সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:০৩ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

দুটি ঘটনা ও আমাদের সমাজ – শাহ ফখরুজ্জামান

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ২৭ জুন, ২০২১

আমাদের অর্থনৈতিক অগ্রগতির সঙ্গে পরিবর্তনশীল সমাজে নতুন নতুন অপরাধ ও সামাজিক ব্যাধি বাড়ছে। এ নিয়ে সমাজবিজ্ঞানীরা গবেষণা করছেন। এ থেকে উত্তরণের জন্য নানা দিকনির্দেশনাও দিচ্ছেন। সামাজিক এ অবস্থা নিয়ে সংবাদমাধ্যমের উপস্থাপনা বা টকশোতে বিভিন্ন কারণও উল্লেখ করা হচ্ছে। অনেক সময় স্মার্টফোন বা ইন্টারনেটের অপব্যবহারকেই বড় কারণ হিসেবে দেখানো হচ্ছে। এমনকি মাঝে মাঝে ইঙ্গিত করা হচ্ছে ভারতীয় সিরিয়ালের প্রভাবকেও। দেশে যে ধরনের ঘটনা ঘটছে, তাতে বলতে হবে কারণগুলো যথাযথ ও যৌক্তিক।

তবে হবিগঞ্জের হাওর এলাকা বানিয়াচং উপজেলায় সম্প্রতি যে দুটি ঘটনা ঘটেছে, সেখানে কিন্তু এসব কারণের কোনো প্রভাব নেই। সেখানে এখনও সেই পল্লী এলাকা; বলতে গেলে তেমনভাবে সমাজের অনুসঙ্গ হতে পারেনি। সবাইকে নাড়া দেওয়া ঘটনাগুলো পর্যালোচনায় মনে হয়েছে বরং সেই আদিকালের প্রতিশোধ ও হিংসাত্বক সমাজ ব্যবস্থারই প্রতিচ্ছবি। এ নিয়ে নতুন করে ভাবারও সময় এসেছে।

বানিয়াচংয়ের যে দুটি গ্রামে ঘটনা ঘটেছে, সেই গ্রাম দুটির নামের সঙ্গেও বেমানান ঘটনাগুলো। একটি ঘটেছে আদর্শ গ্রামে। নামে আদর্শ হলেও কাজটি মোটেও আদর্শ নয়। আরেকটি ঘটেছে নিশ্চিন্তপুরে। নামে নিশ্চিন্তপুর হলেও কাজে নিশ্চিন্তার পরিচয় মেলেনি সেখানকার ঘটনায়ও।

বানিয়াচং উপজেলা সদরের কাছেই আদর্শ গ্রাম। গড়েরখালের পাশ দিয়ে ঘরে ওঠা গ্রামটির অধিকাংশ অধিবাসী বিভিন্ন এলাকা থেকে এসে এখানে বসতি গড়েছে। অধিকাংশ লোকজনই দরিদ্র। সংবাদকর্মী হিসেবে দুই একবার গ্রামটিতে গিয়ে যে দৃশ্যটি আমাকে অবাক করেছিল, সেটি হল প্রায় পরিবারেই অধিক সন্তান। ছয়জনের নিচে সন্তান আছে, এমন পরিবার চোখে পড়েনি। বরং ১১টি সন্তান আছে এমন পরিবারেরও দেখা পেয়েছি। সেখানেই একটি দরিদ্র পরিবার আবু ছালেহ মিয়ার। তার আট সন্তান থাকলেও নিজের ছিল না কোনো ভিটেমাটি। নিরুপায় হয়ে আশ্রয় নেন শ্বশুরবাড়িতে। তাও সেখানে একটি টিনের ছাপড়া ঘর বানিয়ে কোনো রকমে দিনাতিপাত করেন তারা। তার ছোট সন্তান মোহাম্মদ আলীর বয়স মাত্র তিন মাস। কিন্তু ঘটনাক্রমে তাকেই পুড়তে হয়েছে হিংসার আগুনে। আপন মামী তাকে পুকুরের পানিতে ফেরে হত্যা করেছেন।

এ হিংসার কারণ মোহাম্মদ আলীর মামী তুলনা বেগমের একমাত্র সন্তানটি কন্যা সন্তান। তার শাশুড়ি ছেলের মেয়ে সন্তানকে আদর না করে মেয়ের সন্তানদের বেশি আদর করেন। বউ-শাশুড়ি দ্বন্দ্বও ছিল। ফলে প্রতিশোধ নিতে সুযোগ পেয়ে অবুঝ শিশু মোহাম্মদ আলীকে পুকুরে ফেলে দেন তুলনা।

কিন্তু ঘটনা থেকে রেহাই পাননি তিনি। কারণ তিন মাসের কোনো বাচ্চা পুকুরে পড়ে মারা যাবে, সেটি কোনো স্বাভাবিক ঘটনা নয়। কারণ ওই বয়সে কেউ নিজে নিজে পানিতে নামতে পারবে না। তুলনাও হয়ত ঘটনার সময় সেটি চিন্তা করতে পারেননি। ফলে পুলিশ সহজেই ঘটনার রহস্য উদঘাটন করে তুলনাকে আইনের আওতায় নিয়ে আসে। পরে তুলনা আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়ে ঘটনার দায়ও স্বীকার করেন। এখন সময় এসেছে এ স্বীকারোক্তি নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করার। কেন সমাজে এ অধঃপতন আর অস্থিরতা।

এ ঘটনার চেয়েও লোমহর্ষক ঘটনা ঘটেছে মক্রমপুর ইউনিয়নের নিশ্চিন্তপুর গ্রামে। জীবন সায়াহ্নে থাকা ৬৫ বছরের বৃদ্ধা গোলাপ চান বিবিকে নির্মমভাবে দেশীয় অস্ত্র ফিকল দিয়ে হত্যা করে তারই ঔরসজাত সন্তান মোহাম্মদ আলী। এ হত্যার পেছনেও ছিল একটি উদ্দেশ্য; প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করা। গোলাপ চান বিবিকে নির্মমভাবে হত্যার ছবিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয় এবং চারদিকে সবাই ধিক্কার জানায়।

তবে এ ঘটনায়ও মোহাম্মদ আলীর প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার ষড়যন্ত্র চরিতার্থ করার সুযোগ হয়নি। বরং তিনি নিজেই এখন ঘায়েল হয়ে বসত গড়েছেন ১৩ শিকের ভেতরে।

নিশ্চিন্তপুরের ঘটনার শুরু থেকেই পুলিশ, সংবাদকর্মী ও এলাকার জনসাধারণ গোলাপ চান বিবির হত্যাকাণ্ডকে স্বাভাবিক মনে না করে অনুসন্ধান শুরু করেন। শেষপর্যন্ত দ্রুত রহস্যের উদঘাটন করে পুলিশ। পরে মোহাম্মদ আলীও আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে ঘটনার দায় স্বীকার করেন। রেহাই পায় এলাকার নিরীহ অনেক মানুষ।

মোহাম্মদ আলী ও তার চাচাত ভাই আব্দুল কাদিরের মধ্যে বাড়ির সীমানা, পানি নিষ্কাশনের রাস্তাসহ জমিজমা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। এ বিরোধের জের ধরে উভয়পক্ষের মধ্যে মামলা মোকদ্দমা চলছে। সম্প্রতি বানিয়াচং থানা পুলিশ উভয়পক্ষকে ডেকে এ ঘটনা নিষ্পত্তি করার আশ্বাস দেন। এরমধ্যে মোহাম্মদ আলী ও তার চাচাত ভাই আব্দুল কাদিরকে নিয়ে এলাকার মুরুব্বিরা সামাজিক বিচারে বসেন। বিচারের মধ্যে উভয়পক্ষের কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। মুহূর্তের মধ্যে ফিকলের আঘাতে মোহাম্মদ আলীর মা গোলাপ চান বিবি ঘটনাস্থলেই মারা যান।

এ অবস্থায় মোহাম্মদ আলী তার মাকে কাদিররা হত্যা করেছে বলে চিৎকার শুরু করেন। লোকজন নিয়ে কাদিরদের বাড়িঘরে হামলা ভাঙচুর ও লুটপাট করেন। মোহাম্মদ আলী ইতোপূর্বে দুই বার তার মাকে হত্যা করে আব্দুল কাদিরকে ফাঁসানোর চেষ্টা করেন এবং তার চাচাকেও একইভাবে পানিতে চুবিয়ে হত্যার চেষ্টা করেন বলে স্থানীয় লোকজন বলেছেন।

নিজের সন্তানের হাতে এভাবে প্রাণ দিতে হবে এমনটি কী কোনোদিন ভেবেছিলেন গোলাপ চান বিবি। আবার নিজের হাতে মাকে হত্যা করে এ ঘটনায় জেলে যেতে হবে সেই চিন্তাও কিন্তু ছিল না মোহাম্মদ আলীর। তার ষড়যন্ত্র ছিল চাচাত ভাই আব্দুল কাদির ও তার লোকজন থাকবেন জেলে আর তিনি তার ইচ্ছামত জমিজমা ভোগ করবেন।

হবিগঞ্জে কিছুদিন পরপরই কিন্তু এ ধরনের আলোড়ন সৃষ্টিকারী ঘটনা ঘটছে। শায়েস্তাগঞ্জে বাবার হাতে বিউটি হত্যা, বাহুবলে চুরি করতে গিয়ে মা-মেয়েকে নিষ্ঠুরভাবে হত্যাসহ বিভিন্ন সময়ে এখানকার ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলো নিয়ে আমাদের ভাবতে হবে।

বানিয়াচংয়ের এ দুটি ঘটনা থেকে আমরা বলতে পারি আমরা ক্রমেই এক নিষ্ঠুর সময়ের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি। যেখানে মানবিকতা, নৈতিকতা, মূল্যবোধ, দয়া, মমতা এসব শব্দের কোনো বালাই নেই। বরং অনৈতিকতা, অমানবিকতা, নিষ্ঠুরতা, স্বার্থপরতা, জিঘাংসা, হিংসা এবং বিদ্বেষে ভরা।

এ অবস্থার পরিবর্তন করতে না পারলে আমাদের জাতীয় সব অর্জনই কিন্তু বৃথা যাবে। দিন দিন সামাজিক অপরাধের মাত্রা বাড়তেই থাকবে। আমাদের সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টি, ধর্মীয় অনুশাসনের অনুশীলন, সহিষ্ণুতা, পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ জাগ্রত করার দিকে নজর দিতে হবে। আর এটি করতে হবে পরিবার থেকে। সামাজিক সমস্যা দূর করতে রাষ্ট্রের সহযোগিতার পাশাপাশি পরিবার ও সমাজকেই কিন্তু মূল দায়িত্ব নিতে হবে।

শাহ ফখরুজ্জামান


লেখক: সাংবাদিক ও আইনজীবী

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!