বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:২৩ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে শায়েস্তাগঞ্জে আখের গুড়

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: সোমবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪

মোহাম্মদ আলী সরকার,শায়েস্তাগঞ্জ :

কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে শায়েস্তাগঞ্জে আখের গুড়( লালি গুড়)।এক সময় আখের গুড়ের সুনাম ছিল দেশের সর্বত্র। কিন্তু বর্তমানে সেই সুনাম আর নেই।

শায়েস্তাগঞ্জের খোয়াই নদীর চরে উৎপাদিত বিশেষ ধরনের আখের রস থেকে ক্রমাগত আগুনে জ্বাল দেওয়ার পর ধীরে ধীরে তৈরি হয় আখের এ আঠালো গুড়। দিনকে দিন আখের চাষ হ্রাস পাওয়া ও খাদ্য তালিকা থেকে গুড়ের চাহিদা কমে যাওয়ায় এখন শায়েস্তাগঞ্জের সর্বত্র আখের গুড় তৈরির চাহিদা কমে গেছে।

এর ফলে এই পেশার সঙ্গে জড়িত শত শত ব্যক্তি এখন বেকার হয়ে পড়েছেন। কেউ কেউ ভিন্ন পেশায় চলে গেছেন। তবে এর মধ্যে নদীর নব্যতা ও বালু খেকোদের দায়ী করেছেন নদীর চরের আখ চাষীরা। শায়েস্তাগঞ্জের পার্শ্ববর্তী দক্ষিণ চরহামুয়া এলাকার আখ চাষী সবুজ মিয়া বলেন, আগে নদীর গভীরতা বেশি ছিল না। যে কারণে নদীর চরে জোয়ারের পানি আসতোএবং এর সাথে আশা উর্বর পলি মাটিতে ভালো আখের ফলন হতো।এখন নদী গর্ভ থেকে মাত্রাতিরিক্ত বালু ও মাটি উত্তোলনের ফলে চরের ফসলি জমি নদীর বুকে ভেঙ্গে পড়ছে। নদী গর্ব অতিরিক্ত খননের ফলে জোয়ারের পানি আর উপরে আসে না। এতে ফসল ও ভালো হয় না, খোঁজ নিয়ে জানা গেছে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার পার্শ্ববর্তী লস্করপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ চরহামুয়া, হামুয়া, করিমপুর, রাজার বাজার,খেতামারা ও মুখিপুর গ্রামে কয়েকটি অংশে তৈরি করা হয় মুখরোচক এই লালি গুড়। শীতকালে চালের গুড়া দিয়ে তৈরি যেকোন পিঠার সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়া হয় এই লালি গুড়।

অন্যদিকে আখের রস দিয়ে তৈরি হয় উন্নত পায়েস। যার বর্তমান চাহিদা ও ব্যাপক। গত মঙ্গলবার ভোর সকাল উপজেলার পার্শবর্তী কুটিরগাও এলাকায় হোয়াই নদীর চর এলাকায় সরেজমিনে গেলে চোখে পড়ে আখের রস থেকে তৈরি গুড় ও (লালি গুড়) দেশীয় পদ্ধতি। দেখা যায় নদীর চরে খালি জায়গায় লোহার ঘানি বসিয়ে তৈরি করা হচ্ছে আখের রস। উৎপাদন করার প্রক্রিয়ায় ঘানি টানতে ব্যবহার করা হচ্ছে মহিষ তবে অনেকাংশে আবার লেগেছে আধুনিকতার ছোঁয়া।

মহিষের পরিবর্তে ব্যবহৃত হচ্ছে ডিজেল চালিত ইঞ্জিন। প্রথমে উৎপাদিত আখ সংগ্রহ করে তা থেকে বিশেষ প্রক্রিয়ায় রস বের করে তা একটি পাত্রে ছেঁকে নেওয়া হয়। পরে তা চুল্লিতে বসে আগুন দিয়ে জাল দেওয়ার পরে আস্তে আস্তে রসের রঙ লালছে হয় এবং রসে টানটান ভাব দেখা যায়। এরপর উত্তপ্ত রস শীতল করার মাধ্যমে গুড় পাওয়া যায়। এই রস কে গুড় না বানিয়ে চিনিও বানানো যায়।তবে চিনির চেয়ে গুড় মিষ্টি কম হলেও পুষ্টিগুণে এগিয়ে থাকে।

এ ব্যাপারে আলাপকালে শায়েস্তাগঞ্জের আখচাষী কৃষক সমসু মিয়া বলেন, এখন আগের মত অহরহ নদীর চরে আখ চাষ হয় না। যে পরিমাণে হয় তা দিয়ে আয় ব‍্যায় হিসেব করলে বেশি একটা লাভ পাওয়া যায় না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!