বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১০:৫১ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

ওরা কি আর কখনোই স্কুলে ফিরবে না!

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১

সৈয়দ হাবিবুর রহমান ডিউক, শায়েস্তাগঞ্জ :

মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে সারাবিশ্বের ন্যায় দেশে ও হাজারো মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। করোনা ঠেকাতে সরকার নানানমুখী পদক্ষেপ হাতে নিয়েছিল, এরই ধারাবাহিকতায় দেড় বছরের ও বেশি সময় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়েছিল। করোনায় যাতে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা সংক্রমিত না হয় সেজন্যই স্কুল কলেজ বন্ধ ছিল। এমন বাস্তবতায় খানিকটা পাল্টেছে সময়, মৃত্যু হার কমেছে, সংক্রমণের হার ও নিয়ন্ত্রণে এসেছে। সারাদেশে যখন সংক্রমণের হার ১০% এর নিচে ছিল,তখনই স্কুল কলেজ খোলার চুড়ান্ত ঘোষণা দেয়া হয়। এরই ন্যায় ১২ সেপ্টেম্বর থেকে সবধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চালু করা হয়েছে। দীর্ঘদিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শায়েস্তাগঞ্জের অনেক শিক্ষার্থীরা ঝরে পড়েছে। এরই মাঝে অনেক ছাত্রীদের ও বিয়ে হয়ে গেছে, তারা আর স্কুলে বা কলেজে যান না।

করোনার প্রভাবে পারিবারিক সমস্যা আর অভাবের কারণেই ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়ার অন্যতম কারণ । বেশ কিছুদিন হল স্কুল খুলেছে, স্কুলে ক্লাস কম থাকায় অনেক শিক্ষার্থীরা এখনো জানেই না স্কুল যে খোলা হয়েছে। টানা বন্ধে অভাবের সংসারের ঘানি টানায় সামিল হতে ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের কেউ কেউ চায়ের দোকানে কাজ করে, কেউ কেউ হাটবাজারের ধান চালের বস্তা উঠানামার কাজ করে, আবার কেউ কেউ মুদির দোকানে স্বল্প মজুরিতে কাজ করছে।
একদিকে, স্কুলে না যেতে যেতে খামখেয়ালিপনা আর লেখাপড়ার কোন চাপ না থাকায় ওরা পড়াশোনা থেকে দূরে সরে পড়েছে।

অন্যদিকে, একান্নবর্তী পরিবারের অসচেতন অভিবাবকরা তাদেরকে শিশু শ্রমের দিকে ঠেলে দিচ্ছেন।

এতে করে ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের অনিশ্চিত আর ঘোর ধোয়াশায় তাদের ভবিষ্যৎ।

শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার নুরপুর ইউনিয়নের সোহাগ মিয়া শাহজীবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র ছিল।তারা তিন ভাই এক বোন। সোহাগের বাবা উজ্জ্বল মিয়া ঝালমুড়ি বিক্রি করে সংসার চালান।
এই করোনার পরে সোহাগ আর স্কুলে যায়নি। এখন সে একটি চায়ের দোকানে দিন ৫০-৬০ টাকা মজুরিতে কাজ করে আসছে।

একইভাবে, আব্দুল গফুরের পুত্র মোজাহিদ মিয়া ক্লাস ফাইভে অধ্যয়নরত ছিল। এই করোনায় কেড়ে নিয়েছে তার ছাত্রজীবন। সে এখন তার বাবার মতই প্রতি হাট বারে ধান চালের বস্তা উঠানামাতে সাহায্য করে, এতে করে যা পায় তার মায়ের কাছে নিয়ে দেয়। এভাবেই তার জীবন।
গতকাল মংগলবার তখন সন্ধ্যা ৭ টা, সুতাং বাজারের অলিগলি এক পাশ থেকে অন্যপাশ মুখরিত করে রেখেছে একদল বাচ্চারা।

সন্ধ্যা হলে যেখানে বই নিয়ে পড়তে বসার কথা, সেখানে তারা বিন্দাশ গান গাইছে আর হাটছে।

এদের একজন নাইম মিয়া ক্লাস ফাইভের ছাত্র ছিল।

তার বাবা একজন টমটম চালক, আর তার মা কোম্পানিতে চাকুরী করে। তবুও সংসারের আয়ে শরিক হওয়ার জন্য ছোট ছেলেকে একটি দোকানে কাজ করার জন্য পাঠিয়েছেন। সেদিন বাজারে হাট ছিল না, তাই নাইমদের ও কাজ নেই।
তবে নাইমের সাথে কথা বললে সে জানায়, আমি আবার স্কুলে যেতে চাই, কিন্তু পড়ায় আগেরমত মন বসেনা।
করোনার প্রভাবে এভাবেই কত কত নাইম, সোহাগ, মোজাহিদদের স্কুলে যাওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। সেই সাথে এখনই ওরা জীবন যুদ্ধে সামিল হয়ে তাদের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ নিয়ে সন্ধিহান।

জীবন বাস্তবতার মুখোমুখি হয়ে তবে কি আর ওরা কখনোই স্কুলে ফিরবে না!

এই ব্যাপারে একজন সচেতন অভিবাবক রুমি জালাল জানান, আসলে এটা সত্য এখনো প্রত্যন্ত অঞ্চলে অনেকেই জানেই না যে স্কুল খোলা হয়েছে। ঝরে পড়া শিশুদেরকে স্কুলে ফেরাতে শিক্ষকদের উচিত বাড়ি বাড়ি গিয়ে দাওয়াত দিয়ে অভিবাবক সমাবেশ করা, এতে করে অভিবাবকরা সচেতন হলে তাদের ছেলেমেয়েদেরকে স্কুলমুখী হবে। এবং যে সকল শিক্ষার্থীদের গার্ডিয়ানরা অর্থেকস্টের কারণে তাদের ছেলেমেয়েদের কাজে লাগিয়েছেন তাদেরকে সরকার থেকে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেয়া উচিত।

এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ ইসলামি একাডেমির সহকারী শিক্ষক মোঃ আব্দুর রকিব জানান, আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে সরকারি নির্দেশনামতে ক্লাস নিচ্ছি। আমাদের স্কুলের অভিবাবকরা বেশ সচেতন, সেজন্য উপস্থিতির হার বেশ সন্তোষজনক। করোনায় ঝরে পড়ার বিষয়ে তিনি প্রশ্ন করলে জানান, প্রত্যন্ত অঞ্চলে ঝরে পড়া শিক্ষার্থী থাকতে পারে।

এই বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলীকে একাধিক কল দিলেও তিনি রিসিভ করেন নি।

এই বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ মুজিবুর রহমান জানান, আসলে স্কুল খোলার পর থেকে নতুন নিয়মে ক্লাস হচ্ছে। প্রথম অবস্থায় সিক্স থেকে নাইনে একটি করে ক্লাস হত, এখন আবার সপ্তাহে দুইদিন ক্লাস নেয়া হচ্ছে। সরকার যখন প্রতিদিন ক্লাসের সুযোগ করে দিবে, তখন আসলে বুঝা যাবে কতগুলো শিক্ষার্থী ঝরে পড়েছে। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর স্কুল খুলার পর আস্তে আস্তে ক্লাস শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি ক্রমেই বাড়ছে।

এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মিনহাজুল ইসলাম জানান, ১২ সেপ্টেম্বর থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চালু হয়েছিল।

গ্রামাঞ্চলে আসলেই শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি তুলনামূলকভাবে কম। আমি নিজেও বেশ কয়েকটি স্কুল পরিদর্শন করেছি, বিশেষ করে মেয়েদের উপস্থিতি বেশ কম। ঠিক কি কারণে শিক্ষার্থীরা স্কুলে আসছে না, এরা ঝরে পড়েছে কিনা, শিক্ষকদের খোঁজ নিতে বলেছি, এই বিষয়টি খুজে বের করার পর আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!