বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:১৭ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

স্থান পরিবর্তন করে আবারও চলছে ‘বগুড়ার দই’ নামে প্রতারণা

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: সোমবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪

মুহিন শিপনঃ

হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার দুর্গাপুরে আবারও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে তৈরি করা হচ্ছে দই। এসব দই বগুড়ায় উৎপাদিত খাটি ‘বগুড়ার দই’ নামে প্রতারণা করে বিক্রি করা হয় হবিগঞ্জসহ আশপাশের জেলা সমুহে। এ বিষয়ে আদালতের স্বপ্রনোদিত মামলায় জেল খেটেও সংশোধন হয়নি প্রতারক সাইফুল। দৈনিক ১ হাজার কেজি দই অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে তৈরি করে বাজারজাত করছে সে। মামলা চলমান থাকলেও কিছুতেই থামছে না ‘বগুড়ার দই’ নামে প্রতারণা।

জানা যায়, গত বছরের ২২ আগস্ট একাধিক পত্রিকায় “শায়েস্তাগঞ্জে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে তৈরি হচ্ছে বগুড়ার দই” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হলে আদালতের দৃষ্টি গোচর হয়। এ বিষয়ে তদন্ত করার জন্য নিরাপদ খাদ্য পরিদর্শককে স্বপ্রণোদিত হয়ে আদেশ দেন হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাকির হোসেন।

পরবর্তীতে জেলা নিরাপদ খাদ্য কর্মকর্তা তদন্ত করে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে দই তৈরি এবং বগুড়ার দই নামে প্রতারণা করে বাজারজাত করার সত্যতা পেয়েছেন মর্মে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন। আদালত প্রতিবেদনটি আমলে নিয়ে দই প্রস্তুতকারক এবং বাজারজাতকারী বগুড়া জেলার সোনাতালা থানার মনারপটল গ্রামের কদ্দুস মোল্লার ছেলে সাইফুল ইসলামকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন। কারাগার থেকে জামিনে বের হয়ে স্থান পরিবর্তন করে আবারো পুরনো কায়দায় কোনো প্রকার নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করেই অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে দই তৈরি করে বাজারজাত করছে সে।

অনুসন্ধানে জানা যায়,প্রশাসনের নজর এড়াতে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা থেকে চুনারুঘাট উপজেলার দুর্গাপুর এলাকায় জনৈক সাইদুল মিয়ার বাড়ি ভাড়া নিয়ে দই প্রস্তুত ও বাজারজাত করে আসছে সে। চুনারুঘাটে তৈরি হলেও এসব দই বগুড়ার বলে প্রতারণা করে বিক্রি করেন তার প্রতিনিধিরা। এছাড়াও ১ কেজি ওজনের দইয়ে শুধু পাত্রের ওজনই থাকে ৫০০-৬০০ গ্রাম। ফলে ঠকছেন ক্রেতারা। বিভিন্নধরনের ক্ষতিকর রাসায়নিক ও রঙ ব্যবহার করায় ভোক্তারা পেটের পীড়াসহ নানান সমস্যায় পড়ছেন। তার নিজস্ব লোক দিয়ে এসব দই হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার, সিলেট ও সুনামগঞ্জের বিভিন্ন বাস স্টপেজ, রেলওয়ে স্টেশন সহ বিভিন্ন বাজারে ফেরি করে বিক্রি করা হয়।
এ বিষয়ে দই প্রস্তুতকারক সাইফুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ভেজাল দই উৎপাদনের সংবাদ পত্রিকায় প্রকাশের পর আমার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। আদালতের নির্দেশে আমি ২০-২৫ দিন জেলে ছিলাম। এতে আমার প্রায় দেড় লক্ষ টাকা খরচ হয়েছে। এখন হবিগঞ্জের খাদ্য উৎপাদনকারী কর্মকর্তা সাকিব হোসাইন কাগজপত্র ঠিক করে অনুমতি দিয়েছেন তাই আমি আবারও দই উৎপাদন করছি।

খাদ্য কর্মকর্তা সাকিব হোসাইন বলেন, আমি দই উৎপাদনের অনুমতি দেয়ার এখতিয়ারই রাখি না। আমি কিভাবে অনুমতি দিব। এ বিষয়ে তার সাথে আমার কোন কথা হয়নি। কোথাও যদি কেউ খাদ্য উৎপাদন করলে এগুলোতে ভেজাল আছে কিনা যাচাই করে সঠিকভাবে উৎপাদন করার পরামর্শ দিতে পারি। এছাড়া ওই লোকের সাথে আমার কোন ধরনের কথা হয়নি। তার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা আছে আইন অনুযায়ী আদালত তার বিরুদ্ধে বিজ্ঞ আদালত ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

আপনার নাম কেন বলল আপনি নাকি তাকে কাগজপত্র ঠিক করে দিয়েছেন এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এই জন্য তার বিরুদ্ধে আমি আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!