রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০২:০৭ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

টুং টাং শব্দে দিন-রাত ব্যস্ত সময় পার করছে নবীগঞ্জের কামার শিল্পীরা

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন, ২০২৪

আলী জাবেদ মান্না ,নবীগঞ্জ প্রতিনিধি :

আসন্ন ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে ব্যস্ত সময় পার করছেন নবীগঞ্জের কামাররা। রাত-দিন হাট বাজার আর গলি মুখে তাদের হাতুড়ি-হেমারের টুং টাং শব্দে জানান দিচ্ছে ক’দিন পরেই ঈদ। আর সেই ঈদকে ঘিরে আশার আলো দেখছে কামার শিল্প। নাওয়া-খাওয়া ভুলে অবিরাম কাজ করে যাচ্ছেন কামাররা। তৈরি করছেন ছুরি, চাকু, চাপাতি, দা, বটি।
আগামী ১৭ জুন (সোমবার) পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে । যতই দিন ঘনিয়ে আসছে ততই বাড়ছে কামারদের ব্যস্ততা।
সরেজমিনে দেখা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজার ও কামার পল্লীতে ব্যস্ত কামাররা। আধুনিক প্রযুক্তিতে তৈরি লোহা, স্টিলের যন্ত্রপাতির সামনে এমনিতেই নাজুক এই শিল্প সংশ্লিষ্টরা। সারা বছর কাজের চাপ না থাকলেও ঈদুল আজহার আগে কাজের চাপ বাড়ে। তাই কোরবানির মৌসুমেই তাদের সবচেয়ে বেশি কাজ হয়। তবে কয়লার দাম বেশি হওয়ায় অন্য বারের চেয়ে এবার ছুরি, দা, বোটির দাম কিছুটা বেশি বলে জানান কামাররা।

আধুনিক প্রযুক্তির ছোঁয়ায় কামার শিল্প বিলুপ্তপ্রায়। সময়ের সঙ্গে তাল মেলাতে পারছেন না এ শিল্পের সঙ্গে জড়িতরা। উল্টো প্রযুক্তির দাপটে ক্রমেই মার খাচ্ছে এ শিল্প। তবু কামাররা বলছেন, বাপ-দাদার পেশা তাই এখনো ধরে রেখেছি।

এদিকে, কোরবানির পশুর পাশাপাশি প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম কিনতে বা পুরাতন সরঞ্জামে শান দিতে ভুলছেন না মুসল্লিরা। এ জন্য ভিড় জমাচ্ছেন কামার পল্লীতে। অনেকে পছন্দ করে কিনছেন ছুরি, বটি দা, চাপাতি, হাঁসুয়া। সঙ্গে মাংস কাটার জন্য কাঠের গুঁড়িও কিনছেন অনেকে।

উপজেলার কামার পল্লীর বিভিন্ন দোকান ঘুরে জানা গেছে, কোরবানি ঈদ উপলক্ষে এ বছর ছোট ছুরি ১০০ থেকে ৩০০ টাকা, দা ৪০০ থেকে ৬০০টাকা, চাপাতি ৫৫০ থেকে ৭৫০ টাকা, বড় ছুরি ৯০০ থেকে ১৫০০ টাকায় বিক্রি করছেন কারিগররা। এছাড়াও পুরনো সব যন্ত্রপাতি শান দিতে গুণতে হচ্ছে ১০০ থেকে ২৫০ টাকা পর্যন্ত।এদিকে ক্রেতাদের দাবি, এ বছর পশু কোরবানির উপকরণের দাম তুলনামূলক বেশি। আর কামারদের দাবি, ও লোহার দাম বেড়ে যাওয়ায় সরঞ্জামাদির দাম কিছুটা বাড়ানো হয়েছে।

নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের ইছবপুর গ্রামের বিধান দেব কামার বলেন, চাপ বেশি থাকায় রাতদিন কাজ করতে হচ্ছে। নতুন সরঞ্জামের চাহিদার পাশাপাশি পুরাতনগুলোতে শান দেওয়া হচ্ছে। তবে এ বছর বেশিরভাগ ক্রেতা পুরাতন সরঞ্জাম মেরামত করতে নিয়ে আসছেন। বিক্রি একটু কম হচ্ছে।

উপজেলার ইনাতগঞ্জ বাজারের শ্রীচরণ দেব বলেন, ৩০ বছর ধরে এই পেশায় যুক্ত আছি। আমার পূর্বপুরুষরাও এই কাজ করতেন। এখন সারা বছর তেমন কোনো কাজ থাকে না। তবে কোরবানির ঈদের আগে কাজের চাপ থাকে। খুব বেশি বিক্রি হচ্ছে না, ঈদের এক-দুই দিন আগে বিক্রি বাড়বে। কয়লা ও লোহার দাম বেড়ে গেছে, কয়লা কিনে আনতে অতিরিক্ত দাম দিতে হচ্ছে।

সাজিদ নামে এক ক্রেতা বলেন, ঈদের আর কয়েকদিন বাকি। তাই আগে থেকেই পশু জবাইয়ের সরঞ্জামের নতুন ছুরি কিনে রাখছি।ইনাতগঞ্জ বাজারের আরেক ক্রেতা আবু তালেব বলেন, পশু জবাইয়ের সরঞ্জাম কেনার পাশাপাশি পুরাতনগুলোতে শান দিতে নিয়ে এসেছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!