বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০৩:৪৮ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

বিশ্ব গণসঙ্গীতের প্রাণ পুরুষ ও গণনাট্যের নতুন প্রবাহের সৃষ্টিকারী হেমাঙ্গ বিশ্বাস চুনারুঘাটের অহংকার

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ১১ এপ্রিল, ২০১৫

৮৯৬৯৮এ.কে.এম নুরুজ্জামান তরফদার (স্বপন): হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার খ্যাতনামা ব্যক্তিদের মধ্যে হেমাঙ্গ বিশ্বাস অন্যতম। বিশ্ব গণসঙ্গীতের প্রাণ পুরুষ ও গণনাট্যের নতুন প্রবাহের সৃষ্টিকারী এ সংগীত শিল্পী ১০ নং মিরাশী ইউনিয়নের মিরাশী গ্রামে জন্মগ্রহন করে চুনারুঘাট উপজেলা তথা সমগ্র বাংলা এবং ভারতবর্ষের গণসংস্কৃতি আন্দোলনে আলোড়ন সৃষ্টি করেছিলেন ।চল্লিশের দশক থেকে অসাধারণ গান রচনা করে সমগ্র ভারত জুড়ে বিপ্লবী হাওয়া বয়ে ছিলেন। হেমাঙ্গ বিশ্বাসের সর্বত্র পরিচয় ছিল একজন সঙ্গীত শিল্পী, গীতিকার, সুরস্রষ্টা, কবি এবং এই বাংলায় গণসঙ্গীতের অন্যতম পুরোধা হিসেবে। তিনি গণনাট্য আন্দোলনে ছোট-বড় অগণিত গানের কথা লিখে গীতিকার-সুরকার সহ সাধারণ শ্রোতাদের উজ্জীবিত করেছিলেন।তার প্রত্যেকটি ছন্দোবদ্ধ লেখা যেমন সুরে, সঙ্গীতে, মূর্ছনায় সমগ্র বাংলাদেশ এবং ভারতে জনপ্রিয়তা অজন করে লক্ষ কোটি মানুষের হৃদয়ে আলোড়ন তুলেছেন। সংগ্রামী চেতনা জাগ্রত করেছেন স্বদেশের স্বাধীনতার প্রতি ও শোষণহীন সমাজ প্রতিষ্ঠার জন্য তার প্রত্যেকটি ছন্দোবদ্ধ লেখা যেমন সুরে, সঙ্গীতে, মূর্ছনায় মনপাখির বুকে আগুন ধরাত, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য গানগুলোর মধ্যে ‘হবিগঞ্জের জালালি কইতর সুনামগঞ্জের কোড়া/ কাস্তেটারে দিও জোরে শান কিষাণ ভাইরে/ কাস্তেটারে দিও জোরে শান/ ফসল কাটার সময় এলে কাটবে সোনার ধান/ দস্যু যদি লুটতে আসে কাটবে তাহার জান রে/সুরমা নদীর গাঙচিল আমি শুন্যে দিলাম ওড়াসহ অনেক গান।তার গানে একিদিকে হাওর ভাটির জীবন প্রকৃতি জীববৈচিত্র অনবদ্য হয়ে উঠেছে আন্য দিকে দেশভাগের আখ্যান বেদনায় মূর্ত হয়ে উঠে ছিল।

 

বাঙলার চিরায়ত সম্পদ লোকধারাকে কেন্দ্র করেই তার গণসঙ্গীতের বিচরণ ঘটে। এই বিশ্ব গণসঙ্গীতের প্রাণ পুরুষ ও গণনাট্যের নতুন প্রবাহের সৃষ্টিকারী হেমাঙ্গ বিশ্বাস ১৩১৯ সনের ২৭ অগ্রহায়ণ তথা ১৪ ডিসেম্বর ১৯১২ সালে বৃহত্তর সিলেটের বর্তমান হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট উপজেলার মিরাশী গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা হরকুমার বিশ্বাস এবং মাতার নাম সরোজনি বিশ্বাস।হেমাঙ্গ বিশ্বাস হবিগঞ্জ হাইস্কুল থেকে পাশ করার পর তিনি মুরারিচাঁদ কলেজে (এমসি)অধ্যয়ন করেন। মাঠে-প্রান্তরের শ্রমজীবী মানুষের মাঝেই বড় হয়ে উঠেছিলেন মাটির কাছাকাছি থাকা হেমাঙ্গ বিশ্বাস। তাঁর লেখা থেকে জানা যায়, মিরাশি গ্রামে ছিল শালি ধানের মাঠ। আশ্বিন-কার্তিক মাসে সড়কের মাথায়, আলের ধারায় ঢেউ খেলত ময়নাশাইল, কার্তিকশাইল, কালিজিয়া, কৃষ্ণচূড়া— ধান। তাদের বিভিন্ন রং, হরেক রকম গন্ধ। ধানের শিষ টেনে কচি ধানের দুধ খেতেন ছোট্ট লালুবাবু ওরফে হেমাঙ্গ।তার দুষ্টমি দেখতে পেলে কোনও স্নেহশীল চাষি বলতেন, ‘‘ধানের বুকে অখন ক্ষীর, ছিড় না, পাপ হয়। কলকাতায় বসে ‘ছিন্নমূল’ কবি হেমাঙ্গ লিখলেন—

 

কার্তিক মাসে বুকে ক্ষীর ক্ষেতের ধানে ধানে

অঘ্রাণে রান্ধুনি পাগল নয়া ভাতের আঘ্রাণে।

 

হেমাঙ্গ বিশ্বাস ছাত্রবাস্থায়ই লাল পতাকার শিবিরে আশ্রয় নেন। স্বাধীনতা আন্দোলনের অংশ নিয়ে তার গীতল লোকায়ত কাব্যসঙ্গীতে উদ্ধুদ্ধ করেছেন মানুষকে। বিভিন্ন সময়ে গণমানুষের পক্ষে দাড়ানোয় একাধিকবার কারাবরণ করেন। বিশেষ করে ১৯৪৮ সালে তেলেঙ্গানা আন্দোলনের কারণে তিনি টানা তিন বছর কারা বরণ করতে হয়। হেমাঙ্গ বিশ্বাসের গানের কথা ধনুকছিলার মতোন টান টান ছিল। তার গানে জেগে ওঠতো বাংলার নিুবর্গীয় লোকজন। কণ্ঠ ফুড়ে বেরিয়ে আসা সুরধ্বনী যেন মুক্তিকামী মানুষের প্রেরণার উৎস হয়ে । হোমাঙ্গ বিশ্বাস বাংলার লোকায়ত ধারার গণসঙ্গীতকে এক মর্যাদার আসনে রেখে গেছেন। এখনো শ্রেণীবৈষম্যে নিষ্পেষিত অধিকারহারা, সর্বহারা শ্রেণীর লোকজন তার গানকে প্রেরণার উৎস হিসেবে বেচে নেন। সামাজিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক শোষন বঞ্চনার বিরুদ্ধে তার গণসঙ্গীত উদ্দীপ্ত করেছে বাঙ্গালিকে। তাই তার গানের মর্মবস্তু হয়েছে জনগণের দুঃখ কষ্ট বেদনা এবং তাদের মড়ণপণ বলিষ্ট সংগ্রামের হতিয়ার। তার গানে জীবন্ত হয়ে উঠেছে দুর্ভিক্ষ পীড়িত মানুষের মর্মান্তিক কষ্ট ও হাহাকার, ফুটে উঠেছে সাম্রাজ্যবাদী ও ফ্যাসিবাদী দানবের ভয়ঙ্ককর রূপ, চিত্রিত হয়েছে পূজিপতি-জমিদার-মহাজন কালোবাজারি-মুনাফাখোরদের নিষ্টুর শোষনের চিত্র।’ ত্রিশ ও চল্লিশ দশকে তার গান বাংলার মাঠঘাঠ কৃষকের ঘরে ঘরে পৌছে অধিকার আদায় প্রশ্নে তাদের সচেতন করছে বাঙ্গালীকে। নিজের দেশকে ভালসেবে কবি হেমাঙ্গ লিখলেন—

 

‘তোমার কূলকে ভালবেসেই তো

কূল ছাড়া আমি

…ব্রহ্মপুত্র আমার বিস্ময়

পদ্মা আমার শ্রদ্ধা

গঙ্গা আমার ভক্তি

তুমি আমার ভালবাসা… খোয়াই।

এই সঙ্গীত শিল্পী, গীতিকার, সুরস্রষ্টা, কবি ১৯৩২ খ্রিষ্টাব্দে কমিউনিস্ট পার্টির সংস্পর্শে আসেন ।১৯৩৫ খ্রিষ্টাব্দে কারাবন্দী থাকা কালে তিনি যক্ষারোগে আক্রান্ত হন এবং সেই রোগের কারনে তিনি কারাবন্দী হতে মুক্তি পান । ১৯৩৮-৩৯ খ্রিষ্টাব্দে বিনয় রায়, নিরঞ্জন সেন, দেবব্রত বিশ্বাস প্রমুখের সাথে ভারতীয় গণনাট্য সংঘবা আই.পি.টি.এ গঠন করেন । পঞ্চাশের দশকে এই সংঘের শেষ অবধি তিনি এর সাথে ঘনিষ্ঠভাবে তিনি যুক্ত ছিলেন ।১৯৪২ খ্রিষ্টাব্দে বাংলার প্রগতিশীল লেখক শিল্পীদের আমন্ত্রনে তিনি প্রথম সঙ্গীত পরিবেশন করতে কলকাতায় আসেন । ১৯৪৩ খ্রিষ্টাব্দে তাঁর উদ্যোগে এবং জ্যোতি প্রকাশ আগরওয়ালের সহযোগিতায় সিলেট গণনাট্য সংঘ তৈরি হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!