সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০২:৫৭ অপরাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

ইসলামের আলোকে সংস্কৃতি অর্থ্যাৎ মেলা ও ওরুস

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০১৫

SHAHIN SHA PIRসৈয়দ শাহান শাহ পীর-: বাউল শিল্পীদের ফ্যাশন শো শুরু হয়ে গেছে। যে সমস্ত গান- বাজনা পশ্চিমা সংগীতের কামোদ্বীপক, কুরুচিপূর্ণ ব্যক্তিগত প্রেম/ভালবাসা এসমস্ত গান-বাজনা আল্লাপাক ও রাসুল পাক (সাঃ) হারাম করেছেন। কিন্তু যেসমস্ত গান মহিমাময়, হৃদয়স্পর্শী মৌলিকত্ব রয়েছে যেমন, পিতা-মাতার ভালবাসা, ভাই-বোনদের ভালবাসা, মাতৃভূমির ভালবাসা, আল্লাহ-রাসুল (সাঃ) এর ভালবাসার মাধ্যমে, জীবন -মৃত্যু, ইহকাল-পরকাল, আনন্দ-সুখ, দুঃখ- কষ্ট, সৃষ্টি- ধ্বংস, হাশর-মিজান, বিচার দিবস, বেহেশত-দোযখসহ ইত্যাদি রুচিপূর্ণ শিক্ষামূলক গান বাজনা মধ্যপন্থায় পরিবেশন করা যেতে পারে ইসলামীক বিশেষজ্ঞদের অভিমত।

 

তবে বাদ্যযন্ত্র ১/২ এর অধিক যেন না হয় এবং শব্দ নিম্ন সুরে বাজানো উচিৎ। এসমস্ত গান-বাজনাতে গ্রামীন সাধারণ মানুষের সামাজিক ও সাংসারিক জীবন কর্মউদ্দম এবং জীবন চলার অনুপ্রেরনা যোগায়। তবে মধ্যপন্থা অবলম্বন করা জরুরী। আর না করাটাই উত্তম। সাধারন ভাবে বলা হয়ে থাকে, মানুষ যা কিছু সৃষ্টি করে তাই তার সংস্কৃতি।

 

এটি এমনিতেই সৃষ্টি হয় না। মানুষের সৃজনশীলতার স্পর্শেই সংস্কৃতির বিকাশ ঘটে। চলচিত্র, সংগীত, চারুকলা, নিত্যকলা, গান-বাজনা এবং নাটক ইত্যাদি মানুষের দ্বারা সৃষ্টি। মানুষের চিন্তা, কল্পনা, অনুভব, অনুভতি নানারকম প্রকাশ ঘটে এসব এর মধ্যেদিয়ে। এসবের মধ্যে আনন্দ, বিনোদন, জীবনে ভাঙ্গা-গড়ার খেলা নানা পালাবদল থাকে।

 

কখনো শিক্ষামূলক ম্যাসেজও থাকে। আমরা এ গুলোকেই সাধারন সংস্কৃতি বলে থাকি। কিন্তু ইসলামিক দৃর্ষ্টিতে সংস্কতির অর্থ ব্যাপক এবং বহুমাতৃক সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য উদ্দেশ্যের অনুসারী। এখানে সংস্কৃতি শুধু নয়, যে কোনো সৃজনের পেছনেই প্রধান থাকে তার উদ্দেশ্যের বিষয়টি। বুখারীশরীফের হাদীসে রাসুল পাক (সাঃ) যেমনটি বলেছেন, মানুষের কাজের বিচার হবে তার উদ্দেশ্যের মানদন্ডে। অর্থ্যাৎ নিয়তের উপর। মানুষ যে কাজই করুক বা সৃষ্টি করুক না কেন, তার পেছনের উদ্দেশ্য এবং সে অনুযায়ী তার প্রকাশই আসল কথা। সৃজনের উদ্দেশ্য যদি সৎ হয়, সেই সৃজন কর্মে যদি সেই সৎ উদ্দেশ্যের প্রতিফলন ঘটে, তাহলে কর্মটি নিশ্চই তার শালীন ও পরিশুদ্ধ হবে কোরআন সুন্নামতে। বস্তুত ইসলামে অশ্লীলতা, অশুদ্ধতা এবং অশালীনতার কোনো স্থান নেই। বলা বাহুল্য ইসলামী সংস্কৃতিও এ উদ্দেশ্যের বাহিরে নয়। আগেই উল্লেখ করা হয়েছে যে, ইসলামের সংস্কতির অর্থ অনেক ব্যাপক। আমরা সংস্কতিকে যেভাবে কতিপয় বিষয়ের মধ্যে সীমাবদ্ধ রেখেছি ইসলাম তা করেনি। ইসলামের সংস্কতির অর্থ ভিন্নতর। ব্যতিক্রমি ও সদূরপ্রসারী। এখানে সংস্কতির আওতা বা পরিষদ আরও বিস্তৃত। সৌন্দর্য্য, সূরুচি, পরিচ্ছন্ন মূল্যবোধ, সদাচরন, আহারে-বিহারে পরিমিতবোধ এবং মধ্যপন্থা অবলম্বন, মিষ্ট ভাষন, সালাম ও কৌশল বিনিময় এমন কি পরিপাটি করে দাড়ি বা চুল আছড়ানোসহ ইত্যাদি ইসলামের দৃষ্টিতে সংস্কৃতির আওতাভূক্ত। ইসলামী মূল্যবোধের আলোকে সংস্কৃতিকে বুঝতে হলে আমাদেরকে ইসলামের মূল বৈশিষ্ট ও প্রবণতা গুলো বুঝতে হবে। ইসলাম তাওহীদের স্বর্ণস্পর্শে মহিমান এক কল্যানময় জীবন ব্যবস্থা বা দ্বীন। এই দ্বীনের সম্পূর্ণটাই সুন্দর, পরিশীলিত, পরিছন্ন, পরিশুদ্ধ, পরিমিত এবং প্রজ্ঞা ভারসাম্যপূর্ণ। ইসলামে বৈরাগ্য নেই। নেই সন্নাশী ও সংসার ত্যাগীর কোনো স্থান। আবার মাত্রাতিরিক্ত সংসার- মগ্নতাও নেই। কোনো ব্যাপারে বারাবারি নেই। সর্বদা সঠিক ও মধ্যপন্থা অবলম্বেনের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বুখারী শরীফে রাসুল পাক (সাঃ) বলেছেন মধ্যপন্থা অবলম্বন কর।

 

সকালে,বিকালে, রাতে এবং আধারে আর কিছু অংশে। অর্থ্যাৎ মধ্যমপন্থা -পরিমিত এবাদত। তাহলে লক্ষে পৌছে যাওয়া অসম্ভব কিছু নয়। আর এই মধ্যপন্থা বা পরিমিতবোধ ইসলামী জীবন ব্যবস্থার মত সংস্কৃতির অবয়বকেও পরিশীলিত ও উন্নতপূর্ণ করে তুলে।

 

ইসলামের যাবতীয় শিক্ষা এবং আদর্শই মানুষের সার্বিক কল্যাণের জন্য। এই কল্যাণ ও চেতনা সংস্কতির শেকরে রস সঞ্চার করলে সেই সংস্কৃতি কখনোই নৈতিকতা ও সুরুচি বিরোধী হতে পারে না। ইসলামের সৌজন্য, শালীনতা, ইনসাফ ও ভারসাম্যের আদর্শপুষ্ট যে সংস্কৃতি তা একটি ব্যতিক্রমি বৈশিষ্ট নিয়ে সবর্দা কল্যান এবং পরিশুদ্ধতার দিকে মানুষকে আহবান করে। তার চেতনাকে নিষ্পাপ সৌন্দর্য্যে বিমোহিত আর নির্মল আনন্দের ধারায় সিক্ত করে। একথা ঠিক যে, মহানবী (সাঃ) আবির্ভাবকালে বা তার আগে আরব উপদ্বীপে সংস্কৃতির আনুষ্ঠানিক প্রকাশ এখনকার মত এত বিস্তৃত ছিলনা।

 

তবুও নওরোজ বা অকাজের মেলার মত আয়োজন ছিল। যে গুলোকে কেন্দ্র করে মদ-জুয়া সহ মেয়ে-ছেলেরা অনৈতিক আমোদপুর্তির ব্যবস্থা করত। পূর্ব পুরুষের যশোগাঁথা আর ঠুনকো আভিজাত্য অহমিকার মহিমা বর্ণনা সম্বলিত কবিতার লড়াই হত। রাতজুড়ে গল্পের আসর বসত। এসব আসরে অবৈধ পান-ভোজনসহ রুচিহীন ব্যঙ্গ-বিদ্রপ ও অশ্লীল বিনোদনের ব্যবস্থা থাকত। কিন্তু ইসলামের আদর্শের স্বর্ণস্পর্শে এসব অপসংস্কৃতিক কালিমা দূরীভূত হয়ে যায়। কিন্তু বর্তমানে শীতকাল না আসলেও শীত পড়েগেছে। আর শীতেই এই নগ্ম অশ্লীলতা আর বাউল শিল্পীদের ফ্যাশন শো শুরু হয়ে গেছে।

 

একসময় বাউল গান ছিল গ্রামবাংলার অন্যতম জনপ্রিয় বিনোদন। লালন ফকির, হাছান রাজা, রাধারমন, দ্বীনহীন হাছনআলী শাহ্ ( গাগলাজুর) প্রমুখের তাত্বিক গানে মানুষ খুজে পেত আত্মশুদ্ধির পথ। কিন্তু আজকাল নগ্ম অশ্লীলতার করাল গ্রাসে সে বাউল গান এখন পরিণত হয়েছে ফ্যাশন শো তে। এখন বাউলা গান মানেই সুন্দরীদের দেহ প্রদর্শন, টাকার ছড়াছড়ি, মদ-গাজা জুয়া আর অসামাজিক কার্যকলাপ। হবিগঞ্জজেলাসহ সারাদেশে অসংখ্য অলী আউলিয়াদের মাজারে বাউল নামের ফ্যাশন শো‘র আয়োজন করায় একদিকে যেমন ভূলুন্ঠিত হচ্ছে মাজারের পবিত্রতা অপর দিকে সর্বশান্ত ও বিপদগামী হচ্ছে সমাজ- পারিপার্শিকতা। প্রকাশ্যে ঢাক-ডোল পিঠিয়ে এসব জাহীলি কারবার অব্যাহত থাকলেও দেখার যেন কেউ নেই। আর যারা দেখবে তারাই স্বর্ষ্যভেূত। হবিগঞ্জ জেলাসহ সারা দেশে ধান্দাবাজ আয়োজক এ ধরনের বাউল আসর বসিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা। শৃংঙ্খলা বাহিনী থাকা সত্ব্ওে মনে হয় যেন কার গোয়ালে কে মশা তাড়াবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!