রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ১২:৪০ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

স্বজন হারানোর শোক নিয়েই লাশ পেতেএই দীর্ঘ সময় কাটাতে হয় হাসপাতাল ও থানায় নিহতদের পরিবারের সদস্যরা

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ৬ জানুয়ারী, ২০১৬

৭৩৬এম এ আই সজিব,হবিগঞ্জ প্রতিনিধি :শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত হলে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে আসা হয় ৪০ বছর বয়সী রানু চন্দ্র দাসকে। গত মঙ্গলবার রাতে শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত হলে গতকাল বুধবার সকালে হাসপাতালে নিয়ে আসে তার স্ত্রী রিনা রানী দাস। হাসপাতালে আনার পরও রানু চন্দ্র দাসকে যম দূতের হাত থেকে রক্ষা করতে পারেননি চিকিৎসক ও স্বজনরা।

 

সকাল ৯ টার দিকে মেডিসিন ওয়ার্ডের মেঝেতে জীবন প্রদীপ থেমে যায় তার। শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত মারা যাওয়ায় এই মৃত্যু নিয়ে স্বজনদের মাঝে কোন প্রশ্ন ছিলনা? তাই সুরতহাল (পোস্টমর্টেম) না করেই বাড়িতে লাশ নিয়ে যেতে চান পরিবারের সদস্যরা। কিন্তু এতে করে যে অমানবিক ভোগান্তি পোহাতে হবে তা হয়তো কেউ ঘুনাক্ষরেও ভাবেননি। ভাবেননি রানু চন্দ্র দাসের শোক স্তব্দ স্বজনরাও। গতকাল সকালে মারা গেলেও তার লাশ নিতে হয় বিকালে। স্বজন হারানোর শোক নিয়েই লাশ পেতে এই দীর্ঘ সময় হাসপাতাল ও থানায় ছুটেছেন পরিবারের সদস্যরা। পরে দুপুরে বিষয়টি সাংবাদিকরা জানতে পেরে হাসপাতালের জরুরী ওয়ার্ডে ছুটে যান গণমাধ্যমকর্মীরা।

 

 

জরুরী বিভাগের খাতায় গিয়ে দেখা যায়, রানু চন্দ্রের মৃত্যুর কারণই উলেখ করা হয়নি। মেডিসিন ওয়ার্ডের ভর্তির খাতায় দেখা যায়, এ সময় দায়িত্বরত নার্স জানান, জরুরী বিভাগ থেকে যা লেখা হয়েছে, এখানে তাই লেখা হয়েছে। আপনারা সেখানে যোগাযোগ করুন। রানুর স্ত্রীর দাবি ভর্তির সময় তিনি ডাক্তারকে শ্বাসকষ্টের রোগী হিসেবে ভর্তি করেন। কি কারণে টহশহড়হি চড়রংড়হরহম লেখা হয়েছে তিনি জানেন না। পরে আবাসিক মেডিকেল অফিসারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, রোগীর স্বজনদের কথার ভিত্তিতেই রোগের কারণ লিখা হয়।

 

 

হয়তো মৃতের স্ত্রী বিষপানের বিষয়টি তখন জানিয়েছিলেন। পরে সাংবাদিকদের অনুরোধে তিনি লাশটি ময়নাতদন্ত ছাড়া নিয়ে যাওয়ার সুপারিশ করেন সদর থানাকে। সুপারিশটি সদর থানায় নিয়ে ওসি তদন্ত বিশ্বজিৎ দেব হাসপাতালের মৃত্যু সংবাদের ¯িপ নিয়ে দেখতে পান তাতে লেখা রয়েছে (ঘুমের সময় অচেতন) লিখা রয়েছে। এ সময় তিনি জানান, এটি স্বাভাবিক মৃত্যু। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ইচ্ছা করলেই লাশটি পরিবারের নিকট হস্তান্তর করতে পারতেন। এরকম মৃত্যু নিয়ে তারা প্রায় সময়ই আমাদেরকে ভোগান্তিতে ফেলেন।

 

 

পরে তিনি ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার পরামর্শক্রমে সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে লাশটি হস্তান্তর করেন। এ সময় মৃত ব্যক্তির লাশ স্বজনদের কাছে দ্রুত হস্তান্তর করা উচিত বলে মন্তব্য করেন হবিগঞ্জ সদর থানার ওসি তদন্ত। তিনি বলেন, স্বজনদের কোন অভিযোগ না থাকলেও হাসপাতাল থেকে পুলিশ কেইসের মৃত্যুর সংবাদ আসলে আইনী জটিলতার কারণে ময়নাতদন্ত ছাড়া লাশ হস্তান্তর করতে পারিনা।

 

তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষেরও কিছু দায়িত্ব রয়েছে। স্বাভাবিক মৃত্যুর খবরের ¯িপ আমাদের না দিয়ে স্বজনদের নিকট তাদেরই লাশ হস্তান্তর করা উচিত। তাহলে লাশ নিতে গিয়ে ভোগান্তি পোহাতে হবে না। হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, অপঘাতে মৃত্যুর ঘটনায় মৃত্যু সনদে ‘পুলিশ কেইস’ শীর্ষক একটি সিল মারা হয়। হাসপাতালের ওয়ার্ড মাস্টারের কার্যালয় এই সিলটি মেরে থাকে। সিল মারার পর অপঘাতে মৃত্যুর বিষয়টি অবহিত করার পাশাপাশি স্থানীয় থানা পুলিশকে লাশটি বুঝে নিতে অনুরোধ জানিয়ে থাকে ওয়ার্ড মাস্টারের অফিস। পুলিশ এসে বুঝে নেয়ার পর লাশটি হাসপাতালের লাশ ঘরে স্থানান্তর করা হয়। তখন থেকেই লাশটি পুলিশের তত্ত্বাবধানে থাকে। কিন্তু মৃত্যু নিয়ে কোন প্রশ্ন বা সংশয় না থাকলে সেক্ষেত্রে অধিকাংশ মৃতের পরিবার পোস্টমর্টেম না করেই লাশটি বাড়ি নিয়ে যেতে চান। এক্ষেত্রেই প্রক্রিয়া ও আইনগত জটিলতার কবলে পড়ে অমানবিক ভোগান্তি পোহাতে হয় স্বজনদের।

 

 

 

সূত্রে জানা যায়, পোস্টমর্টেম না করে লাশটি নিয়ে যেতে চাইলে সেক্ষেত্রে প্রথমেই কোন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছ থেকে একটি লিখিত এনে সংশিষ্ট থানা পুলিশকে দেখায় মৃত ব্যক্তির স্বজনরা। লাশ প্রদানে ‘কোন ধরনের সমস্যা না থাকলে লাশটি দেয়া যেতে পারে’ মর্মে লিখে দেন ম্যাজিস্ট্রেট। দূরের বা প্রত্যন্ত কোন থানা থেকে এই ‘ক্লিয়ারেন্স’ আনতে গিয়ে না জানার কারণে বিপাকে পড়েন স্বজনরা। যার কারণে মৃত্যুর পর লাশ পেতে অনেক ঘণ্টা সময় লেগে যায়। অথচ পুলিশ এবং হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ একটু আন্তরিক হলে নিজেরাই বিষয়টি (মুঠোফোনের মাধ্যমে) যাচাই করে নিতে পারেন। এতে এই অমানবিক ভোগান্তির হাত থেকে কিছুটা হলেও রেহাই পেতো মৃত ব্যক্তির স্বজনরা। এ বিষয়ে আবাসিক মেডিকেল অফিসার আবু নাঈম মাহমুদ হাসান বলেন, যে কোন মৃত্যুর সংবাদ আমরা হাসপাতালের নিকটস্থ থানাকেই অবগত করি।

 

থানা পুলিশকেই নিজ উদ্যোগে বিষয়টির সত্যতা যাচাই করতে হবে। এছাড়া পোস্টমর্টেম করে বা না করে লাশ নিয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়া সম্পর্কে সাধারণ মানুষ অবগত নন। এ ক্ষেত্রে হাসপাতাল কতৃপক্ষ জরুরি বিভাগের সামনে নাগরিক চার্টার (প্রক্রিয়া সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সম্বলিত) স্থাপন করতে পারে। যাতে পোস্টমর্টেম করে ও না করে (উভয়ভাবে) লাশ নিয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়া সম্পর্কে বিস্তারিত উলেখ থাকা উচিত। স্বাভাবিকভাবে মৃত ব্যক্তির লাশ স্বজনদের হাতে কিভাবে দ্রুত হস্তান্তর করা যায় সে বিষয়টিও বিবেচনা করা দরকার বলে অভিমত দিয়েছেন এই দুই অফিসার।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!