বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৩:৫৫ অপরাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

নারী মুক্তি ও নারী নির্যাতন

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৫

শাহ মনসুর আলী নোমান : এ দেশের নারী আন্দোলন ও জাগরণের প্রবাদ প্রতীম মহীয়সী নারী বেগম রোকেয়া সাখাওয়াৎ হোসেন তাঁর ‘শিশুপালন’ নিবন্ধে মানব সমাজের প্রগতি ও উন্নতির বিকাশে নারী জাতিকে আবিষ্কার করেছেন আদর্শ ‘স্ত্রী’ ও ‘মা’ হিসাবে এবং সৃজনশীল ও গঠনমূলক ভূমিকার উজ্জ্বল আলোকবর্তিকা হিসাবে। নারী সমাজকে পুরুষের অংশিদারিত্বে সমতা ও সাম্য সৃষ্টিই ছিল বেগম রোকেয়ার অক্লান্ত পরিশ্রম ও সাধনা।

 

আজ বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক প্রেক্ষাপটে বদলে যাচ্ছে আমাদরে প্রাচীন ও চিরাচরিত রীতিনীতি, ঐতিহ্য-কালচার, রুচি ও মননশীলতা। পুরুষতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় আজ বিভিন্ন পন্থায় নারী সমাজকে ভোগ্য-সামগ্রী, পণ্য প্রচারের নগ্ন মডেল ও পরনির্ভরশীলতার সেবাদাসীতে পরিণত করা হচ্ছে। নারী স্বত্তা বিকাশের পর্যায় ও বেগম রোকেয়ার সেই ঝঁষঃধহধ’ং উৎবধস চরম ব্যর্থতার দিকে ধাবিত হচ্ছে।

 

আবহমান কালের মহাবাণী নারী মায়ের জাতি হিসাবে উন্নত ও আদর্শ মর্যাদায় আসীন। কিন্তু নারীর সতীত্ব, সম্ভ্রম ও ইজ্জত কতিপয় সমাজপতিদের দ্বারা কালো টাকার প্রলেপ দিয়ে ঢাকা হচ্ছে। সম্ভ্রম হারানো নারী, এসিড নিক্ষেপের শিকার নারী, যৌতুকের শিকার নারী, জোরপূর্বক বিবাহের শিকার নারী, ফতোয়াবাজি ও কু-শাসনের শিকার নারী, পাষন্ড স্বামীর নির্মম অত্যাচারে প্রাণ দিচ্ছে নারী ইত্যাদি অসামাজিক কর্মকান্ডের মীমাংসা করা হচ্ছে কালো টাকা দিয়ে। অনেকে সাহসী ভূমিকা পালন করে আইনের আশ্রয় গ্রহণ করলেও ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হয়না বরং প্রকারান্তরে মামলা তুলে নেয়ার জন্য ভীতি প্রদর্শন করা হয় কিংবা তাও মীমাংসা করা হয় কালো টাকা দিয়ে।

 

দীর্ঘদিন যাবৎ অসাধু আদম বেপারীর দৌরাত্মে জনশক্তি রপ্তানীর নামে অসহায় নারী-সমাজের দুর্বলতার সুযোগে তাদের পাচার করা হচ্ছে বিভিন্ন অসৎ উদ্দেশ্যে।

 

শেষ সম্বলটুকু বিক্রি করে নারী সমাজ যখন প্রবাসে পাড়ি দিয়ে স্বপ্ন দেখতে শুরু করেন স্বাবলম্বী হবার, ঠিক সেই সময় বিদেশের মাটিতে জোরপূর্বক বাধ্য করা হচ্ছে বিভিন্ন নৈতিকতা বিবর্জিত কর্মকান্ডে। যা নারী প্রগতি ও নারী মুক্তি-র অন্তরায়।

 

ফ্রান্স সরকার নারী-পুরুষের সমতা আনয়নের লক্ষ্যে নারীদের রাতের বেলায় কাজ করার নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে। কুয়েতে সংস্কারের মাধ্যমে মহিলাদের ভোটাধিকারের পথ উন্মুক্ত করা হয়েছে এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নারী উন্নয়নের লক্ষ্যে বিভিন্ন গঠনমূলক কর্মকান্ড হাতে নেয়া হয়েছে, কিন্তু এ দেশের প্রবীণ দু’টি সংগঠনের ‘নির্বাহী’ পদে নারী অধিষ্টিত হওয়া সত্ত্বেও নারী উন্নয়নের কাঙ্খিত পদক্ষেপ গৃহীত হচ্ছে না। যদিও বর্তমানে আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নারী মুক্তি ও নারী উন্নয়নের লক্ষ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ ও কর্মসূচী প্রশংসার দাবি রাখে, প্রয়োজন এ-গুলোর প্রয়োগ ও বাস্তবায়ন।

 

যৌতুক প্রথা আমাদের সমাজে ক্যান্সারের মতো বিরাজ করছে। কন্যা-দায়গ্রস্ত পিতা আজ হতাশায় নিমজ্জিত। সরকারীভাবে যৌতুক আদান-প্রদানের ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকলেও সেদিকে কারো নজর নেই। বিবাহ উত্তম সামাজিক ও ধর্মীয় বন্ধন। কিন্তু বিবাহপূর্বে পাত্রীর পক্ষ থেকে নগদ অর্থ কিংবা পণ্য গ্রহণ প্রায় কালচারে পরিণত হয়েছে। যার ফলে দরিদ্র, মধ্যবিত্ত অভিভাবকবৃন্দ খুবই দুঃশ্চিন্তা ও টেনশনে থাকেন।

 

১৯৯২ সালের সংশোধিত আইন অনুযায়ী আঠার এবং বাইশ বছরের নীচে যথাক্রমে মেয়ে এবং ছেলেদের বিবাহ বন্ধন দন্ডনীয় অপরাধ। কিন্তু কতিপয় অসাধু লোকদের দৌরাত্মে প্রাপ্ত বয়স দেখিয়ে বিবাহ কার্য সম্পাদন করা হচ্ছে অহরহ। যার ফলে বাল্য বিবাহ নারী নির্যাতনের কারণ হিসাবে রূপ নেয়।

 

১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইন অনুযায়ী বিবাহ রেজিষ্ট্রি হওয়া আবশ্যক।

 

কিন্তু রেজিষ্ট্রি ও কাবিন বিহীন বিবাহ সম্পন্নকারীদের বিরুদ্ধে শাস্তির বিধান থাকলেও আমাদের সমাজের অধিকাংশ এলাকায় অনেকেই এ আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল না হওয়ায় নারী নির্যাতন উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। একটি বেসরকারী সংস্থার জরিপমতে, অপ্রাপ্ত বয়স্ক বিবাহ প্রথা ও কাবিন বিহীন বিবাহ নারী উন্নয়নের অন্যতম অন্তরায়।

 

এসিড নিক্ষেপ, ইভটিজিং এর মতো জঘণ্য অপরাধ সমাজ ব্যবস্থায় অহরহ ঘটছে।

 

স্কুল-কলেজ গামী ছাত্রীরা বখাটেদের অসাধু প্রস্তাবে সম্মত না হলে স্কুল-কলেজগামী ছাত্রীদের এসিডের কালো থাবায় মৃত্যু পথযাত্রী হতে হচ্ছে। যার ফলে নারী শিক্ষা আশঙ্কাজনকভাবে বাঁধাগ্রস্থ হচ্ছে।

 

কেহ কোন অপরাধ করলে প্রচলিত আইন অনুসারেই তাদের বিচার হওয়া যৌক্তিক।

 

কিন্তু ধর্মীয় অপব্যাখ্যা, তথাকথিত ফতোয়া ও দোররার কালো থাবায় আর কত প্রগতিশীল নারীদের হত্যা করা হবে?পুরুষশাসিত সমাজ ব্যবস্থায় স্বীয় স্বার্থ, কুসংস্কার, নৈতিকতা বিবর্জিত কর্মকান্ড নারী সমাজকে কোন স্তরে টেনে নামানো হচ্ছে?রোকেয়া সাখাওয়াত, সুফিয়া কামাল নারীমুক্তি, নারীস্বত্তার বিকাশ ও উন্নয়নে বলিষ্ঠ ভূমিকা পালনের জন্য অমর হয়ে আছেন। তারা নিশ্চয়ই এ রকম নারী মুক্তির কথা তারা পুরুষের শৃঙ্খল থেকে বেরিয়ে মাথা উচিয়ে কর্ম ও নারী স্বাধীনতার কথা বলেছিলেন। কালের বিবর্তনে নারী স্বাধীনতা সভা-সেমিনার, ধর্মীয় ও আর্থিক শাসনের জিঞ্জিরে আবদ্ধ।

 

বেগম রোকেয়ার এই দর্শন ও মানবিকতা উল্লেখ করে বলতে হয় সত্যিকারের নারী মুক্তির লক্ষ্যে আমাদের সমাজ ব্যবস্থার কুপমন্ডুকতা, নোংরা চিন্তা-চেতনার বিরুদ্ধে বিপ্লব প্রয়োজন। নতুন শতাব্দীর হাতছানি; দেশের নিপীড়িত, অসহায় ও অত্যাচারিত নারী সমাজের মধ্যে বন্ঠিত করার লক্ষ্যে সরকারী বেসরকারী ভাবে কার্যকরী পদক্ষেপ প্রয়োজন এবং নারী নির্যাতনকারীও নারীমুক্তির অন্তরায় অসাধুদের চিহ্নিত করে সামাজিকভাবে বয়কট করা প্রয়োজন এবং নারী প্রগতি, নারী উন্নতি, নারী মুক্তি-র অভিপ্রায়ে একটি সুখী-সমৃদ্ধশালী দেশ গড়ার লক্ষ্যে ব্যক্তি, সমাজ, সরকারী-বেসরকারীভাবে নারী প্রগতির অন্তরায় সমূহ চিহ্নিত করে অপরাধীদের আইনের আওতায় আনা এবং আইনের সঠিক প্রয়োগ ও বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ঐক্যবদ্ধভাবে ভূমিকা নেয়া অতীব জরুরী।

 

 

7236

লেখক: সাংবাদিক, মানবাধিকার ও উন্নয়ন কর্মী।

শাহ মনসুর আলী নোমান

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!