সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৫:২৩ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

শ্রীমঙ্গলে পাহাড়ের চূড়ায় দৃষ্টিনন্দন মসজিদ

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: সোমবার, ১৮ জানুয়ারী, ২০১৬

83331_176মোযযাম্মিল হক, বিশেষ প্রতিনিধি।।
বাংলার আদ্ধাত্বিক সম্রাট হযরত শাহজালাল রহঃ এর পুণ্যভূমী, প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যরে অপরূপ লীলাভূমি ও চায়ের রাজধানী খ্যাত পর্যটকের উপজেলা মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে পাহাড়ের চূড়ায় নির্মাণ করা হয়েছে একটি দৃষ্টিনন্দন মসজিদ। পাহাড়ের উপরে তুর্কি নকশায় নির্মিত নয়নাভিরাম এ মসজিদটি দেখতে এবং নামাজ আদায় করতে প্রতিদিনই ভিড় করছেন অসংখ্য পর্যটক।
উপজেলার পাহাড়ি এলাকা মহাজিরাবাদের এ মসজিদটিকে ঘিরে ভ্রমনপিপাসুরা নতুন করে আরেকটি দর্শনীয় স্থান পেল। ইতিমধ্যে স্থানীয় ও শ্রীমঙ্গলে বেড়াতে আসা পর্যটকদের কাছে এই মসজিদটির পরিচিতি ছড়িয়ে পড়েছে। আর মসজিদটির নাম দেওয়া হয়েছে মসজিদুল আউলিয়া খাজা শাহ্ মোজাম্মেল হক (রহ.)।
জানা যায়, উপমহাদেশ খ্যাত আধ্যাত্মিক সুফি-সাধক খাজা ইউনুছ আলী এনায়েতপুরীর (রহ.) উত্তরসূরি ছিলেন খাজা শাহ্ মোজাম্মেল হক (রহ.)। আর খাজা শাহ্ মোজাম্মেল হক (রহ.)-এর সাহেবজাদা খাজা টিপু সুলতান এ মসজিদটি এখানে নির্মাণ করিয়েছেন।

খাজা মোজাম্মেল হক (রহ.) ফাউন্ডেশনের এখানকার সমন্বয়কারী আরমান খান জানান, শ্রীমঙ্গল শহর থেকে প্রায় ৬/৭ কিলোমিটার দূরে বালিশিরা পাহাড়ের মহাজিরাবাদ এলাকায় এ মসজিদটির অবস্থান। সমতল থেকে ৭০-৮০ ফুট উপরে পাহাড়ের চূড়ায় স্থাপিত মসজিদটিতে যেতে হয় ১৩৯টি সিঁড়ি পেরিয়ে। প্রায় ১৯ বিঘা জমির ওপর নির্মিত মসজিদের চারদিকেই রয়েছে সবুজ পাহাড়। আর এসব পাহাড়ে রয়েছে চোখ জুড়ানো সবুজের আবরণ। পাহাড়ের ভাঁজে ভাঁজে রয়েছে সবুজ চা বাগানও। আরো রয়েছে লেবু ও আনারসের বাগান। ওপরে উঠার সিঁড়িগুলোর দুই পাশে সাদা আর মধ্যে দেওয়া হয়েছে লাল রং। সবুজ প্রকৃতির সঙ্গে মিলিয়ে সাদা আর লাল রঙের মিশ্রণ করা হয়েছে বলে তিনি জানান।
তাছাড়া মসজিদের পাশেই রাখা হয়েছে কবরস্থানের জায়গা। রয়েছে ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যানের পরিবারের সদস্যদের বিশ্রামের জন্য গেস্টহাউসও। ভিআইপিদের আসার জন্য ব্যবস্থা করা হয়েছে হেলিপ্যাডের। গরিব ও অসহায় মানুষের বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করার জন্য রয়েছে একটি চিকিৎসা কেন্দ্রও। মসজিদের ভিতরে লাগানো দৃষ্টিনন্দন একটি ঝাড়বাতি রয়েছে। আর সেটি আনা হয়েছে চীন থেকে। নানান জাতের ফুল গাছ লাগিয়ে সাজানো পুরো মসজিদ এলাকার নাম দেওয়া হয়েছে জান্নাতুল ফেরদৌস। দৃষ্টিনন্দন এ মসজিদটির ভিতরে একসঙ্গে প্রায় ৮০০ লোক নামাজ পড়ার ব্যবস্থা রয়েছে বলেও আরমান খান জানান। বর্তমানে এ মসজিদের পেশ ইমাম হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন মাওলানা মো. মুসলেহ্ উদ্দিন।
তিনি আরো বলেন, গত ২৪ নভেম্বর এ মসজিদে বার্ষিক উরসে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা খাজা এনায়েতপুরীর (রহ.) প্রায় ৭/৮ হাজার ভক্তের সমাগম ঘটেছিল এখানে। আর মসজিদটি পরিচালিত হচ্ছে খাজা মোজাম্মেল হক (রহ.) ফাউন্ডেশনের অর্থায়নে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!