রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:০৬ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

অস্তিত্ব সংকটে শায়েস্তাগঞ্জের পশু হাসপাতাল,ভাড়া বাসাতেই কার্যক্রম

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ২৭ আগস্ট, ২০২০

সৈয়দ হাবিবুর রহমান ডিউক: শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের তালুগড়াইয়ে জঙ্গলবেষ্টিত একটি স্থান রয়েছে। সেখানে আছে একটি পুরনো ভাঙা ভবন। বুঝার উপায় নেই এটি কোন হাসপাতাল হতে পারে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এটি ছিল শায়েস্তাগঞ্জ পশু হাসপাতাল। প্রায় ২৮ শতাংশ জমির ওপর ১৯০৩ সালে হাসপাতালটি স্থাপিত হয়। ব্রিটিশ সরকারের আমলে নির্মিত এ হাসপাতালে শায়েস্তাগঞ্জ অঞ্চলসহ প্রায় ১০টি চা বাগানের পশু চিকিৎসাসেবা চলে আসছিল।

তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, পূর্ণাঙ্গ চিকিৎসাসেবা চালুরত অবস্থায় এরশাদ সরকারের আমলে প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণে হাসপাতালটির এ করুণ পরিণতি ঘটে। হাসপাতালটি এখন পরিত্যক্ত। কিছু লোক ভাগাড় হিসেবে এটি ব্যবহার করছে।

ময়লা-আবর্জনার স্তূপে হাসপাতালটি ডাস্টবিনে পরিণত হয়েছে। এর পাশ দিয়ে গেলে দুর্গন্ধে নাক চেপে ধরতে হয়। দেখলে বোঝা কঠিন যে এটি ছিল পশু হাসপাতাল।

জানা গেছে, শুরুর পর দীর্ঘদিন এ হাসপাতালে একজন এসডিএলও, দুজন ভেটেরিনারি চিকিৎসক ও একজন ভেটেরিনারি সহকারী পশু চিকিৎসাসেবা পরিচালনা করেন। একে একে এ হাসপাতাল থেকে সবাই অন্যত্র চলে যান। এর পরও একজন ভেটেরিনারি সহকারীর মাধ্যমে শুধু কৃত্রিম প্রজনন চালু ছিল। এই ভেটেরিনারি সহকারী চলে গেলে সেখানে পশু চিকিৎসা কার্যক্রম একেবারে বন্ধ হয়ে যায়।

‘শায়েস্তাগঞ্জ ও এর আশপাশের এলাকা এখনো কৃষিপ্রধান অঞ্চল। সেই হিসেবে অনেকের গবাদি পশু রয়েছে। অনেকে আবার বাণিজ্যিকভাবে গবাদি পশু লালন-পালন করছে। কিন্তু চিকিৎসাসেবা বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছে পশুর মালিকরা। এ কারণে শায়েস্তাগঞ্জ এলাকায় গবাদি পশু পালন দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে।’ শায়েস্তাগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আব্দুর রকিব বলেন, একসময় বিসিএস ডাক্তার দিয়েই চলত এ হাসপাতালের কার্যক্রম ‘হাসপাতালের পাকা ভবনটি সেই মান্ধাতা আমলে ভেঙে পড়েছিল। এরপর বাঁশের বেড়া ও টিনের চাল দিয়ে তৈরি করা হয় আরেকটি ভবন। কয়েক বছর আগে প্রবল ঝড়ে সেটিও ভেঙে পড়ে। ফলে বন্ধ হয়ে যায় পশু চিকিৎসা কার্যক্রম।’

শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রশীদ তালুকদার বলেন, আমি এ বিষয়ে অবগত আছি। শায়েস্তাগঞ্জ নতুন উপজেলা, নতুন হাসপাতাল হতে একটু সময় লাগবে , আস্তে আস্তে সবই হবে।
এখানে গত ১৭ নভেম্বর প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন ডা. রমাপদ দে। কিন্তু তার বসার স্থান না থাকায় পৌরসভার লেঞ্জাপাড়ায় একটি ভবন ভাড়া নিয়ে হাসপাতালের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। এ ব্যাপারে কথা হয়

প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. রমাপদ দের সাথে তিনি বলেন, যোগদান করে ভাড়া ভবন নিয়ে কার্যক্রম শুরু করেছেন। আমার সাথে সহকর্মী হিসেবে একজন উপসহকারী প্রাণী ডাক্তার মো: বদিউজ্জামান রয়েছেন। আমরা কৃত্রিম প্রজনন, বিভিন্ন রকম ভ্রাকসিন প্রোগ্রাম. ও বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিনামুল্যে কিছু ঔষধ ও দিয়ে আসছি। আমাদেরকে সুরঞ্জিত হালদার নামে একজন সহায়তা করে থাকেন, তিনি প্রতি মাসে ৪০-৫০ টি কৃত্রিম প্রজনন সেবা বাসায় গিয়ে দিয়ে আসেন।

প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. রমাপদ দে আরো বলেন, নতুন হাসপাতালের জন্য আমি হবিগঞ্জ জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার মাধ্যমে মহাপরিচালক বরাবর আবেদন করেছি, এখনো কোন সাড়া পাইনি। যেহেতু শায়েস্তাগঞ্জ নতুন উপজেলা সেহেতু একটি প্রকল্পের মাধ্যমে কাজটি করা হতে পারে। সেক্ষেত্রে আমাদের শায়েস্তাগঞ্জ ড্রাইভার বাজারে বেশ কিছু জায়গা রয়েছে, সেখানে করা যেতে পারে।

ডিউক/দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ/টিটু

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!