্মীনি সহ বাসে উঠতে থাকেন। সকাল ৯টা ৩০মিনিটে সভাপতি নুরুল ইসলাম নুর ও মানবজমিন প্রতিনিধি নুরুল ইসলাম মনির অনুমতিক্রমে বাহুবল থেকে বাসটি ছেড়ে যায়।

৯টা ৪৫মিনিটে মিরপুরে আসে বাস। সাধারন সম্পাদক এম শামছুদ্দিন ও আয়োজক যুগান্তর প্রতিনিধি সিদ্দিকুর রহমান মাসুম করাঙ্গী নিউজ এর ব্যবস্থাপনা সম্পাদক হুমায়ুন কবীর কে সাথে নিয়ে কয়েকজন সাংবাদিক গাড়িতে উঠেন।

সকাল ১০টায় সহ-সভাপতি মৌলানা নুরুল আমিনের মেয়ের কন্ঠে নাথ গাওয়ার মধ্য দিয়ে ৫৫জনকে নিয়ে শ্রীমঙ্গল লাওয়াছড়া জাতীয় উদ্দ্যানের উদ্দেশ্যে রওয়না হয় বাহুবলের নন্দিত এক ঝাঁক সাংবাদিক।

কিছুক্ষণ যাওয়ার পরপরই শুরু হয় বনভোজন আয়োজক কমিটির র‌্যাফেল ড্রয়ের কুপন বিক্রি। চা-বাগান বেষ্ঠিত সবুজ ঘেরা পিচ ঢালা পথে এগুচ্ছে বাসটি। আর এর ফাঁকে আনন্দের বাজনার তালে-তালে কমিটির তিন সদস্য হকারের মতই ২০০ টিকিট বিক্রি করেন। পরক্ষণেই নুরুল ইসলাম মনির সহধর্মীনি নাজমিন নাহার ও তামিম সাহায্য তুলতে থাকেন যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক সাইফুর রহমান জুয়েলের বিয়ের জন্য।

সকাল ১০টা ৩০মিনিটে শ্রীমঙ্গল নুর ফুডস রেস্তুরার সামনে এসে দাড়ায় বাসটি। আয়োজকরা রেস্তুরা থেকে বিপুল পরিমান খাবার নিয়ে রওয়ানা দেন গন্তব্যের উদ্দেশ্যে। বাসটি শহরের প্রধান মোড় অতিক্রম করার পর স্ব-পরিবারে যোগ দেন প্রবীন সাংবাদিক একে এম মোছাব্বির চৌধুরী।

সকাল ১১টায় লাওয়াছড়া উদ্যানের সামনে এসে বাস দাড় করায় চালক। পায়ে কট-কট শব্দ করে একে একে সবাই যার যার সাথে থাকা স্ত্রী সন্তান আত্মীয়দের নিয়ে বাস থেকে নামেন।

আয়োজকরা উদ্যানে টিকিট ক্রয় করে সবাইকে নিয়ে প্রবেশ করেন।

জীব বৈচিত্র্য সমৃদ্ধত উদ্যানে উৎফুল্ল মনে চতুর্দিকে তাকিয়ে তাকিয়ে সামনের দিকে হাটছে সবাই। বনে প্রবশেরে সাথে সাথইে নানা ধরনরে বন্যপ্রাণী, পাখি এবং কীটপতঙ্গরে শব্দ শোনা যায়। যার যার মত করে ক্যামেরা বন্দি করছে দর্শনীয় স্থানে নিজেকে বসিয়ে। কিন্তু আয়োজক সিদ্দিকুর রহমান মাসুম এত আনন্দের মাঝ থেকে মনটাকে একটু দুরে রেখেছিলেন।যার ফলে কোন ক্যামেরাই বন্দি করতে পারেনি তাকে। জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, আমার ভালবাসার নির্দেশ, ডিজিটাল ক্যামেরায় নয় পৃথিবীর প্রত্যেক মানুষের হৃদয়ের ক্যামেরায় নিজেকে বন্দি করে রাখতে চাই।

কিছুদূর যেতেই পাওয়া যায় একটি বাংলো। আর এই বাংলোর সামনে কবিতার জন্য শুকনো পাতার বিছানায় বসে পড়েন কবি রেনু মিয়া।

সামনে সুর্যের কিরণমুক্ত গভীর অরণ্য। বুনো লতাপাতা গুলো পা জড়িয়ে ধরে যেন নিষেধ করছে সামনে না যেতে। তবুও নিষেধ অমান্য করে হাটতে হাটতে সবাই জড়ো হন একটি সবুজ ঘাসের ছাদর জড়ানো খোলা মাঠে। সেখানে আয়োজক সিদ্দিকুর রহমান মাসুমের নির্দেশনা ও সাইফুর রহমান জুয়েলের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত হয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতা। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য মহিলাদের বালিশ প্রাচার খেলায় উপভোগ্য হয় সবাই।

খেলা শেষে অনেকেই চলে যান জুমার নামাজ আদায়ের জন্য রেললাইনের পার্শ্বে অবস্থিত জামে মসজিদে। এই ফাঁকে হবিগঞ্জের খোয়াই প্রতিনিধি কাজী মাহমুদুল হক সুজন ও হুমায়ুন কবির মেয়ে অর্পিকে নিয়ে চলে যান কানাডিয়ান ৪পর্যটকের সাথে দুর্লভ উদ্ভিদ দর্শনে।

নামাজ শেষে সবাই ফিরে যান গাড়ীর কাছে। সেখানে আয়োজক মজিদ তালুকদার, মাসুম ও হারিছ সবার হাতে খাবার প্যাকেট ও পানির বোতল তুলে দেন। খাবার খাওয়ার মত পরিবেশ না থাকায় সভাপতি অন্যত্র খাওয়ার ঘোষনা দেন। এর ফাঁকে আয়োজক মাসুম ও হারিছ বাসের পাশে মাটিতে বসে খাওয়া সেড়ে ফেলেন। আয়োজকদের খাওয়া দেখে নুরুল ইসলাম মনি উত্তেজিত হয়ে মায়াবী বকা দিলেন। তিন কিলোমিটায় দুরে গিয়ে গ্র্যান্ড সুলতানের পাশে মাঝারী ছায়া বৃক্ষের নিচে সবুজ ঘাসে বসে সবাই ভোজ করেন।

বিকাল ৩টায় সর্বসম্মতিক্রমে চিড়িখানার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায় বাস। চিড়িখানায় বিরল প্রজাতির প্রাণী দর্শনে মুগ্ধ সবাই।

আছরের নামাজ শেষে বাস ছাড়ে চায়ের দেশের উদ্দেশ্যে। মিরপুর সানশাইন স্কুলের ছাত্র শাকিল ও বেতারে শিল্পী শিল্পীর কন্ঠে গান শুনতে শুনতে গাড়ী পৌঁছায় চায়ের দেশের ভাস্কর্য্যরে কাছে। ক্লান্ত শরীর নিয়ে হাফ ছেড়ে নেমে পড়েন সবাই।

ভাস্কর্য্যরে পাশে মজিদ তালুকদারের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত হয় র‌্যাফেল ড্র। ড্র শেষে সৌভাগ্যবান ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পুরস্কার বিতরণ করেন।

বিকাল ৫টা ১০ মিনিটে করাঙ্গী নিউজের সৌজন্যে অনুষ্ঠিত হয় বনভোজন কুইজ প্রতিযোগিতা।

বিকাল ৫টা ৩০মিনিটে বাস ছাড়ে আপন ঠিকানার উদ্দেশ্যে। চলন্ত গাড়ীতে ক্লান্ত শরীরে প্রফুল্ল মনে সবার বাড়ি ফেরার উদ্দেশ্যে আয়েজকরা সবার হাতে বিশেষ পুরস্কার তুলে দেন।

এই সব আনন্দ আয়োজনের মধ্য দিয়ে সৃষ্টিকর্তার অশেষ মেহরবানীতে সন্ধ্যা ৬টায় শেষ হয় বাহুবল মডেল প্রেসক্লাবের ২০১৫ বনভোজন। আজকের আনন্দে আগামী দিন গুলো সুন্দর সু-শৃংখল ভাবে কাটুক এই কামনায় যার যার আবাসস্থলে ফিরে যান সবাই।:

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!