মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৬:২৮ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

বানিয়াচং সড়কে লাশ রেখে পালানোর সময় জনতার হাতে প্রেমিক আটক

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২০

আকিকুর রহমান রুমনঃ- হবিগঞ্জের বানিয়াচং সড়কে রাস্তার পাশে এক গৃহবধূ মহিলার লাশ রেখে পালিয়ে যাওয়ার এলাকাবাসী ও জনতার হাতে আটক হয় ঘাতক
প্রেমিক অনিক পান্ডে।

এলাকাবাসী ও বিভিন্ন সূত্রে এবং থানা পুলিশের কাছ জানাযায়, ২৪ অক্টোবর শনিবার বিকাল ৩টার হবিগঞ্জ-বানিয়াচং আঞ্চলিক সড়কের পাশ থেকে লাশ পড়ে থাকার খবর ও একজনকে আটক করে রাখার সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্হল থেকে উদ্ধার করে থানা পুলিশ এবং জনতার হাতে আটক হওয়া যুবককে বানিয়াচং থানায় নিয়ে আসেন তারা।

নিহত মহিলার লাশের পরিচয় হলো বানিয়াচং উপজেলা সদরের চতুরঙ্গ রায়েরপাড়া মহল্লার বাসিন্দা রাইছ মেইল চালক মোঃআবু মিয়ার কন্যা জোনাকি(২২)এবং বানিয়াচং উপজেলা সদরের কুতুবখানী মহল্লার অপু মিয়ার স্রী।অপু জোনাকির সংসারে ১টি ছেলেও ১টি মেয়ে রয়েছে।


অবুঝ শিশুটি মায়ের লাশের পাশে দাঁড়িয়ে কি যেন বলতে চাচ্ছে অপলক দৃষ্টিতে থাকিয়ে।

এদিকে আটক প্রেমিক পান্ডে পরিচয় হলো,বানিয়াচং উপজেলা সদরের কাষ্টগড় গ্রামের মৃত মৃনাল পান্ডের পুত্র অনিক পান্ডে(৩০)।

এদিকে নিহত জোনাকীর মা হেনা বেগম সাংবাদিকদের জানান,প্রায় মাস খানেক পূর্বে এক সন্তান ও স্বামীকে রেখে নিহত জোনাকী তার ছোট বাচ্ছাকে নিয়ে পালিয়ে যায় অনিক পান্ডের হাত ধরে।কিন্তু পালিয়ে যাবার পর অনিকের ব্যবহৃত মোবাইল নাম্বার থেকে ফোন দিত তার ব্যবহৃত মোবাইল নাম্বারের ফোনে।

তিনি তার ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য বহু আকুতি মিনতি করেন এমনকি তাদের অবস্হান জানতে চাইলে থাকে,বিভিন্ন সময় বিভন্ন স্হানের কথা বলতো অনিক পান্ডে।

ঢাকা,চট্রগ্রাম,কুমিল্লাসহ আরও বেশ কয়েক জায়গার ঠিকানা বলতো।
এমনকি তার পূর্বের স্বামীকে ডিভোর্স করিয়ে তার মেয়ে জোনাকিকে নাকি বিয়ে করেছে বলেও জানায় থাকে।

গতকাল শনিবার হঠাৎ করে দুপুর ২টার দিকে হেনা বেগমকে তার নাম্বারে ফোন করে অনিক পান্ডের মোবাইল ফোন দিয়ে জানায়,তার মেয়ে জোনাকী সিলিং ফ্যানের আঘাতে মারা গেছে জোনাকির লাশ নাকি এ্যাম্বুলেন্সে করে পাঠাচ্ছে।

এই আলাপ চারিতার কিছুক্ষন পর পরই হবিগঞ্জ-বানিয়াচং রোডে চলাচলকারী যাত্রী সাধারন একটি লাশ ও লাশের পাশে একটি ছোট বাচ্ছা কান্না করার দৃশ্যটি দৃষ্টিগোচর হয়।এসময় লাশটি বহনকারী এ্যাম্বুলেন্স চালক লাশ ও অনিক পান্ডেকে নামিয়ে দিয়ে এম্বুলেন্স নিয়ে পালিয়ে যায়।

এসময় অভিযুক্ত অনিক পান্ডে পাশ্ববর্তী খাল পেরিয়ে চলে যাওয়ার সময় এলাকাবাসী ও জনতা মিলে তার পিছনে পিছনে দৌড়িয়ে গিয়ে আটক করে থানা পুলিশের হাতে সোপর্দ করেন।
এ ব্যাপারে নিহতের মা হেনা বেগম আরও জানান,সে আমার মেয়ে জোনাকি খুন করেছে আমি এই খুনের বিচার চাই।

শুধু আমার মেয়েকে খুন করে নাই এতিম করেছে জোনাকির শিশু সন্তানদের এবং দুটি পরিবারকেও খুন করেছে এই নষ্ট নেশাখোর দূর্দর্ষ খুনী অনিক পান্ডে।তাই আমি সরকারের কাছে আমার মেয়ে হত্যার সঠিক বিচার চাই।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বানিয়াচং সার্কেল মোঃ সেলিম মিয়া জানান,এই হত্যার ঘটনা সম্পর্কে তদন্ত চলছে এবং অনিক পান্ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করার পর তিনি এবিষয়ে জানাবেন।এম্বুলেন্স আটক হওয়া সম্পর্কে তিনি নিশ্চিত করে কোন কিছু বলতে পারেননি।

এব্যাপারে থানা ইনচার্জ মোঃ এমরান হোসেন বলেন,লাশ উদ্দার করা হয়েছে এবং লাশের ময়নাতদন্ত করার পর বলা যেতে পারে এটি হত্যা না আত্বহত্যা।

এছাড়া অভিযুক্ত অনিক পান্ডেকে গভীর রাত পর্যন্ত জিজ্জাসাবাদ করা হচ্ছে।এম্বুলেন্স আটক হওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন,অন্য উপজেলার ঘটনায় একটি এম্বুলেন্স আটক হয়েছে বলে তিনি জেনেছেন।
এটি এই ঘটনার এম্বুলেন্স নয় বলেও জানান।
এব্যাপারে কোন অভিযোগ মেয়ের পক্ষ থেকে হয়েছে কিনা জানতে চাইলে,তিনি বলেন এখনো হয়নি।

অনিক পান্ডে পালানোর সময় জনতা দৌড়িয়ে একটি হাওরের ডোবা থেকে আটক করে।পরে পুলিশ গিয়ে লাশটি উদ্ধার করে এবং আটক অনিক পান্ডেকে হ্যান্ডকাফ পরিয়ে থানায় নিয়ে আসে।

এদিকে এই ঘটনা বানিয়াচংসহ সর্বত্র মহলে জানাজানি হয়ে পরলে,এই বিষয়টি আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে চলে আসে।

এদিকে রাত ১ টা ৭ মিনিটে নিহত জোনাকির মা হেনা বেগম জানায়,তার মেয়ের লাশ বানিয়াচং থানায় পরে থাকাতে তিনি লাশের পাশে আছেন তার পুত্র সন্তান ও খালাতো ভাইদের নিয়ে।

আজ ২৫অক্টোবর রবিবার সকালে তার মেয়ের লাশ ময়না তদন্তের জন্য হবিগঞ্জ নিয়ে যাওয়া হবে।বানিয়াচং থানার ওসি সাহেব নাকি তারে এই ঘটনায় একটি অভিযোগ দিতে বলছেন।তাও এই গভীর রাতে ১টার পরে থাকে অভিযোগ দেওয়ার জন্য বলা হচ্ছে।তিনি আরও বলেন আমার দস্তখত নেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন কাগজে ও আমার নাম,ঠিকানা লেখা হচ্ছে।এমনকি আটককৃত আমার মেয়ের খুনী অনিক পান্ডেকে একটি রুমে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

এছাড়াও তিনি বলেন তার মেয়ের শরীরে অনেক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে এবং কানে একটি কলম ডোকার মতো ছিদ্র দেখতে পেয়েছেন।এই আঘাতের চিহ্ন গুলি পুলিশ নিজেও দেখছেন বলেন হেনা বেগম।

এছাড়া অনিক পান্ডে এই লাশটি নিয়ে নেত্রকোনা থেকে এসেছে বলে স্বীকার করেছে পুলিশের কাছে।তিনি এসব কথা শুনেছেন বলেন।এছাড়াও পুলিশের কাছে অনিকের পরিবারের সবাই নেত্রকোনা আছে বলেও জানায়।পরে তিনি পুলিশের কথায় মামলার অভিযোগ লিখিয়ে দিছেন কিনা জানতে চাইলে,তিনি বলেন এখনো দেই নাই।

তবে অভিযোগ লিখার জন্য থানায় লুক এসেছে তিনি অভিযোগ লিখে দেওয়ার জন্য রাজী হয়েছেন।
পরে রাত ২টা ৫৬মিনিটে নিহত জোনাকির ভাই সাগর জানায়,তার মা বাদী হয়ে অনিক পান্ডেকে প্রদান আসামী করে এবং গং আসামী দিয়ে একটি হত্যা মামলার লিখিত এজাহার দিয়েছেন।

এই ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ অনিক পান্ডের বিচার দাবী করে ফাঁশি চেয়েছেন ও এই খুনের ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার জোরদাবী জানিয়েছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!