মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০৭:২৯ অপরাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

বাহুবলের সুন্দ্রাটিকি গ্রামে নিহত চার শিশুর পরিবার খোলা আকাশের নিচে

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী, ২০১৭

নিজস্ব প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের বাহুবলের সুন্দ্রাটিকি গ্রামের আলোচিত নিহত চার শিশুর পরিবার খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছে। সরকার প্রতিশ্র“ত ঘর নির্মাণের লক্ষ্যে বসতঘর ভেঙে জায়গা খালি করে দিয়ে তারা এ বিড়ম্বনায় পড়েছে। ৬ মাসেও তাদের বসতভিটায় সরকারি ঘর তৈরি না হওয়ায় তারা পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। এ পরিস্থিতিতে কার্যকর হস্তক্ষেপ চেয়ে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে একটি যৌথ আবেদন করেছেন নিহত চার শিশুর পরিবার। এ ব্যাপারে নির্বাহী অফিসার সাইফুল ইসলাম বলেন, ঘর প্রতি ৭৫ হাজার টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেছে। এ স্বল্প টাকায় বসতঘর নির্মাণ সম্ভব নয়, বিধায় কাজ বন্ধ আছে।
৭৪৪
উপজেলার ভাদেশ্বর ইউনিয়নের সুন্দ্রাটিকি গ্রামের আব্দাল মিয়ার পুত্র মনির মিয়া (৭), আব্দুল আজিজের পুত্র তাজেল মিয়া (১০), ওয়াহিদ মিয়ার পুত্র জাকারিয়া আহমেদ শুভ (৯) ও আব্দুল কাদিরের পুত্র ইসমাইল (১১) বিগত ২০১৬ ইং সনের ১২ ই ফেব্র“য়ারি বিকেলে খেলার মাঠ থেকে ফেরার পথে গ্রাম্য পঞ্চায়েতি বিরোধের জের ধরে একই গ্রামের বহু দন্ডমুন্ডের হোতা আব্দুল আলী বাগাল ও তার গুন্ডাপান্ডাদের হাতে অপহরণের শিকার হয়। এর পাঁচদিন পর ১৭ ফেব্র“য়ারি গ্রামের নিকটবর্তী ইছাবিল নামক স্থানে মাটি চাপা অবস্থায় ওই চার শিশুর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নির্মম এ ঘটনাটি দেশ-বিদেশে ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি করে।

৮৯

এ প্রেক্ষিতে হবিগঞ্জ-সিলেটের দায়িত্বপ্রাপ্ত মহিলা সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী গত বছরের ২৪ ফেব্র“য়ারি প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটি মানবিক আবেদন করেন। এ প্রেক্ষিতে নিহত চারটি শিশুর পৈত্রিক ভিটায় চারখানা বাড়ি ও নিহত শিশুদের স্মরণে সুন্দ্রাটিকি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শ্রেণিকক্ষ ও লাইব্রেরী নির্মাণ করার নির্দেশনা আসে। পরবর্তীতে ওই বছরের ২১ মে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহা-পরিচালক (প্রশাসন) কবির বিন আনোয়ার সুন্দ্রাটিকি শহীদ স্মৃতি পাঠাগার নামের একটি টিনশেড ঘরের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করেন। ১৮ লাখ ৬০ হাজার টাকায় উপজেলা প্রশাসন শুধু পাঠাগারটি বাস্তবায়ন করে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর দেয়া চার শিশুর পরিবারের বসতঘরগুলো নির্মাণ আজও হয়নি।

নিহত শিশুদের পরিবারে সদস্যরা জানান, আজ থেকে মাস ছয়েক আগে নির্বাহী অফিসার আমাদের বাড়িতে এসে নিজে ফিতা দিয়ে বসতঘর মাপামাপি করে অচিরেই প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া উপহার হিসেবে সরকারি খরচে ঘর নির্মাণ হবে বলে পুরাতন ঘরগুলো ভেঙ্গে ফেলার নির্দেশ দেন। সেই নির্দেশনা অনুযায়ী বসতঘর ভেঙে খালি করে দিয়ে পাশ্ববর্তী স্থানে তাবু টাঙ্গীয়ে সবাই বসবাস করছি। নতুন ঘরের আশায় চারটি পরিবারের শিশু-বয়স্কদের নিয়ে তাবুতে মানবেতর ও দুর্ভোগের মধ্য দিয়ে জীবন-যাপন চলে কয়েক মাস ধরে। মাস দুয়েক আগে শুধুমাত্র ইসমাইলের পিতা আব্দুল কাদিরের ভিটায় ১৫ ফুট দৈর্ঘ্য ও ১০ ফুট প্রস্থ একটি ঘরের ৮ ফুট উচ্চতার ইটের দেয়াল ও দুটি লোহার দরজা-জানালা স্থাপন করা হয়েছে। অন্য তিনটি ঘরের এখনও কাজই শুরু হয়নি। এ অবস্থায় নির্বাহী অফিসারের বরাবরে বারবার যোগাযোগ করেও কোন সদোত্তর পাইনি। পরে এই মানবেতর ও দূর্ভোগের জীবনযাপনে অসহনীয় হয়ে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে মানবিক বিবেচনায় কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য চলতি বছরের ১৫ জানুয়ারি একটি আবেদন করেছি।

নিহত শিশু মনিরের পিতা আব্দাল মিয়া জানান, আমাদের অমূল্য সম্পদকে হারিয়ে শোকগ্রস্থ হয়ে যখন মানসিকভাবে আমরা বিপর্যস্থ। তখনই গণমাধ্যম দ্বারা জানতে পারি প্রধানমন্ত্রী আমাদের এই বিপর্যয় কাঠিয়ে উঠার জন্য চার পরিবারকে চারটি বসতঘর নির্মাণ করে দিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন। কিন্তু তা বাস্তাবায়ন করতে টালবাহানা করছে।

নিহত শিশু ইসমাইলের পিতা আব্দুল কাদির জানান, ছয় মাস যাবত কখনও খোলা জায়গায় আর কখনও অন্যের ঘরের বারান্দায় স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে বসবাস করেছি। দীর্ঘদিন দূর্ভোগে বসবাসে অসহনীয় হয়ে উঠায় ইউএনও’র কাছে বারবার আকুতি-মিনতি করি অসম্পূর্ণ ঘরখানা দ্রুত সম্পন্ন করতে। তিনি আমাদের নিজ খরচে কাঠ ও টিন লাগানোর জন্য বলেন। বাধ্য হয়ে মাসখানেক পূর্বে পুরাতন ঘর আবার জোরাতালি দিয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে সেই ভাঙা ঘরেই ফিরে এসেছি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইফুল ইসলাম বলেন, কেয়া চৌধুরী এমপি নিহত চার শিশুর পরিবারকে ভাল করে ৪ টি ঘর তৈরি করে দেওয়ার জন্য প্রতি ঘরে ২ লক্ষ ১৫ হাজার টাকা করে বরাদ্দ চেয়ে চিঠি দিয়েছিলে ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে।

কিন্তু সেখান থেকে ৭৫ হাজার টাকা করে টিনের ঘর করে দেওয়ার জন্য বরাদ্দ এসেছে। এমপি সাহেব বলেন এদেরকে টিনের ঘর নয় বিল্ডিং করে দেওয়ার জন্য। পরে উনি আরও ৫০ হাজার টাকা করে বরাদ্দ চেয়ে চিঠি দিয়েছেন- এ বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত আসেনি। তাই উনি সিদ্ধান্ত দিয়েছেন নিচ পাকা করে উপরে টিন দিয়ে ঘর করার জন্য। সে অনুযায়ী আমরা একটি ঘর তৈরি করেছি, বাকি ঘরগুলোর কাজ শুরু করব।

এ ব্যাপারে কেয়া চৌধুরী এমপি বলেন, চার পরিবারের বসতঘরের জন্য আমি আরো ১০ হাজার টাকা করে মোট ৪০ হাজার টাকা বরাদ্দ দিয়েছি। ঘরগুলো নির্মাণের স্বার্থে আরো সরকারি বিশেষ বরাদ্দ আনার চেষ্টা করছি। আশা করছি, অচিরেই ওই পরিবারগুলোর জন্য সরকারি ঘর নির্মাণ করা সম্ভব হবে। তিনি আরো বলেন, ইতোমধ্যে প্রায় সাড়ে ১৮ লাখ টাকা ব্যয়ে ওই শিশুদের স্মারণে স্থানীয় সুন্দ্রাটিকি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় “শহীদ স্মৃতি পাঠাগার” স্থাপন করা হয়েছে। ওই পরিবারগুলোর পূনর্বাসনে আমি প্রচেষ্টা অবহ্যাত আছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!