সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১০:২৫ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

মাধবপুরে গৃহহীন মুক্তিযোদ্ধা শাহরাজের কষ্টের কথা

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ১৭ জানুয়ারী, ২০১৬

৮৫৫হামিদুর রহমান,মাধবপুর থেকে : কবি জসিম উদ্দিন আসমানী কবিতায় আসমানী অভাব অনটনের যে বর্ণনা দিয়েছেন তা যেন হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার রসুলপুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা শাহরাজের সঙ্গে অনেকটা মিল রয়েছে। শাহরাজ মিয়ার বসয় এখন ৭০ এর কাছাকাছি। পিতা জহর আলীর ২য় সন্তান শাহরাজ মিয়া। হবিগঞ্জ-৪(মাধবপুর-চুনারুঘাট) আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য এড.মাহবুব আলীর পিতা ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক প্রাক্তন এমপি মৌলানা আসাদ আলীর উৎসাহ অনুপ্রেরণায় ভারতের আগরতলায় কংগ্রেস ভবনে যৌবনে মুক্তিযোদ্ধা প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে যোগ দেন।

 

 

গেরিলা মুক্তিযোদ্ধা শাহরাজ মিয়া ৩ মাস প্রশিক্ষণ নিয়ে সহযোদ্ধা মুক্তিয্দ্ধোাদের নিয়ে ৩নং সেক্টরের অধীনে নাছিরনগর, লাখাই, মাধবপুর এলাকায় গেরিলা মুক্তিযোদ্ধে অংশে নেন। গেরিলা যুদ্ধের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, হবিগঞ্জের লাখাই রামপুর মধ্যবর্তী স্থানে মাঝি ছদ্মবেশে গেরিলা মুক্তিযোদ্ধা শাহরাজ মিয়া খেয়া ঘাটে লোক পাড়াপাড়ের কাজ করেন। একদিন তার নৌকায় ৬জন পাক সৈন্য উঠলে কৌশলে মাঝ নদীতে নৌকা ডুবিয়ে ৬ সৈন্যকে হত্যা করে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার রেল ষ্টেশনের ছন বাঁশের একটি কুঁড়ে ঘরে শাহরাজ মিয়া তার স্ত্রী ও এক ছেলেকে নিয়ে দারিদ্র বিভিন্ন রোগের সঙ্গে লড়াই করে বেঁেচ আছেন। এরপরেও ৭১’এর বীর সেনানী মুক্তিযোদ্ধা শাহরাজ মিয়া ইটাখোলা রেল ষ্টেশনের কাছে একটি গণকবর সংরক্ষনের কাজ করছেন। তিনি বলেন, ১৯৭১ সালে যুদ্ধের সময় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও তার দোসররা সন্তোষপুর, মীর্জাপুর, ইটাখোলা এলাকার ১৫/১৬ জন নিরীহ মানুষকে সারিবদ্ধভাবে লাইন ধরিয়ে গুলি করে হত্যা করে রেল লাইনের পাশে একটি গর্তে গণকবর দেয়।

৮৬৬৩

এ গণকবরটি সংরক্ষণের কেউ উদ্যোগ নেয়নি। তবে মুক্তিযোদ্ধা শাহরাজ মিয়া এ স্থানটিকে চিহ্নিত করে বেড়া দিয়ে রেখেছেন। তিনি বলেন, এ গণকবরটি খনন করলে অনেক মানুষের হাড় ও মাথার খুলি পাওয়া যাবে।

 

মুক্তিযোদ্ধা শাহরাজ মিয়া বলেন, ১৯৮৭ সালে একটি স্বাধীনতা বিরোধী চক্র একটি মিথ্যা ডাকাতি মামলায় জড়িয়ে ১৪ মাস জেল খাটিয়েছে। এ মামলায় পড়ে জমি জমা ভিটে বাড়ী সব বিক্রি করে এখন রেলের জায়গায় সামান্য কুঁড়ে ঘরে বসবাস করেন। অর্থের অভাবে শ্বাস কষ্ট হার্নিয়া রোগী শাহরাজ মিয়া চিকিৎসা পাচ্ছে না। দারিদ্র ও রোগের সঙ্গে লড়াই করে কোন রকমে বেঁচে আছেন সংগ্রামী মুক্তিযোদ্ধা শাহরাজ মিয়া। সরকার তার নামে ২৫ শতক জমি দিলেও এখনও এর দখল পায়নি। প্রতিদিন শাহরাজ মিয়া সরকারী জায়গাটি পাওয়ার আশার ভূমি অফিসে আসা যাওয়া করেন। কিন্তু কে শুনে কার কথা। উপজেলা ডেপুটি কমান্ডার আব্দুল মালেক মধু মিয়া বলেন, রেলের সামান্য জায়গায় মুক্তিযোদ্ধা শাহরাজ মিয়া অতি কষ্টে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে বেঁচে আছেন। সরকারী জমিটি তার দখলে সমজিয়ে দেওয়া হলে স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে এই জায়গায় বসবাস করতে পারতেন। নিজের জমি জমা বাড়ি ঘর না থাকলেও ৭১’এর বীর সেনা নিয়ে মুক্তিযোদ্ধা শাহরাজ মিয়া ইটাখোলা গণকবরের সংরক্ষণে কাজ করছেন। এ ব্যাপারে মাধবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রাশেদুল ইসলাম এর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বন্দোবস্তের কাগজপত্র নিয়ে আসলে মুক্তিযোদ্ধার জায়গা উদ্ধার করে তাকে সমজিয়ে দেওয়া হবে।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!