রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০২:২৬ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

চুনারুঘাটে লেপ-তোশক তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২২

সৌরভ শীল:

শীতের আগমণ হলেই ভীষণ ব্যস্ত হয়ে পড়েন লেপ – তোশক তৈরির কারিগররা। বছরের অন্যান্য সময় তারা ব্যস্ত থাকেন বালিশ বানানোর কাজে। এবার হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলায় আগাম শীত আসায় ধুম পড়েছে লেপ – তোশক তৈরির দোকানগুলোতে।

উপজেলার গাজীগঞ্জ বাজারের সিরাজুল ইসলাম বলেন, আমি প্রায় ২৫ বছর যাবত লেপ – তোশক তৈরির কাজ করছি। আমি নিজ হাতে এসব তৈরি করি । বড় মাপের লেপের কাপড়, তুলা, সুতাসহ তৈরি খরচবাবদ গ্রাহকদের কাছ থেকে ১ হাজার ৮০০ টাকা থেকে ২ হাজার ২০০ টাকা পর্যন্ত পাই। ছোট লেপ ১ হাজার ৩০০ টাকা থেকে ১ হাজার ৮০০ টাকা পর্যন্ত পাই। জাজিমের দাম পাই ২ হাজার ৫০০ টাকা থেকে ৩ হাজার ২০০ টাকা।

উপজেলা সদরের বাজারের কারিগর আরজু মিয়া বলেন, প্রতিদিন কিছু না কিছু অর্ডার পাচ্ছি। আশা করছি সামনের দিনগুলোতে আরো অর্ডার পাবো। তবে তুলার দাম আগের তুলনায় অনেক বেশি। তুলার মান ও পরিমাণের ওপর নির্ভর করে লেপ – তোশক তৈরির খরচ। তিনি আরো বলেন, এ বছর জিনিসপত্রের দাম বাড়ায় লেপ – তোশক তৈরিতে খরচ ২০০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে।

আর একটি লেপ – তোশক বিক্রি করে লাভ হয় ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা। শীতের দুই থেকে তিনমাস আমাদের সিজিন। এই সময়ে লেপ তোশক বিক্রিও যেমন বাড়ে তেমনি কারিগররা ব্যস্ত সময় পার করেন। তবে বর্তমানে চায়না কম্বল অল্প দামে পাওয়া গেলেও লেপ-তোশকের ব্যবসায় কোনো প্রভাব পড়ছে না বলেও জানান তিনি। বাজারের ব্যবসায়ী এমরান মিয়া বলেন, একজন কারিগর প্রতিদিন ৩-৪টি করে লেপ বানাতে পারে যাদের প্রতিদিন ৪০০- ৭০০ টাকার মতো হাজিরা দিতে হয়।

প্রতিটি লেপ আকার ভেদে এক হাজার থেকে দেড় হাজার টাকা, তোশক ১২০০ থেকে ১৫০০ টাকা এবং জাজিম ৩ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত খুচরা বিক্রি করা যায়।

প্রতিটিতে পারিশ্রমিক আসে ২০০ থেকে ৩০০ টাকা। তবে গত বছরের তুলনায় এ বছর তৈরি লেপ – তোশকের চাহিদা তুলনামূলক বেশি দেখা যাচ্ছে ক্রেতাদের। লেপ কিনতে আসা আমীর হোসেন বলেন, আগে আমরা অনেক কম দামে লেপ কিনতাম । কিন্তু এবার দাম অনেক বেশি। আগে একটি বড় মাপের লেপ তৈরি করেছিলাম ১ হাজার টাকায়।

লেপ তোশকের ত্রেতা মোঃ মোজাম্মেল হক বলেন, শীত চলে এসেছে। বিশেষ করে গ্রামের মানুষদের শীত নিবারণের জন্য লেপ- তোশকের দরকার হয়। গত বছরের তুলনায় এবার দাম বেশি চাচ্ছে। আগে যেটি বানিয়েছিলাম সেটি নষ্ট হয়ে গেছে। তাই নতুন করে তোশক বানানোর জন্য অর্ডার দিতে এসেছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!