শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৮:৩৮ অপরাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

কৃষিতে নতুন উদ্ভাবনী মালচিং পেপার

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ১৪ জুন, ২০২২

সৈয়দ সালিক আহমেদ :

কৃষি বিভাগে নতুন সংযোজন মালচিং পেপার। কৃষকের জন্য একের ভিতর তিন। এটি এমন একটি বিজ্ঞান সম্মত পদ্ধতি যা প্রয়োগের ফলে একদিক কৃষকের ফসল উৎপাদন যেমন বেশী হবে অন্যদিকে টাকার সাশ্রয় হয়।

থাইল্যান্ডে উৎপাদিত বিশেষ ধরনের এই পলিথিন ফসলের মাটির উপরিভাগে ব্যবহারে ফলে মাটির আদ্রতা ও পুষ্টির ঘাটতি হয়না এবং বিভিন্ন ধরণের পোকামাকড়ের আক্রমণ রোধ করা যায়। মালচিং পেপার ব্যবহারের ফলে ১০ থেকে ২৫ভাগ মাটির আর্দ্রতা সংরক্ষণ থাকে। বিশেষ পলিথিনের এই মালচিং পেপার একাধিকবার ব্যবহার করা হয়। শীতকালে এই মালচিং পেপার ব্যবহার করলে মাটিতে প্রয়োজনীয় তাপমাত্রা ধরে রাখা সম্ভব হয় এবং গরমকালে মাটি ঠান্ডা থাকে।

বীজ রোপনের আগে মাটির জন্য যেসকল জৈব সার ও বালাই নাশক প্রয়োগের দরকার তা পরিমাণ মত মিশ্রনের পর ও বীজ রোপন করে মাঠির উপর এই মালচিং পেপার বিছিয়ে দিতে হয়। এতে করে গাছের গোড়ায় পানি জমে থাকেনা ও অন্য কোন আগাছার জন্মা হয় না।

হবিগঞ্জে এই মালচিং পেপার প্রায় ৫বছর থেকে আগে থেকে কৃষকরা ব্যবহার শুরু করেছেন। তবে এখনো যারা বাণিজ্যিকভাবে সবজি চাষ করেন তারা শুধু এই মালচিং পেপার ব্যবহার করছেন। ব্যাপক ভাবে মালচিং পেপারে ব্যবহার বাড়লে একদিকে যেমন কৃষকের টাকা বাচঁবে অন্য দিকে ফসল উৎপাদনে লক্ষমাত্রা অর্জন হবে।

কৃষকরা বলছেন, এই মালচিং পেপার সব চেয়ে বেশী উপকার করে আমাদের টমেটো, বেগুন, লাউ, ঝিঙ্গে চিচিঙ্গা বাগানে। কারণ গাছের গোড়ায় পানি জমে থাকলে গাছ পঁেচ গিয়ে মরে যায়। কিন্তু এই মালচিং পেপার ব্যবহারের ফলে বৃষ্টির পানি গাছের গোড়ায় না জমে নালায় চলে যায়। গাছ মরেনা, চাহিদামত ফসল উৎপাদন করা যায়।

আর কৃষি বিভাগ বলছে, এই পেপার সকল ধরণের ফসলে ব্যবহার করা যায় এবং ভাল ফসল উৎপাদিত হয়।

বাহুবল উপজেলা লামাতাশি ইউনিয়নের কৃষক মোঃ দুলাল মিয়া বলেন, আমি এক একর জায়গায় মালচিং পেপার দিয়ে চিচিঙ্গা চাষ করেছি, এতে করে গাছের গোড়া সব সময় পরিস্কার থাকে, পানি জমেনা, কোন আগাছা তৈরী হয়না, মাটিতে আর কোন ধরণের সার দিতে হয়না, শুরুতে সব কিছু মিশ্রণ করে বীজ রোপন করেছি। এতে করে আমার পরিশ্রম, টাকা এবং সময় সাশ্রয় হচ্ছে।

কৃষক আরফান আলী বলেন, প্রথমে কৃষি বিভাগ থেকে আমাদেরকে এই পেপারের বিষয়ে অনেকবার বলছে, আমাদের মাঝে একটা ভয় ছিল, পলিথিনের মত দেখতে এটা যদি মাটির ক্ষতি করে। কিন্তু এখন এটা ব্যবহারের ফলে আমাদের অনেক সাশ্রয় হচ্ছে।

জেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ তমিজ উদ্দিন খান বলেন, মালচিং প্রযুক্তি ব্যবহার করলে পানি লাগে অনেক কম, সেচ খরচ বাঁচে, সময়ের সাশ্রয় হয়। প্রথম দিকে কৃষকের আগ্রহ কম ছিল, তবে এখন ধীরে ধীরে কৃষকের আগ্রহ বাড়ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!