সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:০১ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

একটি বাতিঘর ও তার আত্মকাহিনী

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ১৮ মে, ২০২১

মোঃ জালাল উদ্দিন রুমি :

সিলেট বিভাগজুড়ে অসংখ্য চা বাগান। আর এসব বাগানে চা শ্রমিক অগণন। কিন্তু নানা দিক থেকে তাঁরা এখনো অবহেলিত। শিক্ষা, চিকিৎসা, বেতন সকল ক্ষেত্রেই প্রতিনিয়ত বৈষম্যের শিকার এসব চা শ্রমিক ও তাদের সন্তানরা। তাইতো তাঁরা নিজেরাই উদ্যমী।

চা বাগানের দিক থেকে হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট উপজেলা অনেকটা ভরপুর। পাহাড় বেষ্টিত চা বাগান অধ্যুষিত এ উপজেলায় বিভিন্ন উপজাতির বসবাস। আর এখানেই সাঁওতাল, ভূমির, মুন্ডা, বাউরি, রায়, ব্যানার্জি, নাগপুরি, বাগতি, সবর, সম্প্রদায়ের বসবাস। কিন্তু শিক্ষার দিক থেকে তাঁরা অনেকটাই বঞ্চিত। কিন্তু এ বঞ্চনা দূর করতে উদ্যোগ নিলেন কিছু তরুণ। মাত্র ১০০ টাকা করে অর্থ তহবিল সংগ্রহ করে গড়ে তোললেন ‘বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয়’! সময়ে সময়ে এ বিদ্যালয়টি এখন পেয়েছে নিজস্ব ভবন, জায়গা। পাচ্ছে বিভিন্ন বরাদ্দ। আর আলো ছড়াচ্ছে এলাকায়। কিন্তু পায়নি বোর্ড স্বীকৃতি।

বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া বাগানেরই কিছু তরুণ মিলে গড়ে তুলেছেন তাদের স্বপ্নের এই প্রতিষ্ঠানটি। জনপ্রতি মাত্র ১০০ টাকা করে অর্থতহবিল দিয়ে প্রথমে দুই লক্ষ টাকা অর্থ সংগ্রহ করে শুরু হয়ে বিদ্যালয়ের কার্যক্রম। ২০১৮ সাল থেকে শুরু হয়ে এখনো চলছে শিক্ষা কার্যক্রম। শুরুতে কখনো খোলা আকাশের নিচে, কখনওবা নাচঘরে, কখনো কারো বারান্দায় চলছিলো শুরু কোমলমতি শিক্ষার্থীদের পাঠদান কার্যক্রম।

বাগান থেকে উচ্চ বিদ্যালয় অনেক দূর, মাইলের পর মাইল হেঁটে অনেক ছেলেমেয়েরাই পড়ালেখা করতে চায় না আর সে কারণেই উদ্যমী প্রাণচঞ্চল এক ঝাঁক তরুণ যারা বাগানের সন্তান তারা নিলেন এ ব্যতিক্রমী উদ্যোগ। তারাই শুরু করে দিলেন স্বপ্নের বাতিঘরের যাত্রা। পরবর্তীতে বাগান পঞ্চায়েতের দাবির প্রেক্ষিতে কর্তৃপক্ষ তাদেরকে দান করেছেন একশ শতক জায়গা। সেই জায়গার উপর সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের, উপজেলা প্রশাসন, ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সময়ে সময়ে দিয়েছেন বরাদ্দ। গড়ে উঠেছে স্কুলের নিজস্ব ভবন।

সম্প্রতি স্কুলটি ঘুরতে গিয়ে দেখা যায়, কোমলমতি একদল চা শ্রমিক সন্তানরা পাঠগ্রহণ করছেন। এই বাগানের সন্তান, বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা, বিনা পারিশ্রমিকে পাঠদান করে যাচ্ছেন নিরলস ও নির্মোহ ভাবে।

চারিদিকে সবুজের সমারোহ। পাহাড় টিলা এবং চা বাগান। সে এক অপরূপ দৃশ্য। নীল আকাশের নিচে দিগন্ত জুড়ে খোলা মাঠ। চা-বাগানের কোল ঘেঁষেই ঠায় দাঁড়িয়ে আছে- বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয়। কি অপরূপ, কি অসাধারণ। মন ভুলিয়ে যাওয়ার মত একটি স্থান। সেখানেই শ্রমিকরা অন্তরাত্মায় লালন করছেন বঙ্গবন্ধুকে। তাঁর আদর্শকে। তাদের কষ্টার্জিত অর্থে গড়ে তোলা এই প্রতিষ্ঠানের নামকরণের মধ্য দিয়েই বোঝা যায় বঙ্গবন্ধুর প্রতি তাদের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার গভীরতা।

চা শ্রমিক অনিল বারইকে বঙ্গবন্ধুর নামে নামকরণের প্রসঙ্গে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন- আমরা বঙ্গবন্ধুকে ভালোবাসি, আমাদের জন্য বঙ্গবন্ধুই একমাত্র আদর্শ। তাই পরবর্তী প্রজন্মের কাছে বঙ্গবন্ধুকে জানবার, বুঝানোর এবং অনুধাবন করবার চিন্তা থেকেই আমরা বাগানিরা এই প্রতিষ্ঠানের নাম করেছি- বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয়।

এদিকে কথা বলে জানাযায়, এই বিদ্যালয়ে প্রতি বছর নানান অনুষ্ঠান হয়। এসব অনুষ্ঠানে চা শ্রমিক সন্তানরা তাদের নিজস্ব সংস্কৃতিকে উপস্থাপন করেন আমন্ত্রিত অতিথিদের সামনে। তাদের নিজের শৈশব স্মৃতি, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, উপজাতি সংস্কৃতি খুব সুন্দর করেই তারা লালন করছেন এবং ধারণা করছেন প্রতিনিয়ত।

প্রতিষ্ঠাকালীন প্রধান শিক্ষক রনি গোয়ালা জানান-বর্তমানে পাঠদান কার্যক্রম ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত চলছে। প্রায় দুই শতাধিক ছাত্র- ছাত্রীরা অধ্যয়ন করছেন।

তিনি আরও জানান- এখন পর্যন্ত এই প্রতিষ্ঠানটি পাঠদান কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক অনুমতি বোর্ড কর্তৃক পায়নি। বিষয়টি তারা খুব একটা ভালো বুঝেন না তাই তারা শিক্ষা বোর্ডের আনুকূল্য আশা করছেন।

সম্প্রতি এই প্রতিষ্ঠানটি দেখতে যান সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক, শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান প্রধান মোহাম্মদ নুরুল হক। তিনি বলেন, এরকম একটি জায়গায়, এমন করে একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা কষ্টকর ও কঠিন। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের মানবিক ও উপজাতীয় কৌটায় গুরুত্বের সাথে বিবেচনায় আনা দরকার। এক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র তৈরি করতে যেকোনো রকম পরামর্শে আমি তাদের পাশে থাকবো।

এদিকে যে সকল শিক্ষার্থী এখানে অধ্যয়নরত করেন তারা কেউ কোনো রকম অর্থ দেননি। যে কারণে শিক্ষক যারা তারাও কোনরকম সম্মানী গ্রহণ করতে পারেন না। বাগানের উচ্চশিক্ষিত, অধ্যয়নরত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা, বিনামূল্যে পাঠদান কার্যক্রম করে যাচ্ছেন। তাদের সাথে কথা হলে তাঁরা বলেন, আমরা চাই ,এই প্রতিষ্ঠানটি সরকারের দৃষ্টিতে আসুক। একসময় এই প্রতিষ্ঠান থেকে শিক্ষার্থীরা বেরিয়ে সমাজ ও রাষ্ট্রের কাজ করবে। যেটা আমরা করছি।

অপরদিকে সচেতন মহল মনে করছেন শত প্রতিবন্ধকতাকে উপেক্ষা করে ক্রমাগত সামনে এগিয়ে চলা স্বপ্নের বাতিঘর ‘বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয় পিছিয়ে পড়া চা শ্রমিক সন্তানদের জীবনমান উন্নয়নে এবং সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার একটি অন্যতম উপাদান মাধ্যম হতে পারে। এজন্য বিদ্যালয়টির প্রতি সকলের সদয় দৃষ্টি প্রয়োজন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!