বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ০৬:৫৫ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

কৃষি শান্তি কৃষি মুক্তি বিএডিসির পাকা ড্রেনেজে পানি বন্টনে মৌসুমে প্রায় ২ কোটি টাকার শষ্য উৎপাদন

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০১৬

896মোঃ রহমত আলী ॥ হবিগঞ্জ শহরতলী তেঘরিয়া ‘পূর্বাচল সেচ প্রকল্প’ এলাকায় বিএডিসি’র নির্মিত পাকা ড্রেনেজে সুষ্ট প্রক্রিয়ায় পানি বন্টনে পতিত জমিতে মৌসুমে প্রায় ২কোটি টাকার খাদ্য শষ্য উৎপাদন করছেন কৃষক। এ সেচ কার্যের আওতায় হবিগঞ্জ শহরতলীর ৩টি ইউনিয়নে বিস্তৃত তেঘরিয়া, পূর্বভাদৈ, নাজিরপুর, পশ্চিমপাড়া ও এড়ালিয়াসহ কয়েকটি গ্রামের ৩শতাধিক কৃষকের প্রায় ৪শ একর পতিত জমিতে বোরো ধান ও বিাভন্ন শাকসবজি আবাদ করার সুযোগ হয়েছে । শুকনো মৌসুমে এলাকার কৃষক পানির অভাবে তাদের জমিতে কোনো ফসল আবাদ করতে পারতেন না। কিন্তু ‘পূর্বাচল সেচ প্রকল্পের’ আওতায় বিস্তৃত এলাকার জমিতে বোরো ধানসহ নানান শাক-সবজি আবাদ কার্যে অধিক তরান্বিত হয়েছে।

 

ভবিষ্যত খাদ্য নিরাপত্তা ও উৎকর্ষণ সাধনে বিকশিত হয়ার লক্ষ্যে কৃষি বান্ধব আওয়ামীলীগ সরকরের বহুমুখি উন্নয়নের কর্মকান্ড দেশে বিস্তৃত হচ্ছে।

 

উন্নয়নের অংশ হিসেবে অন্যতম ধারা যোগ হচ্ছে কৃষিতে, সেটি হলো পানি সরবরাহের আধুনিক পাকা ড্রেনেজ ব্যবস্থাপনা।

 

উল্লেখ্য, স্থানীয় কৃষকদের দাবীর প্রেক্ষিতে এলাকর মোঃ ইসমাইল হোসেন হবিগঞ্জ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি)’র সহযোগীতায় খোয়াই নদী থেকে পানি সরবরাহ করে শহরতলীর তেঘরিয়া এলাকায় পতিত জমি আবাদ করার লক্ষ্যে ২০০৭সালে ‘পূর্বাচল সেচ প্রকল্প’ নামে একটি সেচ প্রকল্প স্থাপন করেণ । তিনি জানান, সুষ্ট পানি বন্টনের লক্ষ্যে বিএডিসির মাধ্যমে সরকারী অর্থায়নে প্রায় ৩হাজার ফুট দৈর্ঘ পাকা ড্রেন নির্মাণ করা হয়েছে।

 

ফলে পানি অপচয় রোধ হয়েছে বহুলাংশে, প্রতি বছর ড্রেন খনন করতে হচ্ছেনা। তাছাড়া ড্রেন কার্যে বাড়তি খরচ কম হয়ায় কৃষকদেরকে সাশ্রয়ী মূল্যে পানি সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে। তাই যথাযত পানি ব্যাবস্থাপনায় ফলে প্রতি মৌসুমে এলাকায় প্রায় ৩শ একর জমিতে বোরো ধান আবাদ করছেন স্থানীয় কৃষক। প্রতি একরে আড়াই মেট্রিক টন হিসেবে প্রায় ১হাজার মেট্রিক টন ধান উৎপাদন হচ্ছে ওই এলাকায়। উৎপাদিত ধান স্থানীয় বাজার মূল্য ১৫টাকা কেজিতে দেড়কোটি টাকা। তাছাড়া আরও ২০ একর জমির উপর বিভিন্ন জাতের শাকসবজি আবাদ করে প্রায় ৫০ লাখ টাকা আয় করছেন কৃষক।

 

উক্ত প্রকল্পের আওতায় সব মিলিয়ে প্রতি বছর শুকনো মৌসুমে ২কোটি টাকার ফসল উৎপাদন হচ্ছে। তিনি বলেন, যদি আরও প্রায় ১হাজার ফুট দৈর্ঘ পাকা ড্রেন নির্মানের ব্যাবস্থা করাহয় তা হলে এলাকার পতিত রাখা প্রায় ১শ একর জমি উক্ত সেচ প্রকল্পের আওতায় আসবে। এত আরও ৫০লাখ টাকার ফসল আবাদ করা সম্ভব হবে। তেঘরিয়া গ্রামের কৃষক মোঃ আব্দুল নূর মিয়া জানান, পাকা ড্রেন নির্মানের পূর্বে আমাদের জমির উপর কাচাঁ ড্রেন নির্মাণ করা হতো। তখন পানির চাপে নিচুঁ স্থানেগুলো দিয়ে ড্রেনের বাধঁ ভেঙ্গে যেতো, ফলে বিপুল পানি গড়িয়ে যেত মাঠের বাহিরে।

 

আমাদের আংশিক উচুঁ জমিতে পানি উঠাতে পারতাম না। ফলে অনেক জমি শুকিয়ে ধান গাছ মরে যেতো। পানির অভাবে অনেক জমি আমরা পতিত রেখে দিতাম। এখন পাকা ড্রেন নির্মাণ হয়ায় পানি অপচয় হয় না এমনকি সকল জমিতে সমান ভাবে আমরা পানি পাচ্ছি। ভাদৈ গ্রামের কৃষক মোঃ কাশম মিয় অনুরোপ কথা বলেন।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!