সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ০১:২৫ অপরাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

শায়েস্তাগঞ্জের সেই ফেরিওয়ালা থেকে ভূয়া কবিরাজ বাবুল চিশতি ও রফিকুল আলমের অজানা কাহিনী

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ১৪ জুন, ২০১৫

২২১৪২২১স্টাফ রিপোর্টার : শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভার পুর্ব বাগুনীপাড়া গ্রামের মৃত হোসেন আলী পুত্র ভূয়া কবিরাজ রফিকুল আলম ফেরিওয়ালা থেকে এখন কবিরাজ। লেখাপড়া করেছেন পঞ্চম শ্রেনী পর্যন্ত। অর্থ্যাৎ শিক্ষাগত যোগ্যতা স্বাক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন। এ যোগ্যতা নিয়েই তিনি নামের আগে ডাক্তার ও কবিরাজ লিখে দিব্ব্যি রোগীদের সাথে প্রতারণা করে লাখ লাখ টাকার মালিক।

 

জানা গেছে, এসএসসি পাস করে নিদ্দিষ্ট কলেজে ডিএএমএস ডিগ্রী অর্জন করেই কবিরাজ লিখা যায়। ভূয়া ও অপচিকিৎসকদের পাশাপাশি দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে রফিক কবিরাজী ও জ্বীন হাজির করে প্রতারণা করে চলছে।

 

বাবুল চিশতি ওরপে রবি চিশতি ও কবিরাজীর সাথে রফিকুল আলম তন্ত্রমন্ত্র তাবিজ কবজ দিয়ে সহজ-সরল মানুষের সাথে প্রকাশ্যেই প্রতারণা করছেন। ওদের প্রতারণার খপ্পরে পড়ে অনেকেই টাকা-পয়সা ও স্বর্ণালঙ্কার হারিয়ে পথে বসেছে। প্রকাশ্যে এসব অপকর্ম হলেও এর প্রতিবাদ করছেনা কেউ। প্রেম-ভালবাসা, মনের মানুষকে কাছে পাওয়া, স্বামী-স্ত্রীর মাঝে বিরোধ নিষ্পত্তি, শত্রুর ক্ষতিসাধন, মামলায় বেকসুর খালাস ইত্যাদি প্রলোভন দিয়ে মানুষকে আকৃষ্ট করে কথিত কবিরাজ প্রতারকরা। বিভিন্ন স্থানে রয়েছে এদের একাধিক দালাল।

 

হবিগঞ্জ জেলার সর্বত্র দালালদের মাধ্যমে ভিজিটিং কার্ড বিতরন করে প্রত্যন্ত এলাকা থেকে মক্কেল ধরে নিয়ে আসা হয় প্রতারকদের শায়েস্তাগঞ্জের কবিরাজী ঔষধ ঘরের মালিক কথিত ভুয়া কবিরাজ রফিকুল আলমের আস্তানায়। তাদের দেয়া ভিজিটিং কার্ডে শায়েস্তাগঞ্জের কবিরাজী ঔষধ ঘর এর ঠিকানা ব্যবহার করে কথিত কবিরাজ রফিকুল আলম তার ঘরের পেছনে জ্বীন হাজির করে নিজেই।

 

এমনই একটি প্রতিবেদন প্রকাশ হয়েছিল ২০১১ইং সালের দৈনিক প্রতিনিনের বাণী পত্রিকার ২৫ নভেম্বর প্রথম পাতায়। এর পর থেকে রফিকুল কবিরাজী ঔষধ ঘর এর নামের আগে শায়েস্তাগঞ্জ হারবাল এন্ড জুড়ে দিয়ে সাইন বোর্ড দিয়েছে। এতেও যখন রোগী পাওয়া যায় না, তখন থেকেই চেম্বার বন্ধ করে ভ্রাম্যমান গাড়ী নিয়ে হাট বাজারে মজমা বসিয়ে রোগী ধরার চেস্টা করেই চলছে। মজমা বসিয়ে শুধু মাত্র যৌন উত্তেজক ট্যাবলেট বিক্রী করে লাখ লাখ টাকা কামিয়ে নিচ্ছে।

 

এদিকে সর্বশান্ত করছে ট্যাবলেট সেবীদের। শায়েস্তাগঞ্জের বহুল আলোচিত ভূয়া কবিরাজ রফিকুল আলম ও বাবুল চিশতি অপকর্মের বিরুদ্ধে স্থানীয় দৈনিক প্রতিদিনের বাণী, লোকালয় বার্তা ও দৈনিক হবিগঞ্জ সমাচার পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হলে তাদের আরো অজানা কাহিনী বেড়িয়ে আসতে শুরু করেছে। বিগত ১৪/১৫ বছর ধরে ভূয়া কবিরাজ রফিকুল আলম কয়েক বছর আগে ভারত থেকে মাদক এনে বিভিন্নস্থানে বিক্রি করত। এর আগে পান-বিড়ী বিক্রী করে জীবিকা নির্বাহ করত।

 

ইদানিং কোন ডিগ্রি ছাড়া শায়েস্তাগঞ্জে বিলাস বহুল চেম্বার খুলে চালিয়ে যাচ্ছে চিকিৎসার নামে প্রতারণা। তাদের এই প্রতারণার ফাঁদে পড়ে অনেক রোগীরা মৃত্যু পথযাত্রী। আবার কেউ কেউ সর্বস্ব হারিয়ে পথে বসেছে। হবিগঞ্জের রামপুর এলাকার প্রবাসির স্ত্রী আলেয়া বেগম নাকে টিউমার নিয়ে তার কাছে যায়। ভূয়া করিরাজ রফিকুল তাকে ১ সপ্তাহের ভিতরে টিউমার সারিয়ে দেবার কথা বলে ৫ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। তার ওই ঔষধ খেয়ে ওই মহিলা আরো অস্স্থু হয়ে পড়েছে।

 

এদিকে সম্প্রতি আদালত পাড়ায় সরজমিন গিয়ে দেখা যায়, ভূয়া কবিরাজ রফিকুল আলম ও বাবুল চিশতিসহ তার দলবল নিয়ে সাদা রঙ্গের একটি প্রাইভেটকার চট্ট মেট্রো-১১-০৩২৮ যৌন উত্তেজক ঔষধসহ বিভিন্ন দেশীয় ঔষধ মাইকিং করে বিক্রি সাধারণ মানুষকে বোকা বানিয়ে বিক্রি করছে। ইদানিং ভূয়া কবিরাজ রফিকুল আলম সিলেট, মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জ ও হবিগঞ্জ জেলার প্রত্যেকটি চা বাগানের হাট-হাজারে সাদা প্রাইভেট কার নিয়ে যৌন উত্তেজক ট্যাবলেট বিক্রী করে লাখ লাখ টাকা কামিয়ে নিচ্ছে।

 

০২/

 

শায়েস্তাগঞ্জে ভূয়া কবিরাজ রফিকুল আলম চলে গেছে আত্মগোপনে। ভ্রাম্যমান আদালতসহ প্রশাসনে ধরা পড়ার ভয়ে কয়েকদিন ধরে বন্ধ রেখেছে তার কথিত “শায়েস্তাগঞ্জ হারবাল সেন্টার এন্ড কবিরাজী ঔষধ ঘর”।

 

ভ্রাম্যমান আদালত ভূয়া কবিরাজ রফিকুল আলমসহ শায়েস্তাগঞ্জের কয়েকজনকে ধরতে অভিযানে গিয়ে তাদের দোকান বা চেম্বার বন্ধ পেয়েছে। ভূয়া ডাক্তার ও কবিরাজ রফিকুল আলম এবার ভিজিটিং কার্ডে ডাক্তার লিখে চমক দেখিয়েছেন। শিক্ষাগত যোগ্যতা যেখানে স্বাক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন।

 

তিনি নামের আগে ডাঃ লিখলেন কি করে? তবে রফিকের গ্রামের বাড়ী বাগুনীপাড়ার নিজ ঘরে ভেজাল ঔধষ তৈরী করে বিক্রী করছে হাট-বাজারে। ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের লাইসেন্সবিহীন ঔষধ তৈরী করে অবৈধভাবে বিক্রি করছে সহজ-সরল রোগিদের কাছে।

 

তার নিজ বাড়ীতে বিশাল আকারে ভেজাল ঔষধ তৈরী করে আরেক ভূয়া কবিরাজ জামালকে দিয়ে বিভিন্ন হাট বাজারে বিক্রী করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। ওষুধ তৈরির কারখানায় গুড়-চিনি দিয়ে তৈরি হয় শক্তিবর্ধক ওষুধ।

 

আশে পাশের বাড়ীর লোকজনদের থেকে আরো জানা গেছে, ঢাকার সাভার এলাকার হেলিম ও চরহামুয়া গ্রামের জামালকে নিয়ে তৈরী ওষুধ বিক্রী করে রোগীদের সাথে প্রতারনা করেই চলছে। ভূয়া ডাঃ ও কবিরাজ রফিকুল আলম ও বাবুল চিশতি তার নিজ বাড়ীতে গুড়-চিনি দিয়ে শক্তিবর্ধক ও যৌন শক্তিবর্ধক ওষুধ তৈরির কারখানা বানিয়ে বেশ কিছু দিন ধরে নকল ওষুধ উৎপাদন করে ভ্রাম্যমান মজমা বসিয়ে বিক্রী করে আসছে। স্বাস্থ্য বিভাগের ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের ড্রাগ লাইসেন্স নেওয়ার নিয়ম থাকলেও বাবুল চিশতি ও রফিকুলের হারবাল সেন্টারের ড্রাগ লাইসেন্স নেই।

 

এমনকি জনসাধারণকে আকৃষ্ঠ করার অভিপ্রায়ে তার ভিজিটিং কার্ডে উল্লেখ করেছে বড় মাপের হাকিম ও ডাক্তার হিসেবে। বাংলাদেশ বোর্ড অব ইউনানী এন্ড আয়ুর্বেদ সিস্টেম অব মেডিসিন কর্তৃক রেজিষ্ট্রেশন প্রাপ্ত একজন বৈধ হাকিম হিসেবেই প্রচার করতে এমনটা করছে রফিকুল আলম। কিডনি, মূত্র, পিত্ত পাথরের সমস্যাসহ যাবতীয় রোগের বিশেষজ্ঞ দেখানোর চেষ্টা করছে সে। অথচ কোন নামকরা ডাক্তার অনেক অভিজ্ঞতা থাকা সত্বেও বিশেষজ্ঞ হিসেবে উল্লেখ করতে সিমাবদ্ধতা রয়েছে।

 

যা নির্দিধায় করে চলছে স্বাক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন ভুয়া কবিরাজ রফিকুল আলম ও বাবুল চিশতি। এ পর্যন্ত তার ৪টি ভিজিটিং কার্ড আমাদের হস্তগত হয়েছে। এসব ভিজিটিং কার্ডে দেয়া হয়েছে নানা রোগের বিবরণ। ডায়াবেটিস, যৌন, চর্ম, সিফিলিস, গনোরিয়া, স্বপ্নদোষ, মহিলাদের গোপন ব্যাধি, বাত, গ্যাষ্টিক, আমাশয়, পেটের ব্যথা, জন্ডিস, হাপানি, কাশি, অর্শ্ব ও গেজ, ভগন্দর গেজ রোগের চিকিৎসা করা হয় বলে চটকদার ভিজিটিং কার্ড ছেপে এর মাধ্যমে সরলমনা লোকজনের সাথে প্রতারণা করা হচ্ছে।

 

দীর্ঘদিন ধরে এ ধরণের আরও অনেক প্রতারক ভুয়া কবিরাজ প্রকাশ্যে লোকারণ্যে অভিজাত হারবাল সেন্টার খুলে জনসাধারণের সাথে প্রতারণা করলেও স্থায়ী কার্যকর উদ্যোগ নেই সংশ্লিষ্ট দপ্তরের। মাঝে-মধ্যে কিছু অভিযান পরিচালনা করা হলেও এসব প্রতারক ভুয়া কবিরাজদের দমন করা যাচ্ছেনা। যৌন বিষয়ের দুর্বলতার সুযোগে সহজ সরল সাধারন মানুষের অসচেতনায় আর দুর্বলতাকে পুজিঁ করে অপ-চিকিৎসায় লিপ্তরা তাদের হীনস্বার্থ আদায় করছে। অভিযোগে প্রকাশ, কথিত ডাক্তারদের চাহিদা মেটাতে সাধারণ মানুষ ঘর ভিটা কিংবা জমি জিরাত বিক্রী করে ওদের টাকা দিয়েও সুচিকিৎসা পাচ্ছেনা।

 

ভূয়া কবিরাজরা কিডনী, ক্যান্সার, প্যারালাইসেস ভিজিটিং কার্ড ছেপে জেলার সর্বত্র বিতরন করে চলছে। এবং ভূয়া ডিগ্রী ব্যবহার করে একশত পার্সেন্ট সুস্থ্যতার নিশ্চয়তা, যৌন রোগ, ডায়াবেটিস, ক্যান্সার, পাইলস সহ স্পর্শকাতর রোগের যেখানে গ্যারান্টি নেই, সেখানে এই সব কথিত চিকিৎসকরা গ্যারান্টি দিচ্ছে কি করে ?

 

০৩/

 

মানুষ ঠকানোই রফিকুল ও জামালের মুল ব্যবসা ও পেশা। তাদের হাতের মুঠোয় থাকে জিন-পরী! প্রলোভনমূলক নানা কথা বলে মওকা বুঝে নানা সমস্যার রক্ষাকবচ হিসেবে তারা বিক্রি করছেন রকমারী নামের হারবাল ফাইল ও ট্যাবলেট ক্যাপসুল। ভ্রাম্যমান আদালতের ভয়ে কয়েকদিন ধরে বন্ধ রেখেছে তার কথিত “শায়েস্তাগঞ্জ হারবাল সেন্টার এন্ড কবিরাজী ঔষধ ঘর”।

 

ভ্রাম্যমান আদালত ভূয়া কবিরাজ রফিকুল আলম ও বাবুল চিশতি সহ শায়েস্তাগঞ্জের কয়েকজনকে ধরতে অভিযানে গিয়ে তাদের দোকান বা চেম্বার বন্ধ পেয়েছে। তবুও ভূয়া ডাক্তার ও কবিরাজ বাবুল চিশতি ও রফিকুলের প্রতারণা থেমে নেই। ওরা এখন একটি সাদা রংঙ্গের প্রাইভেট কার নিয়ে জেলার বিভিন্ন ছোট ছোট বাজারে ভ্রাম্যমান মজমা করে সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণা করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে।

 

ভূয়া ডাঃ ও কবিরাজ রফিকুল আলম তার নিজ বাড়ীতে গুড়-চিনি দিয়ে শক্তিবর্ধক ও যৌন শক্তিবর্ধক ওষুধ তৈরির কারখানা বানিয়ে বেশ কিছু দিন ধরে নকল ওষুধ উৎপাদন করে ভ্রাম্যমান মজমা বসিয়ে বিক্রী করে আসছে। জেলার বিভিন্ন হাট-বাজারের ফুটপাত বা রাস্তার ধারে বৃত্তাকার লোকের জটলা, মাঝ থেকে মাইকে হয় রফিকুলের গলা ভেসে আসছে নতুবা জামালের।

 

নানা অঙ্গভঙ্গিতে আকর্ষণীয়ভাবে বিভিন্ন রোগের লক্ষণ এবং সর্বরোগ নিরাময়কারী ওষুধের কথা বলে যাচ্ছেন সেই ফেরিওয়ালা রফিকুল আলম। তাঁর সামনে হরেক রকমের জিনজেন ফাইল, যৌন উত্তেজক ট্যাবলেট, ফল বা কোনো প্রাণীর অঙ্গবিশেষ। লোকজনও মন্ত্রমুগ্ধের মতো তাদের কথা শুনছে।

 

এ ধরনের দৃশ্য ফুটপাত থেকে শুরু করে গ্রামগঞ্জ, হাটবাজার সর্বত্রই একটি নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার। রফিক ও জামাল এভাবে চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলে, ‘নির্দিষ্ট সময়ে আপনার রোগ ভালো করতে না পারলে পুরো ওষুধের টাকা ফেরত দিয়ে দেব, এ গ্যারান্টি দিচ্ছি।’ এ ধরনের চটকদার কথাবার্তায় বা ভিজিটিং কার্ড দিয়ে সরল মানুষকে বিভ্রান্ত করে ওষুধ কিনতে বাধ্য করায় এসব অপচিকিৎসাকারীর কোনো জুড়ি নেই। সেই ফেরিওয়ালা রফিকুল আলম ও হোটেলের মেসিয়ার জামাল নিত্যনতুন পন্থায় তাঁদের নিজ বাড়ীতে বানানো পণ্যের প্রচার চালিয়ে যান। ফুটপাতে মাইক দিয়ে নানা কথার তুবড়ি ছুটিয়ে প্রতারকদের ব্যবসা চলছে।

 

যৌন উত্তেজক ট্যাবলেট ও ফাইল বিক্রি করা হয় । প্রচারণা চালানো হয় ভিজিটিং কার্ড দিয়ে। এসব ভিজিটিং কার্ড আবার চলতি গাড়ির ভেতর ছুড়ে ফেলা হয়। এ ছাড়া পোস্টার, সাইনবোর্ড তো আছেই। এসব প্রচারণায় তাঁরা যে শুধু সুচিকিৎসার দাবি করেন তা-ই নয়, বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই ১০০ ভাগ সাফল্যের নিশ্চয়তা দেওয়া হয়। এভাবে সমাজের নিম্নবিত্ত ও নিম্নমধ্যবিত্তদের তাঁরা প্রলোভন দেখান।

 

ভেজিটিং কার্ড ছাড়াও আকর্ষণীয় ছবির মাধ্যমে প্রচারণা চালিয়ে সুশিক্ষিত মধ্যবিত্তদের, এমনকি কিছু কিছু ক্ষেত্রে উচ্চবিত্তদেরও ফাঁদে ফেলা হচ্ছে। সাদা রংগের একটি প্রাইভেট কার সামনে দাড় করিয়ে ভ্রাম্যমান মজমা (গোলাকার বিত্ত) দিয়ে বিভিন্ন শ্রেণীর গ্রাহককে বিভিন্ন পন্থায় আকর্ষণ করা হচ্ছে। কাল্পনিক রোগ আবিষ্কার করে, মানবদেহের স্বাভাবিকতাকে অসুখ হিসেবে প্রচার করে সেসবের ওষুধ বিক্রি করা হচ্ছে।

 

মূলত স্বল্প শিক্ষিত যুবক-যুবতী, যাঁরা নিজের স্বাস্থ্য নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভোগেন, তাঁদের এভাবে আকর্ষণ করা হচ্ছে। আবার যাঁরা ধর্মভীরু, তাঁদের ফাঁদে ফেলতে প্রচারণা চালানো হয় টুপি-দাড়ি পরা কাউকে দিয়ে। অন্যদিকে যাঁরা আধুনিক হিসেবে নিজেকে দেখতে পছন্দ করেন, তাঁদের জন্য একই পণ্য প্রচার হয় ভিন্ন আঙ্গিকে। দেখা যায় স্যুট-টাই পরা কেউ তথাকথিত বৈজ্ঞানিক যুক্তি দিয়ে পণ্যের গুণাগুণ বর্ণনা করছেন। মানুষের মানসিক দুর্বলতা বা অনুভূতিকেও তাঁরা চতুর পন্থায় ব্যবহার করে থাকেন।

 

ক্যানসারে বা অন্য কোনো জটিল অসুখে আক্রান্ত মৃতপ্রায় রোগীর স্বজনের অসহায়ত্বকে ব্যবহার করতে ‘জীবনের শেষ চিকিৎসা’-জাতীয় স্লোগান ব্যবহার করে থাকেন। নিঃসন্তান দম্পতিদের মানসিক যাতনাকে পুঁজি করে তাঁদের সহজেই প্রতারিত করতে সক্ষম হন। এমনকি অনেক উচ্চশিক্ষিত ব্যক্তিও এভাবে প্রতারিত হন। তবে এসব অপচিকিৎসা কেন্দ্রের প্রতারণার মূল লক্ষ্য থাকে দরিদ্র শ্রেণীর শিক্ষার আলোবিহীন মানুষজন, যাদের খুব সহজেই যেকোনো অলীক বস্তু বিশ্বাস করানো যায়।

 

এদের স্বল্প মূল্যে সুচিকিৎসার আশ্বাস দিয়ে নিয়ে আসা হয়, এরপর নানা বাহানায় টাকা নিয়ে কাল্পনিক ওষুধ দিয়ে সর্বস্বান্ত করে ছেড়ে দেওয়া হয়।

 

০৪/

 

হবিগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভাধীন পুর্ব বাগুনীপাড়া গ্রামের রফিকুল আলম কয়েক বছর যাবৎ শায়েস্তাগঞ্জে “ হারবাল এন্ড কবিরাজি ঔষধ ঘর” নামের হারবাল চিকিৎসালয় খুলে দীর্ঘদিন ধরে চিকিৎসার নামে ভয়াবহ প্রতারনা করে আসছিল। সে অল্প সময়ের মধ্যে আলাদিনের যাদুর চেরাগ পাওয়ারমত রাতারাত্রি কোটিপতি বনে যায়। যার কারণে ঐ এলাকার বেশ কিছু সন্ত্রাস, মাস্তান বশে রেখে হরহামেশা তার চিকিৎসালয়ে জিন হাজির করার নামে জগন্যতম অপকর্মে লিপ্ত থাকতো বলে একটি বিশেষ সুত্রে জানা যায়।

 

কিন্তু কথায় আছে পাপ কখনো বাপরেও ছাড়েনা। কথাটা ব্যস্তবে সত্য। কারণ কয়েকদিন যেতে না যেতেই তিনি যে দোকান ভাড়া নিয়ে মানুষ ঠকানোর ব্যবসা করতেন ঐ দোকান ভ্রাম্যমান আদালতের ভয়ে বন্ধ করে বিকল্প ব্যবসা চিন্তা করেন। এক পর্যায়ে সেই ফেরিওয়ালার বেশে ভ্রাম্যমান মজমা করে সাধারণ রোগীদের সাথে প্রতারনা করেই সে এখন কোটিপতি বনে গেছেন। ছোট বেলা থেকেই ফেরি করে সংসার চালাতেন।

 

সে সময় শায়েস্তাগঞ্জ বাজারে ফুটপাতে বসে “মশা করে গুইরা গুইরা, মাছি মরে গুইরা গুইরা” চিৎকার দিয়ে লোকজনদের আকৃষ্ট করে এক ধরনের পাউটার বিক্রী করাই তার পেশা ছিল। অথচ খোজ খবর নিয়ে জানা যায়, তার ডাক্তারী কোন সাটিফিকেটই নেই, নেই কোন অভিজ্ঞা, নেই কোন ড্রাগ লাইসেন্স এমনকি তার দোকানের ট্রেড লাইসেন্স পর্যন্ত ঠিক নেই। এই হাতুড়ে ভূয়া ডাক্তার ও ভূয়া কবিরাজ রফিকুল আলম ও জামালের এমন কোন রোগ নেই তার চিকিৎসা তারা করেন না যেমন: বিনা অপারেশনে টিউমার, ক্যান্সার, অর্শ্ব বা পাইলস্, হার্নিয়া, নাকের পলিপ এবং সাইনোসাইটিস্, মেয়েদের মাসিক, সাদাস্রাব, চর্ম ও যৌন, মেদ-ভুড়ি, বাত, এলার্জি, বন্ধ্যাত্ব, লিভার ও কিডনী রোগ, মূত্র ও পিত্ত পাথর, বাতজ্বর, ব্রন, মেছতা, চুলপড়া বন্ধ ও নতুন চুল গজানো এবং সকল প্রকার রোগের চিকিৎসা প্রদান করেন তিনি।

 

এখন বিজ্ঞ ডাক্তার ভাই-বোনদের প্রতি আমাদের প্রশ্ন: এই অখ্যাত ডাক্তার যদি এত রোগের বিখ্যাত চিকিৎসক হয় তবে রোগীর অবস্থা হবে কি? উত্তর: ডাল না খিচরি। কোনটি বলুন! শুধু তাই নয় তিনি নিরীহ মানুষদেরকে যেভাবে ধোকা দিয়ে যাচ্ছে তা অবাক হবারমত। হবিগঞ্জে বিভিন্ন হাট-বাজারে যৌন উত্তেজক ট্যাবলেট ও ফাইল বিক্রী করে চিকিৎসার নামে প্রতারণা করছে রফিকুল আলম। নেই ঔষুধের লেভেল ও ট্রেড লাইসেন্স। ভূয়া কবিরাজ ডাক্তার নাম দিয়ে এসব অপ চিকিৎসকরা পাইল্স, অর্শ্ব, এজমা, ক্যান্সার, আলসার, গ্যাস্টিক, যৌনরোগ সহ যাবতীয় রোগের চিকিৎসার কথা বলে সাধরণ মানুষকে প্রতিনিয়ত ঠকাচ্ছে।

 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে ,শায়েস্তাগঞ্জ একাধিক লতাপাতার হারবাল চিকিৎসা কেন্দ্র রয়েছে। এসব কেন্দ্রের চিকিৎসকরা ডাক্তার বেশে এ প্রতারণা করে যাচ্ছে। জানা যায়, ভূয়া কবিরাজ রফিকুল আলম কোন প্রকার কবিরাজি সনদপত্র ছাড়াই বিভিন্ন প্রকার গাছগাছড়া দিয়ে যৌন রোগের সালশা নামে এক প্রকার ওষুধ তৈরি করে বিভিন্ন গ্রামের হাট-বাজারে বিক্রী করে সাধারণ মানুষরে সঙ্গে প্রতারণা করে আসছে সেই ফেরিওয়ালা রফিকুল আলম ও বাবুল চিশতি। এসব কেন্দ্রে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের মধ্যে মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্তের সংখ্যাই বেশি। এদের মধ্যে যৌন চিকিৎসার জন্য বিবাহিত নারী পুরুষের সংখ্যাই বেশি এমনতর দাবী এই দুই কবিরাজের।

 

ভূয়া কবিরাজরা জানান, যৌন কাজে অক্ষমতাসহ বিভিন্ন রোগের সমাধানে অনেকেই গোপনে চিকিৎসা নিতে আসেন। শায়েস্তাগঞ্জ হারবাল এন্ড কবিরাজি ওষুধ ঘরে চিকিৎসা নিতে আসা জনৈক যুবক নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, যৌন সমস্যার জন্য তিনি এসব ফেরিওয়ালা রফিকুল আলম ও হোটেলের মেছিয়ার জামালের মত ভূঁইফোড় হারবাল চিকিৎসকদের কাছ থেকে ঔষুধ খেয়ে তিনি কোন উপকার পাননি। মাত্র এক সপ্তাহের কথা বলে তার কাছ থেকে ৫ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে দাবী করেন।

 

গ্যাষ্টিকের রোগি আঃ রহিমের অভিযোগ ৪ হাজার টাকার ঔষুধ খেয়েছেন স্থায়ী সমাধানের জন্য তবে কোন ফল হয়নি। অন্যদিকে চিকন স্বাস্থ্য মোটা হওয়ার সব রকম চিকিৎসা ও মিলে এসব কবিরাজি চিকিৎসালয়ে। একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে শায়েস্তাগঞ্জ হারবাল ও কবিরাজি ঔষুধালয়ে যৌনরোগ ও স্তনের চিকিৎসা করা হয়। জেলা সিভিল সার্জন জানান, এসব হারবাল চিকিৎসা কেন্দ্রে ক্যান্সার রোগের সমাধান হলে মানুষ লাখ লাখ টাকা খরচ করে বিদেশে চিকিৎসা নিতে যাবে কোন দু:খে?

 

জেলার বিভিন্ন স্থানে নামে বেনামে গড়ে উঠেছে একাধিক কবিরাজের চেম্বার। আমরা ভ্রাম্যমান আদালতের সহযোগিতা নিয়ে অভিযান পরিচালনা করছি। সকল ভূয়া ডাক্তার ও কবিরাজদের বিরুদ্ধে অভিযান চলবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!