শুক্রবার, ১৪ অগাস্ট ২০২০, ০৪:১৫ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

ইতিহাসের স্বাক্ষী হয়ে মাথা উচু করে দাড়িয়ে আছে উচাইলের শংকরপাশা শাহী মসজিদ

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ৭ জুলাই, ২০২০

সৈয়দ হাবিবুর রহমান ডিউক :
স্থাপত্য শিল্পের অন্যতম নিদর্শন হবিগঞ্জ সদর উপজেলার উচাইলে অবস্থিত শংকরপাশা শাহী মসজিদ। খোজ নিয়ে জানা গেছে, মসজিদটি সুলতানী আমলের স্থাপত্য নিদর্শনগুলোর মধ্যে অন্যতম।

সদর উপজেলার রাজিউরা ইউনিয়নের উচাইল গ্রামে প্রায় ৬একর জমির ওপর প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে কালের সাক্ষী এ মসজিদটি। স্বচক্ষে মসজিদটি পরিদর্শন করলে চোখে যেন ধাধা লেগে যায়। অত্যন্ত চমৎকার মসজিদটির কারুকাজ আর নির্মাণশৈলী। উন্নতমানের প্রলেপবিহীন পোড়া ইট কেটে সেঁটে দেয়া হয়েছে ইমারতে। দেয়ালের বাইরের অংশে পোড়া ইটের ওপর বিভিন্ন নকশা এবং অলঙ্করণ সহজেই মুসল্লী তথা দর্শনার্থীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে।

মসজিদটি লাল বা রক্তিম রংয়ের বলে অনেকে এটাকে লাল মসজিদও বলে থাকেন। আবার টিলার ওপরে বলে অনেকে ‘টিলা মসজিদ’ও বলেন। দু’টোকে মিলিয়ে অনেকে ‘লাল টিলা’ মসজিদও বলেন। আবার অনেকে উচাইলের গায়েবী মসজিদ ও বলে থাকেন।

তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, ১৫১৩ সালে মসজিদটি নির্মাণ করেন শাহ মজলিশ আমিন (রা:)। তিনিই প্রথম মসজিদ স্থাপন করেন এখানে। পরবর্তীতে এই মসজিদের সুদৃশ্য ইমারত বা ভবন নির্মাণ করা হয় মুসলিম বাংলার স্বনামধন্য শাসনকর্তা সুলতান আলাউদ্দিন হোসাইন শাহের আমলে। ইমারতটির দৈর্ঘ্যও প্রস্থ একই মাপের (২১ ফুট ছয় ইঞ্চি)। বারান্দা তিন ফুটের সামান্য বেশি।

এটিকে অনেক সময় চার গম্বুজ মসজিদও বলা হয়ে থাকে। কেননা মূল বা আসল ভবনের ওপর একটি বড় বা বিশাল গম্বুজ এবং বারান্দার ওপর দেখতে পাওয়া যায় তিনটি ছোট গম্বুজ। দরজা-জানালা আছে প্রায় ১৫টি। দরজা ও জানালা প্রায় একই আকৃতির। সব দিকের দেয়ালের পুরত্বই বেশি। তিন দিকের পুরুত্ব প্রায় পাঁচ ফুট, আর পশ্চিমদিকের দেয়ালের পুরুত্ব এর প্রায় দ্বিগুণ বা প্রায় দশ ফুট। মোট ছয়টি কারুকার্য শোভিত স্তম্ভ আছে প্রধান কক্ষের চারকোণে ও বারান্দার দুই কোণে। উপরের ছাদ আর প্রধান প্রাচীরের কার্নিশ নির্মাণ করা হয়েছে বাঁকানোভাবে। মসজিদের দক্ষিণ পাশে রয়েছে বড় দীঘি। এটি মসজিদটির সৌন্দর্য যেন আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। ধর্মীয় বিশেষ দিনগুলোতে এখানে বেশি ভিড় জমে মানুষের। তবে প্রয়োজনীয় রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে মসজিদটি ক্রমেই ঐতিহ্য হারাতে বসেছে।

জানা গেছে, এই প্রাচীন মসজিদটির রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব নিয়েছে সরকারের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ। তবে এখন পর্যন্ত গ্রহণ করা হয়নি কার্যকর কোন ব্যবস্থা।

এ বিষয়ে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: শাখাওয়াত হোসেন রুবেল বলেন, আমরা ইতোমধ্যে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ে অর্ন্তভুক্তির জন্য এমসজিদটির নাম পাঠিয়েছি এবং অলরেডি সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্তি হয়ে গেছে খুব শীঘ্রই মসজিদটির সংস্কার কাজ শুরু হবে। তিনি আরো বলেন, সদর উপজেলার পক্ষ থেকে মসজিদটির রাস্তায় একটি সোলার বসানো হয়েছে।

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডটকম /০৭ জুলাই ২০২০/এস এইচ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!