সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৭:০০ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

নবীগঞ্জের গন্ধ্যা গ্রাম থেকে হবিগঞ্জের জ্যোস্না র মৃতদেহ উদ্ধারের দায়েরী মামলার ১ বছর ২৪ দিন পর আদালতে চার্জসীট

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ৫ মার্চ, ২০১৬

hobiganjনবীগঞ্জ প্রতিনিধি : নবীগঞ্জ পৌর শহরতলীর গন্ধ্যা গ্রামের তৎকালীন কাউন্সিলর মিজানুর রহমান মিজানের বাড়ির আঙ্গিনা থেকে উদ্ধারকৃত হবিগঞ্জের উচাইল গ্রামের জ্যোস্না আক্তারের নিহতের ঘটনায় দায়েরী মামলার চার্জশীট থেকে এজাহার নামীয় আসামীদের বাদ দিয়ে নিরাপরাধ বর্তমান কাউন্সিলর জাকির হোসেনসহ কয়েক জনের বিরুদ্ধে চার্জশীট দাখিলের ঘটনায় বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

এছাড়া মামলার বাদী নিহত জ্যোস্নার ভাই বিজ্ঞ আদালতে চার্জশীটের বিরুদ্ধে নারাজি আবেদন দাখিল করেছেন। গত ১ লা মার্চ এর শুনানী অনুষ্টিত হয়েছে। আগামী কাল সোমবার এ ব্যাপার আদেশ প্রদান করবেন বিজ্ঞ বিচারক। তবে ঘটনার পর থেকেই এলাকাবাসী নবীগঞ্জের বহুল আলোচিত মামলাবাজ এক সময়ের অস্ত্র মামলার আসামী এবং জ্যোস্না’র ঘটনার মূল হুতা আলোচিত মামলার ১নং আসামী মিজানুর রহমান মিজান মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে নিরাপরাধ কাউন্সিলর জাকির হোসেনসহ সাধারন মানুষের বিরুদ্ধে চার্জসীট দাখিল করার অভিযোগ রয়েছে।

সুত্রে জানা যায়, ২০১৪ ইং সনের ১০ ডিসেম্বর নবীগঞ্জ পৌর এলাকার গন্ধা গ্রামের বাসিন্দা সাবেক কাউন্সিলর মিজানুর রহমান মিজানের বাড়ির সীমানা প্রাচীরের ভ্যালেন্টারের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় হবিগঞ্জ সদর উপজেলার উচাইল গ্রামের মৃত মরম আলীর মেয়ে জ্যোস্না আক্তারের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ঘটনার পর পরই পুলিশের গ্রেফতার এড়াতে মিজান পালিয়ে যায়। এর পরের দিন জ্যোস্না আক্তারের বড় ভাই বাদি হয়ে মিজানকে প্রধান আসামী করে ৫ জনের বিরুদ্ধে নবীগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় উল্লেখ করা হয় যে, জ্যোস্না আক্তারকে চাকুরীর প্রলোভন দেখিয়ে তার বাড়ি থেকে নিয়ে মামলার আসামীরা নির্মমভাবে হত্যা করে। মামলাটি একাধীক কর্মকর্তা তদন্ত করেন এবং এর অনেক রহস্য উদঘাটন হয়। এছাড়াও মামলার তদন্ত কর্মকর্তারা ও উর্ধŸতন কর্তৃপক্ষ এর সত্যতা পায়। সর্ব শেষ মামলার তদন্তের দায়িত্বভার গ্রহন করেন হবিগঞ্জের গোয়েন্দা পুলিশ।

কিন্তু অদৃশ্য কারনে মামলার মানীত সাক্ষীদের জবানবন্দি সঠিকভাবে না নিয়ে মামলার এজাহারভূক্ত সকল আসামীদের বাদ দিয়ে কাল্পনিক ও বানোয়াট চার্জসীট দাখিল করা হয় বলে বাদী নারাজিতে দাবী করেন। উক্ত চার্জসীটে মিজানের সাথে নির্বাচনী প্রতিদ্বন্ধী উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও ১ নং ওয়ার্ডের নব-নির্বাচিত কাউন্সিলর জাকির হোসেন, লন্ডন প্রবাসী সুফি মিয়া, আকবর উদ্দিন এবং প্রতিবন্ধি জামির হোসেনসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে মিথ্যা চার্জসীট দাখিল করেন। কিন্তু মামলার বাদি রজব ফকির আলী বিজ্ঞ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমল-০৫ আদালতের মাধ্যমে একটি নারাজি দেন। এতে তিনি দাবী করেন, ঘটনার মূল হুতা মিজানসহ মামলার এজহারভূক্ত আসামীদের বাদ দিয়ে চার্জসীট দাখিল করা হয়েছে। এবং গ্রামের সাধারন ও নিরাপরাধ মানুষদের জড়িত করে মনগড়া, বানোয়াট চার্জসীট দাখিল করা হয়েছে। এতে মামলার বাদী তার বোন হত্যার ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও উল্লেখ করেন।

সচেতন মহলের ধারনা, মামলার মুল আসামী বহুল আলোচিত আগ্নেয়াস্ত্র মামলাসহ বিভিন্ন একাধীক মামলার আসামী মিজানুর রহমান মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে অর্থের বিনিময়ে ম্যানেজ করে তার ব্যক্তিগত আক্রোশ মেঠাতে তার নির্বাচনী প্রতিদ্বন্ধী ও তার প্রতিপক্ষের লোকদের বিরুদ্ধে চার্জসীট দাখিল করায়।

এদিকে মামলার বাদির সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি চার্জসীটের বিরুদ্ধে নারাজী দাখিলের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মামলার প্রধান আসামী মিজান তাকে বড় অংকের টাকা দিবে বলে লোভ দেখায় যাতে নারাজী না দেন।

আলোচিত মামলাবাজ মিজান ২০০৭ সালের ২২ নভেম্বর ইং তারিখে তার আপন চাচাতো ভাই উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক আহমেদ মিলুর বাড়ির পানির ট্যাংকে একটি রিভলবার রেখে ফাঁসাতে গিয়ে নিজেই র‌্যাবের হাতে আটক হয়।

তখন বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকায় ফলাও করে সংবাদ প্রকাশ হয়। এছাড়াও সন্ত্রাসী নারী লোভী মিজান এলাকায় মুটুকহীন স¤্রাটের মতো ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করছে। তার দাফটে এলাকার সাধারন মানুষ মুখ খুলে কথা বলার সাহস পায়না। এবং তার বিরুদ্ধে কেউ কোন কথা বললেই বিভিন্ন মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করা হয়। মিজানের অত্যাচারে এলাকার মানুষ অতিষ্ট হয়ে উটেছেন। যার প্রমান দিয়েছেন গেল পৌর নির্বাচনে। এবং পৌর নির্বাচনে ১ নং ওয়ার্ডে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হন উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জাকির হোসেন। এর পর থেকেই বেপরোয়া হয়ে উঠেন মিজান। নানা কৌশল অবলম্বন করে তৈরী করতে থাকে বিভিন্ন ফাঁদ। অবশেষে জাকিরকে ফাঁসানোর জন্য চার্জশীটে নাম অর্ন্তভুক্তি করেন। এ খবর এলাকায় জানাজানি হলে বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। অনেকেই দাবী করেছেন, বর্তমান কাউন্সিলর জাকির হোসেন আলোচিত জ্যোস্না বেগম ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত নয়। এলাকাবাসী এ ব্যাপারে প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!