শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ১১:৪২ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

অলিপুরে মাদকের হোম সার্ভিস ফোন করলেই ঘরে পৌঁছে যায় ইয়াবা

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ১১ জুলাই, ২০১৭

এস এইচ টিটু : হবিগঞ্জ সদর উপজেলার অলিপুরে তরুণ-তরুণীরা এখন আসক্ত হচ্ছে মরণনেশা ইয়াবায়।এগুলো ‘বাবা’ ‘ছোট’ ও ‘গুটি’ নামে পরিচিত।ফোন করলেই বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে এই মাদক।

মাদকের ভয়াল থাবায় আক্রান্ত হয়ে এলাকার বসবাসকারী অধিকাংশ তরুণ বিপথগামী হয়ে পড়ছে। এরফলে একদিকে অপরাধের প্রবণতা যেমন বাড়ছে অন্যদিকে তরুণদের একটি অংশ দিক নির্দেশনাহীন হয়ে চরম সংকটে পতিত হচ্ছে।এখন মাদক ব্যবসা চলছে ডিজিটাল স্টাইলে।মোবাইলে অর্ডার করলেই হোম ডেলিভারি দেয়া হচ্ছে মাদকদ্রব্য।এখন মোবাইল মেসেজের মাধ্যমে অর্ডার করলে কয়েক মিনিটের মধ্যেই মাদক পৌঁছে যায় সেবনকারীদের হাতে।নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক মাদক সেবী এ প্রতিবেদককে জানায়, এ সুবিধা পেতে হলে আগে নাম রেজিস্ট্রেশন করতে হয় সরবরাহকারীদের মোবাইলে।নাম এন্ট্রি থাকলে মেসেজ পাঠালেই হাতের নাগালে পৌঁছে যায় মাদক।অপরিচিত কেউ মেসেজ পাঠালে ওই সিম বন্ধ করে অন্য সিম সক্রিয় করা হয়। সরাসরি মোবাইলে কল করেও তাদের পাওয়া যায় না।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মোটরসাইকেলে একদল তরুণ-যুবক মাদকের এ হোম ডেলিভারির জমজমাট ব্যবসা করে যাচ্ছে।এ সার্ভিস নেয়া অধিকাংশ মাদকের গ্রাহকই তরুণ-যুবক।অলিপুর এখন ইন্ডাস্ট্রিয়াল এলাকা হওয়ায় ঐ এলাকায় রয়েছে হাজার হাজার নারী-পুরুষ শ্রমিক তাই সহজে হাতের নাগালে পাওয়ায় তরুণীরাও ঝুঁকছে এ মাদকের দিকে। কারণ তাদের আগের মতো ঝুঁকি নিয়ে আস্তানায় গিয়ে মাদক ক্রয় করতে হয় না। আগের তুলনায় এখনকার সার্ভিসই পছন্দ করছে মাদকসেবীরা।

আগে মাদকের জন্য মাধবপুর,নোয়াপাড়া,দরগা গেইট,শাহজীবাজার,সুতাং বাজার এসব এলাকায় ছুটে যেত মাদকসেবীরা।বিব্রত বোধ করতে হতো কেনাবেচা নিয়ে। উঁকিঝুঁকি দিতে হতো অলিগলিতে।এখন আর সেই ঝামেলা নেই। উল্লেখিত প্রত্যেক এলাকায় মাদকের হোম সার্ভিসের রেটও নির্ধারণ করা আছে। ১০০ থেকে ২০০ টাকা বেশি দিলেই ঘরে বসে মিলে এ মাদক।

অনুসন্ধানে জানা যায়,অলিপুরে সিটি পার্কের সামনে,বিভিন্ন কোম্পানির সামনে,রেস্টুরেন্ট এর সামনে এবং অলিপুরের বিভিন্ন অলিগলি ও আবাসিক এলাকাগুলোতে এখন ডিজিটাল স্টাইলে মাদকের ব্যবসা চলছে।মাদকসেবীদের চাহিদা মতো মোটরসাইকেলে হোম ডেলিভারি দেয়া হচ্ছে।মাদকের এ হোম সার্ভিসে ইয়াবা ও হেরোইনের চাহিদা আরও বেড়েছে।স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসাগামী শিক্ষার্থীরা মরণ নেশা মাদকের প্রতি ঝুঁকে পড়ছে বলে জানা গেছে।মাদকের টাকা জোগাড় করতে চুরি, ডাকাতি ছিনতাইসহ বিভিন্ন অপকর্মে জড়িয়ে পড়ছে যুব সমাজ।

অভিযোগ রয়েছে, মাদক ব্যবসায়ীরা এলাকার সন্ত্রাসী, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মীদের মাসোহারা দিয়ে মাদকের ব্যবসা চালিয়ে আসছেন।এ মাদকাসক্তদের হাতে পরিবারের সদস্যরা ও নানাভাবে অপমানিত ও নাজেহাল হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কথা মাথায় রেখে মাদকের তৎপরতা বন্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার দাবি এলাকাবাসীর।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!