JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
logo shaistaganj
,
sanvi stor
সংবাদ শিরোনাম :
«» চুনারুঘাট কুখ্যাত ডাকাত কাজল মিয়া গ্রেফতার «» সোনালীকা ট্রাক্টরের ফ্রি সার্ভিস ক্যাম্পিং ও বিনামূল্যে স্বাস্থ্য সেবা প্রদান «» মাধবপুরে গরীব ও মেধাবী ছাত্রীদের স্কুল ব্যাগ বিতরণ «» বানিয়াচংয়ে বিষপানে যুবকের মৃত্যু «» মেসির হ্যাটট্রিকে বার্সার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শুরু «» বাহুবেল ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার «» লাখাই কৃষ্ণপুর গ্রামবাসীর উদ্যোগে গণহত্যা দিবস পালন «» শায়েস্তাগঞ্জে কলেজ ছাত্রীর স্বর্ণের চেইন ছিনতাইকালে ৪ মহিলা আটক «» প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে জাতিসংঘের অধিবেশনে যোগ দিতে নিউইয়র্কে গেছেন মোতাচ্ছিরুল ইসলাম «» বানিয়াচঙ্গে কাদির হত্যা মামলার দুই আসামীকে আটক করেছে পিবিআই

বাহুবলে উচ্ছাসে উৎসবে বরণ করা হলো বাংলা নতুন বছর ১৪২৫

Post (8)

মনিরুল ইসলাম শামিম, বাহুবল থেকে ॥ বাহুবলে বাংলা নববর্ষ-১৪২৫ কে বরণ করতে বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রার মাধ্যমে বর্ষবরণ উদযাপিত হয়েছে।

শনিবার (১৪ এপ্রিল) সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদ চত্ত্বর থেকে বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রাটি শুরু হয়ে শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

বাহুবল উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত আনন্দ শোভাযাত্রায় নানা ধরণের প্রতীকি শিল্পকর্ম বহন করা হয়। প্রত্যেকের হাতে মাথায় বাঙালি সংস্কৃতির পরিচয়বাহী বিভিন্ন উপকরণ, রঙ-বেরঙের নানা প্রাণীর প্রতিকৃতি শোভা পায়। বাঙালি সংস্কৃতির পরিচয়বাহী ঘোড়া, হাতি, পালকি ও বিশাল মাছ প্রতিকৃতি ছিল চোখে পড়ার মত। শোভাযাত্রায় বাহুবল কলেজ, দীননাথ ইনস্টিটিউশন সাতকাপন মডেল হাই স্কুল, ছদরুল হোসেন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, কিশলয় জুনিয়র হাই স্কুল, সৃজন বিদ্যাপীঠ, বাহুবল আনন্দ নিকেতন, গ্রীণ প্রার্ক স্কুল এন্ড কলেজ, বাহুবল আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষকমণ্ডলী, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এবং সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। তাছাড়া উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। দিনব্যাপি আয়োজনের মধ্যে ছিল বৈশাখী মেলা ও পান্তা উৎসব, গ্রাম বাংলার চিরাচরিত খেলা তৈলাক্ত গাছ বেয়ে উপরে উঠা, বালিশ খেলা ও ভলিবল খেলা। দিনব্যাপী আয়োজিত খেলাধুলায় উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল হাই ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ জসীম উদ্দিনসহ জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, পুলিশ, সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারী, রাজনীতিবিদ ও সুশিল সমাজ অংশগ্রহণ করেন।

এদিকে একই দিনে উপজেলার মিরপুর আলিফ সোবহান চৌধুরী কলেজে বর্ষবরণ উপলক্ষে বর্ণাঢ্য আনন্দ শুভাযাত্রা ও পিঠা উৎসবের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হবিগঞ্জ-সিলেট সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য এডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী। এছাড়াও উপজেলা প্রশাসন দ্বারা পরিচালিত কিশলয় জুনিয়র হাই স্কুলেও দিনব্যাপী বিভিন্ন আয়োজনের মাধ্যমে বর্ষবরণ পালন করা হয়। উপজেলার লামাতাশি ইউনিয়নে অবস্থিত ঐতিহ্যবাহী খইরুন্নেছা লতিফ প্রি-ক্যাডেট এন্ড হাই স্কুলে বর্ণাঢ্য আনন্দ শুভাযাত্রা, পান্তা-ইলিশ ভোজন, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, নাটক, পুরস্কার বিতরণ ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

আলোচনা সভায় বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ সালমা আক্তারের সভাপতিত্বে ও সহকারি শিক্ষক আসাদুজ্জামান জুয়েলের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন বাহুবল উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক অলিউর রহমান অলি, যুগ্ম আহ্বায়ক মোশাহিদ আলী, বাহুবল মডেল প্রেস ক্লাবের সভাপতি মোঃ নূরুল ইসলাম নূর, সহ-সভাপতি ও বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা সাইফুর রহমান জুয়েল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম এ মজিদ, অর্থ ও দপ্তর সম্পাদক মনিরুল ইসলাম শামিম, বিসি নিম্ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল জব্বার, উপজেলা মুক্তিযোদ্বা সন্তান কমান্ডের যুগ্ম আহ্বায়ক মোঃ শামীনুর রহমান, উপজেলা আওয়ামীলীগের নির্বাহী সদস্য আয়াজ আলী, যুবলীগ নেতা মুফাজ্জল আহসান, ইমরুল কবীর, আবিদ আলী, ফেরদৌস আলম হৃদয়, শান্ত প্রমুখ
এছাড়াও উপজেলার বাহুবল কলেজ, দীননাথ ইনস্টিটিউশন সাতকাপন মডেল হাই স্কুল, ছদরুল হোসেন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, পুটিজুরী এসসি উচ্চ বিদ্যালয়, ফতেহপুর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়, ফয়জাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়, ফয়জুন্নেছা উচ্চ বিদ্যালয়, মিরপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ, শাহজালাল উচ্চ বিদ্যালয়, আদর্শ বিদ্যানিকেতন ভুটকোর্ট, মানবকল্যাণ উচ্চ বিদ্যালয়ে অনুরুপ অনুষ্ঠানমালার মধ্যে দিয়ে বাংলা বর্ষবরণ পালন করা হয়।

বিশ্বজুড়ে বাস করছে নানা ধরনের জাতি গোষ্ঠীর মানুষ। প্রতিটি জাতিরই নিজস্ব সংস্কৃতিক ধারায় রয়েছে কিছু পার্বণ ও উৎসব। পৃথিবীর নানা অঞ্চলের প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্য ও জলবায়ুর ওপর নির্ভর করে এ ধরনের সাংস্কৃতিক পার্বণের তারিখ নির্ধারিত হয়েছে।

সভ্যতা বিকাশের প্রারম্ভিকতার দিকে দৃষ্টি দিলে দেখা যায়, তখনকার মানুষের জীবন জীবিকাটা ছিল সম্পূর্ণ কৃষিনির্ভর। প্রাচীনকালে এ ধরনের উৎসব পার্বণগুলো শস্য উৎপাদনের সময়ের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে দিনক্ষণ নির্ধারণ করে পালন করা হতো। সেই পার্বণ বা উৎসবগুলো ধারাবাহিকভাবে এখনও পালিত হয়ে আসছে। পৃথিবীর প্রতিটির অঞ্চলের জাতি-গোষ্ঠীর মানুষ এ ধরনের পার্বণগুলোকে তাদের ঐতিহ্য হিসেবে লালন করে আসছে অনাদিকাল থেকে। তাই বংশপরম্পরায় এ পার্বণগুলো আনন্দমুখর পরিবেশে পালিত হয়ে থাকে।

পৃথিবীতে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান শুরু হয়েছিল আজ থেকে চার হাজার বছর আগে। বাংলা বর্ষবরণ কবে কখন কিভাবে পালিত হতে শুরু হয়েছিল তা নিয়ে নানা মতভেদ থাকলেও বাংলা বর্ষবরণ অনুষ্ঠান বাঙালি জাতির একটি ঐতিহ্যবাহী পার্বণ। বাঙালির বর্ষবরণের সঙ্গে বাঙালি জাতির আদি সংস্কৃতিটি ওতপ্রোতভাবে জড়িত।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *