রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ০৪:৫৭ অপরাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

শায়েস্তাগঞ্জে তরমুজের দাম কমলেও কিনছেন না ক্রেতারা

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ১০ এপ্রিল, ২০২৪

সৈয়দ হাবিবুর রহমান ডিউক :

হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জে তরমুজের দাম হাতের নাগালে থাকলে ও বেচাকেনা তেমন নেই বললেই চলে, ফলে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা লোকসানে রয়েছেন।

জানা যায়, মৌসুমের শুরুতে তরমুজের দাম আকাশ ছোয়া দাম থাকায় বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তরমুজ কেনা বয়কট করা হয়েছিল। এর কিছুদিন পর তরমুজের দাম প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছিল।

সরেজমিনে বুধবার( ১০ এপ্রিল) শায়েস্তাগঞ্জের কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা যায় তরমুজের বেচাকেনা এর কারণ হিসেবে ব্যবসায়ীরা জানান, এবার রমজানে তুলনামূলক গরম কম থাকায় বেচাকেনা কম হয়েছে, আর মৌসুমের শুরুতে দাম বেশি থাকায় মানুষ তরমুজ কিনেননি।

উপজেলার ব্যস্তনগরী অলিপুরের ফল ব্যবসায়ী ফরিদ মিয়ার সাথে কথা বললে তিনি জানান, শায়েস্তাগঞ্জে তরমুজ পিস হিসেবেই বিক্রি হচ্ছে, বর্তমানে বড় সাইজের তরমুজ আনুমানিক ৫-৬ কেজি ওজনের হবে তার দাম রয়েছে ৩৫০-৪০০ টাকা, আর মাঝারি সাইজের তরমুজ প্রতি পিস বিক্রি হচ্ছে ২৫০-৩০০ টাকা, আর ছোট সাইজেরগুলো বিক্রি হচ্ছে ১৮০-২৪০ টাকা। ফরিদ মিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে তরমুজ পাইকারি দরে কিনে এনে অলিপুরে বিক্রি করছেন।

ফরিদ মিয়া বলেন, ১০০ তরমুজ কিনে আনতে ভাড়া গুনতে হয় তার ২০০০ টাকা, প্রতি পিস বিক্রি হলে লাভ হয় ২০-৩০ টাকা। ফরিদ মিয়া ৬-৭ দিন আগে ৩০০ তরমুজ পাইকারি দরে ক্রয় করেছিলেন এখনো ১৫০টি তরমুজ অবিক্রিত অবস্থায় রয়েছে তিনি চিন্তায় আছেন ১-২ দিনের ভেতরে বিক্রি করতে না পারলে নস্ট হয়ে যাবে।

তরমুজের বাজার দর নিয়ে কথা হয় অলিপুর বাজারের মায়ের দোয়া ফল ভান্ডারের স্বত্তাধিকারী শাহজান মিয়ার সাথে তিনি জানান, বর্তমানে তরমুজের বেচাকেনা কম, তিনি প্রতিদিন মাত্র ২০-২৫ টি তরমুজ বিক্রি করতে পারছেন, এতে করে লাভ বাদ দিয়ে মুল চালান বের হবে কিনা সেই চিন্তায় আছেন। বিগত ৪-৫ রমজানে সময়মত বিক্রি না করতে পারায় শাহজান মিয়ার একসাথে ৯০০০ টাকার তরমুজ নস্ট হয়েছে। এখনো তিনি ঘুরে দাড়াতে পারেননি।
তিনি আরো জানান, বর্তমানে ছোট বড় আর মাঝারি মিলে গড়ে ২৬০ টাকা দরে ২০০ তরমুজ কিনে এনেছেন, এইগুলো সময়মতে বিক্রি করতে পারবেন কিনা সেটা নিয়ে উনার মাথায় চিন্তার ভাজ পড়েছে।

সুতাং শাহজীবাজারের ব্যবসায়ী ফজলু মিয়া জানান, তরমুজ ব্যবসার অবস্থা ভাল না, আমি কম কম করে শায়েস্তাগঞ্জ থেকে তরমুজ কিনে আনি, এবার ভরা মৌসুমে চৈত্রের গরমে বেচাকেনা কম, তাই আমি কেটে অর্ধেক করে ও বিক্রি করে আসছি।

অবশ্য বাজারে তরমুজ কিনতে আসা ডরমন্ডল থেকে আগত তাউজ মিয়া জানান, তিনি নিয়মিতই তরমুজ কিনে ইফতার করে আসছেন, একটি বড় সাইজের তরমুজ তিনি ৩০০ টাকায় ক্রয় করেছেন।
বাজারে তরমুজ কিনতে আসা সৈয়দা দিনা ইসলাম জানান, এবার তরমুজ মিস্টি কম তাই, তিনি তরমুজ কিনে ভেতরে চিনি দিয়ে ফ্রিজে রেখে দেন, পরে তরমুজ অনেক মিস্টি হয়ে যায়। দিনা ইসলাম অলিপুর বাজার থেকে মাঝারি সাইজের একটি তরমুজ ২৫০ টাকা দিয়ে কিনেছেন।

শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার তরমুজ ব্যবসায়ীদের প্রত্যাশা গরম আরও বাড়বে এবং মানুষ প্রচুর তরমুজ কিনে তৃষ্ণা নিবারন করবে, ব্যবসায়ীরা ও ঘুরে দাঁড়াবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!