সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৬:২২ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

ঐতিহাসিক ৭ই নভেম্বর আজ

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ৭ নভেম্বর, ২০১৫

images9-300x136 ডেস্ক : আজ ঐতিহাসিক ৭ই নভেম্বর। ১৯৭৫ সালের এইদিনে দেশপ্রেমিক সশস্ত্র বাহিনী ও জনতার মধ্যে সংহতির প্রকাশ ঘটেছিল। রাষ্ট্রীয় জীবনের এক অরাজক ও বিশৃঙ্খল অবস্থা এবং রাজনৈতিক শূন্যতার মাঝেই সেদিন এ বিপ্লব ঘটেছিল।

বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট দিনটিকে পালন করছে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস হিসেবে। তবে আওয়ামী লীগ ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) দিনটিকে সৈনিক হত্যা দিবস, কর্নেল তাহের হত্যা দিবস হিসেবে পালন করে। দিবসটি উপলক্ষে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বাণী দিয়েছেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নৃশংসভাবে হত্যার পর খোন্দকার মোশতাক আহমাদ ক্ষমতা নেন। দেশের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য তিনি ২০শে আগস্ট সামরিক শাসন জারি করেন। ৩রা নভেম্বর ব্রিগেডিয়ার খালেদ মোশাররফের নেতৃত্বে আরেকটি সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে খোন্দকার মোশতাক সরকার উৎখাত হয়।

তৎকালীন সেনাপ্রধান জিয়াউর রহমানকে গৃহবন্দি করে রাখা হয়। ৬ই নভেম্বর খালেদ মোশাররফ বিচারপতি সায়েমকে প্রেসিডেন্ট করেন। এ ঘটনার পর ঢাকা সেনানিবাসে জওয়ানদের মধ্যে বিদ্রোহ দেখা দেয়। তারা জিয়াউর রহমানকে মুক্ত করতে তৎপর হয়ে ওঠেন। সেদিন দেশের এক ক্রান্তিকালে সিপাহি-জনতা জিয়াউর রহমানকে মুক্ত করে রাষ্ট্র্র পরিচালনার মঞ্চে নিয়ে আসেন। ১৯৭৫ সালের পর থেকে রাষ্ট্রীয়ভাবে সরকারি ছুটির দিন হিসেবে পালিত হলেও ১৯৯৬তে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে ছুটি বাতিল করে। ২০০১ সালে চারদলীয় জোট সরকার ছুটি পুনর্বহাল করলেও ১/১১-র তদারক সরকার আমলে তা ফের বাতিল করা হয়।

কর্মসূচি: এদিকে দিবসটি উপলক্ষে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে দলটি। আজ সকালে ৬টায় কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ দেশব্যাপী বিএনপির কার্যালয়ে দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হবে। সকাল ১০টায় শেরেবাংলানগরস্থ বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মাজারে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাবেন দলের সিনিয়র নেতারা। এ সময় ফাতেহা পাঠ ও দোয়া মাহফিল হবে। প্রতিবছর ৭ই নভেম্বর বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মাজারে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণে নেতৃত্ব দেন দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। চিকিৎসার জন্য যুক্তরাজ্যে অবস্থান করায় এবার তিনি দিবসটির কর্মসূচিতে অংশ নিতে পারছেন না।

এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে রাজধানীতে পোস্টারিং ছাড়াও আজ জাতীয় দৈনিকগুলোতে ক্রোড়পত্র প্রকাশ হবে। এদিকে সারা দেশে বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনগুলো ৭ই নভেম্বর উপলক্ষে গত তিনদিন ধরে আলোচনা সভাসহ নানা কর্মসূচি পালন করছে। ওদিকে ৭ই নভেম্বর উপলক্ষে ৮ই নভেম্বর রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে আলোচনা সভার আয়োজন করেছিল বিএনপি। কিন্তু বিশেষ কারণ দেখিয়ে বৃহস্পতিবার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট কর্তৃপক্ষ বুকিং বাতিল করেছে।

৭ই নভেম্বর জাতীয় জীবনে প্রেরণার উৎস: খালেদা
এদিকে বাণীতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেন, জাতীয় জীবনে ৭ই নভেম্বর এক ঐতিহাসিক দিন। ১৯৭৫ সালের এ দিনে জাতীয় স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ত্ব রক্ষায় সৈনিক-জনতা ঐক্যবদ্ধভাবে রাজপথে নেমে এসেছিলেন সকল ষড়যন্ত্র রুখে দিতে। ৭ই নভেম্বরের চেতনা আমাদের জাতীয় জীবনে প্রেরণার উৎস।

সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতা-উত্তর বাংলাদেশের রাজনীতি ক্রমেই কর্র্তৃত্ববাদী হয়ে ওঠার এক পর্যায়ে একদলীয় বাকশালী একনায়কতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা রূপ পেয়েছিল। এমনি এক প্রেক্ষাপটে মতাদর্শগত কোন্দল যখন চরমে উঠেছিল তখন আওয়ামী লীগেরই একটি বৃহৎ অংশ ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট একটি অভ্যুত্থান সংগঠিত করে ক্ষমতা দখল করে। এরই ধারাবাহিকতায় ওই বছরের ৩রা নভেম্বর সেনাবাহিনীর একটি অংশ আধিপত্যবাদের ভাবনায় প্ররোচিত হয়ে তৎকালীন সেনাবাহিনীর প্রধান জিয়াউর রহমানকে সপরিবারে ক্যান্টনমেন্টে বন্দি করে।

দেশবাসী ও সশস্ত্র বাহিনীর দেশপ্রেমিক জনতা উপলব্ধি করতে পারেন-জাতীয় স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকে ভূলুণ্ঠিত করার জন্যই এই চক্রান্ত করা হয়েছে। তিনি বলেন, ষড়যন্ত্রকারীদের চক্রান্তকে রুখে দেয়ার জন্য অকুতোভয় সৈনিক-জনতা এক ইস্পাত কঠিন ঐক্যে শপথবদ্ধ হন ৭ই নভেম্বর এক ঐতিহাসিক বিপ্লব সংগঠনের জন্য। তারা বন্দিদশা থেকে মুক্ত করেন তাদের প্রিয় সেনাপতিকে। এই ঐতিহাসিক পটপরিবর্তনের মধ্য দিয়ে দেশ নতুন করে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় ফিরে যাওয়ার প্রস্তুতি নেয়। বহুদলীয় গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হয়।

খালেদা জিয়া বলেন, দেশ যখন অপশাসনে নিপতিত হয় তখন গণতন্ত্র, স্বাধীনতা যুদ্ধের মূল্যবোধ-অঙ্গীকার হুমকির সম্মুখীন হয়। বাংলাদেশে এখন একটি বিনাভোটের সরকার ক্ষমতায় প্রতিষ্ঠিত। তারা দমন-নিপীড়ণের মধ্য দিয়ে জনগণের কণ্ঠ রোধ করে দেশের স্বার্থকে জ্বলাঞ্জলি দিয়ে শুধুই ক্ষমতায় থাকতে এখন বিভোর হয়ে উঠেছে।

এই দুঃশাসনের অবসান হওয়া জরুরি। জনগণ যদি অবাধে ভোট দেয়ার অধিকারটুকু ফিরে পায় তাহলেই তারা স্বৈরাচারী শাসনের বিপক্ষে তাদের আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটাতে পারবেন। ৭ই নভেম্বরের চেতনায় সকল জাতীয়তাবাদী দেশপ্রেমিক শক্তির ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন।

মনোবল হারানোয় হামলার শিকার হচ্ছে পুলিশ: হান্নান শাহ
ওদিকে দক্ষতা ও মনোবল হারানোর কারণে পুলিশ প্রায়ই হামলার শিকার হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ। গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবে ৭ই নভেম্বর জাতীয় সংহতি দিবস উপলক্ষে ডক্টরস এ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব) আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

হান্নান শাহ বলেন, পুলিশ অন্যায় কাজ ও চাঁদাবাজিতে লিপ্ত। পুলিশ বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের ওপর হামলায় ব্যস্ত। আর সেকারণে তারা দক্ষতা হারিয়ে ফেলেছে। বিএনপির সিনিয়র এ নেতা বলেন, পুলিশ অপরাধীদের ধরতে ব্যর্থতার পরিচয় দিচ্ছে। গত জাতীয় নির্বাচনের সময় পুলিশ বলেছিল, দেখামাত্রই গুলি। এখন ডিএমপি কমিশনার বলছেন, আক্রান্ত হলেই গুলি। বারবার তাদের বক্তব্য পরিবর্তন হবে কিন্তু কোন কাজ হবে না।

খালেদার সঙ্গেই আলোচনায় বসতে হবে: শাহ মোয়াজ্জেম
এদিকে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম বলেছেন, সরকার না চাইলেও তাদের বেগম জিয়ার সঙ্গে আলোচনায় বসতেই হবে। কারণ বেগম জিয়া দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ জনতার নেত্রী। গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবে ৭ই নভেম্বর জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে যুব জাগপা আয়োজিত এক যুব সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, বেগম খালেদা জিয়া লন্ডন থেকে জাতীয় ঐক্যের ডাক দিয়েছেন। গণতন্ত্রের স্বার্থে সেখানে তিনি প্রধানমন্ত্রীসহ দেশের সকল রাজনৈতিক দল ও সুশীল সমাজকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। কিন্তু অর্থমন্ত্রী সে আহ্বান প্রত্যাখ্যানের মাধ্যমে নিজেদের দেউলিয়াত্বই প্রমাণ করেছেন। যুব জাগপার সভাপতি ফাইজুর রহমানের সভাপতিত্বে সমাবেশে জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, এনপিপির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, জাগপা সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লুৎফর রহমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

৭ই নভেম্বরের চেতনায় ঐক্যবদ্ধ হওয়ার বিকল্প নেই: ন্যাপ
ওদিকে ৭ই নভেম্বরের চেতনায় জাতিকে ঐক্য হওয়ার বিকল্প নেই বলে মন্তব্য করেছে ২০ দলীয় জোটের শরিক বাংলাদেশ ন্যাপ। গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে দলের চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গাণি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া এই আহ্বান জানান।

বিবৃতিতে তারা বলেন, ১৯৭৫ সালের সিপাহি জনতার বিপ্লবের মধ্য দিয়ে প্রকৃত অর্থে বাংলাদেশের সার্বভৌম মর্যাদা প্রতিষ্ঠার সূচনা হয়। প্রতিষ্ঠিত হয় গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ। আজ যখন আবারও দেশকে গণতন্ত্রহীন করার ষড়যন্ত্র চলছে তখন সমগ্র জাতিকে ৭ই নভেম্বরের চেতনায় ঐক্যবদ্ধ হওয়ার কোন বিকল্প নেই।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!