সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১০:২৯ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

হবিগঞ্জে কমিউনিটি ক্লিনিকের প্রতি আস্থা বেড়েছে

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ৭ নভেম্বর, ২০১৫

Pic Comiunity Hospital (2) এম এ আই সজিব, হবিগঞ্জ প্রতিনিধি:
হবিগঞ্জে কমিউনিটি ক্লিনিকের প্রতি আস্থা বেড়েছে, গ্রামাঞ্চলের সাধারণ মানুষের। সামান্য অসুস্থ হলেই তারা এখান থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন কমিউনিটি ক্লিনিকে।
সদর উপজেলার রিচি গ্রামের বাসিন্দা ৭ম শ্রেণীর ছাত্র আব্দুর রহমান সাজন জানায়, কমিউনিটি ক্লিনিকে তারা ভাল সেবা পায়। এর মাধ্যমে তাদের অনেক লাভ হয়েছে। বড় কোনো সমস্যা না হলে তাদের ডাক্তারের কাছে যেতে হয় না।

এবং চর্ম রোগের চিকিৎসা ও তারা এখানেই ওষুধ পায়, এতে তারা বেশ খুশি। এটি না থাকলে সামান্য ওষুধের জন্য তাদের শহরে যেতে হতো। ডাক্তার দেখাতে হতো। এজন্য অনেক টাকা খরচ হতো।

IMG_20151107_221415

তাছাড়া, সামান্য রোগ হলে এখানেই ভাল চিকিৎসা হয়। বিনামূল্যে ওষুধও পাওয়া যায়। এখান থেকে পাওয়া চিকিৎসায় রোগ ভালও হচ্ছে। শহরের হাসপাতালে গেলে এ চিকিৎসা পাওয়া যেত না। সুগেরা খাতুন (৬০) ও রুমলা খাতুন (৪০) বলেন, আমরা সব সময় অসুস্থ হলেই এখান থেকে চিকিৎসা নেই।

তারা (কমিউনিটি ক্লিনিকের দায়িত্বরতরা) না থাকলে আমাদের ছেলে-মেয়েদের টিকা দিতে পারতাম না। আমরা জানতামই না। তারা বাড়ি বাড়ি গিয়ে টিকা দেয়। ফলে আমাদের রোগবালাই অনেক কম হচ্ছে। জ্বর, সর্দি, ডায়রিয়া এসবের জন্য কোনো ডাক্তারের কাছে যেতে হয় না। তাদের কারণে প্রসূতি মায়েরা ঠিকমতো পরামর্শ পায়। যা কোনো ভাল ডাক্তারও দেয় না।

রিচি কমিউনিটি ক্লিনিকের কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার মো. বাসিত উজ্জামান শিপন জানান, তাদের সবচেয়ে বড় সমস্যা চাকরিটি স্থায়ী নয়। সরকার বছরে বছরে তা বর্ধিত করে। ২০১১ সালের অক্টোবরে তাদের প্রথম নিয়োগ দেয়া হয়। মেয়াদ ছিল ২০১৪ সালের জুন পর্যন্ত। পরে আরও ২ বছর বাড়িয়ে তা করা হয়েছে ২০১৬ সালের জুন পর্যন্ত।

একটা অনিশ্চয়তার মধ্যে তাদের চাকরি করতে হচ্ছে। যাদের বয়স চলে গেছে তাদের এটি ছাড়া অন্য কোনো উপায়ও নেই। তাছাড়া ক্লিনিকে বিদ্যুৎ নেই, আসবাবপত্র ভাল না। ২০০১ সালে ক্লিনিক প্রতিষ্ঠার সময় আসবাবপত্র দেয়া হয়েছিল। এরপর আর সংস্কার করা হয়নি। অনেক কষ্ট করে অফিস করতে হয়। তিনি বলেন, এখানে পর্যাপ্ত যন্ত্রপাতি আছে।

প্রতি মাসে একবার ওষুধ আসে। কিন্তু যে পরিমাণ ওষুধ আসে তা রোগীর তুলনায় অপর্যাপ্ত। একটি কার্টুনের ওষুধে দেড় মাস চালানোর কথা। কিন্তু আমরা ২০ দিনের বেশি চালাতে পারি না। হাসপাতালগুলোর চেয়ে অনেক বেশি সেবা ও ওষুধ এখানে দেয়া হয়। ফলে রোগীদের আস্থা বেশি। আবার রোগীর চাপও বেশি থাকে।

এ বিষয়ে সিভিল সার্জন ডা. মো. নাছির উদ্দিন ভূঁঞয়া জানান, প্রতিটি কমিউনিটি ক্লিনিকে ২৯ ধরনের ওষুধ দেয়া হয়। এর মধ্যে নিউমোনিয়া, ডায়রিয়া, জ্বর, কাশি, আঘাতজনিত রোগের ওষুধও রয়েছে। বেশি জটিল হলে তারা রোগী হাসপাতালে পাঠায়। সপ্তাহে ৬ দিনই এখানে চিকিৎসা দেয়া হয়। শুধু শুক্রবার বন্ধ থাকে।

তিনি আরো বলেন, কমিউনিটি ক্লিনিক গুলোর প্রতি মানুষের আস্থা অনেক বেশি। মানুষ অনেক বড় ডাক্তারের চেয়েও সেখানে কর্মরতদের কথায় অনেক বেশি গুরুত্ব দেন। আর তাদের বিশ্বাসও করেন অনেক বেশি।
সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, জেলায় মোট ১৮৮টি কমিউনিটি ক্লিনিক চালু রয়েছে। কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার (সিএইচসিপি) কর্মরত আছেন ২১৮ জন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!