বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০২:৩৭ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

হবিগঞ্জ থেকে হারিয়েছে বছরে সোয়া ৩শ কোটি টাকার মাছ ॥ সংকট নিঃরসনে হাওরে মৎস্য অভয়াশ্রম জরুরী

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: সোমবার, ৩১ আগস্ট, ২০১৫

1478মোঃ রহমত আলী ॥ কীটনাশক ব্যবহার, মা ও পোণা মাছ নিধন, জলাশয় ভরাট, কৃত্রিম প্রযুক্তি ব্যবহারর ও অভয়াশ্রম না থাকার ফলে বছরে প্রায় সোয়া ৩শ কোটি টাকার দেশী মাছ কমে গেছে হবিগঞ্জের মুক্ত জলাশয় থেকে।

তাছাড়া নিরবে হারিয়ে যাচ্ছে আমাদের চেনা জানা দেশী প্রজাতির অনেক মাছ । ফলে প্রাকৃতিক ভাবে উৎপাদিত আমিষের ঘাটতি দিন দিন বেড়েই চলছে । মৎস্য বিভাগ সূত্র জানায়ন এক যুগ আগেও জেলার মুক্ত জলায়শয় থেকে বছরে ৮৫ থেকে ৯০ হাজার মেট্রিক টন মাছ হাওর অঞ্চল থেকে জেলেরা আহরণ করে তারা বাজারে বিক্রি করতেন। এ সব মাছ বর্তমান পাইকারী বাজার মূল্যে ১শ টাকা কেজি হিসাবে সাড়ে ৮শ থেকে ৯শ কুটি টাকা।

ভূ-প্রকৃতির অন্যতম লিলা ভূমি হবিগঞ্জ জেলা। জেলার এক তৃতীয়াংশ জুড়ে রয়েছে হাওর অঞ্চল নামে খ্যাত ভাটি এলাকা। অতি প্রাচীন কাল থেকেই আবহমান বাংলার জনগোষ্টির সিংহ ভাগ আমিষের চাহিদা পুরণ হতো হাওর এলাকার মুক্ত জলাশয়ের উৎপাদিত মাছ থেকে।

হবিগঞ্জের মুক্ত জলাশয়ের খাল, বিল, নদী ও হাওর অঞ্চলের প্লাবন ভূমিতে প্রাকৃতিক ভাবে উৎপাদিত হতো প্রায় ১৬৫ জাতের ছোট-বড় মাছ । এর মধ্যে দেশী প্রজাতীর বহু মাছ বিলুপ্ত হয়ে গেছে। পাবদা, নয়না, পুঁটা, রাম চেলা, বৈচা, লাছো, বাইল্লা, এক ঠুঁটি মাছ, রাণী,মলা-ঢেলা, পুটামাছ, ঘোলা , কালিবাউশ, বাঘ-আইড়, কালিবাউশ, বাছা, কৈয়া, মাগুরসহ পরিচিত অনেক মাছ এখন আর চোখে পরে না।

???????????????????????????????

হবিগঞ্জ জেলা মৎস্য কর্ম কর্তা আশরাফ উদ্দিন জানান, হবিগঞ্জ জেলার মোট আয়তনের মধ্যে প্লাবন ভূমি রয়েছে ৬২হাজার ৭শ ১২ হেক্টর,সরকারী বিল ২হাজার ৯শ ৭৭ হেক্টর,বেসরকারী বিল ১শ ৭৪, খাল ৫শ ৫০, নদী ৫ হাজার ৫শ ৩৬, ও হাওর ৪২ হাজার ৫শ ১২ হেক্টর জায়গা মুক্ত জলাশয় রয়েছে।

তিনি বলেন বহু পরিমানে মুক্ত জলাশয়ে পলি জমে ভরাট হয়ে গেছে। তাছাড়া অতি মাত্রায় কীটনাশক ব্যবহার, কারেন্ট ও মশারি জলা ব্যবহার, জলাশয় সেচ দিয়ে সকল মাছ ধরে ফেলা, মা ও পোণা মাছ নিধণ করা হচ্ছে ফলে দিন দিন প্রাকৃতিক মাছ হারিয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, জেলার সরকারী বিল থেকে কয়েকটি বিল কে মাছের অভায়ারণ্য হিসেবে ঘোষানা করে সঠিক ভাবে রক্ষণা -বেক্ষণ করলে মা মাছ বেচেঁ থাকতে পারবে আর বর্ষা আসলে মা মাছ ডিম ছাড়বে তখন জলাশয়ে মাছের আকাল হবে না। ফলে আবারও দেশী মাছের সোনালী দিনগুলো ফিরে আসবে। তা না হলে এমন এক সময় আসবে মুক্ত জলাশয়ে কোনো মাছই ঠিকে থাকতে পারবেনা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!