বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ১০:০৯ অপরাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

হারিয়ে যাচ্ছে বাংলার ঐতিহ্য শীল-পাটা

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ১ মার্চ, ২০১৫

Pata-puta-
সাখাওয়াত হোসেন টিটু,দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক : ‘পাটাখান বিছাইয়া মরিছও পিশাইলে গো সই, সেই পিশানি মরে পিশাইলে, শ্যাম পিরিতি আমার অন্তরে’। বিখ্যাত এই গানের পাটা-পুতাইল আজ ঐতিহ্য হারিয়ে বিলীন হয়ে গেছে। দেশীয় ঐতিহ্যের এই শীল পাটা (পাটা পুতাইল) এখন আর খুঁজে পাওয়া যায় না। মশলা পিসার এই শীল পাটা ঘরের মহিলাদের দৈনন্দিন জীবনের নিত্যসঙ্গী ছিল যুগযুগ ধরে। কালের আবর্তে ঐতিহ্যের ধারক বাহক এই শীল পাটা এখন প্রদর্শনের বস্তু হয়ে দাঁড়িয়েছে।

গ্রামীণ জনপদের এমনকি শহরের বাসা বাড়িতেও শীল পাটার প্রচলন ছিল ব্যাপক হারে। প্রতিটি ঘরে ঘরে একাধিক শিল পাটা সংরÿণ করে রাখা হতো। এক শ্রেণীর শ্রমিক বড় বড় পাথর কেটে শীল পাটা তৈরীতে ব্য¯Í থাকতেন। শহুরে বিভিন্ন স্থানে শীল পাটা বিক্রি হলেও গ্রামে সহজেই পাওয়া যেত না। কিছু ভাসমান ব্যবসায়ী গ্রামে গ্রামে গিয়ে শীল পাটা ভারে করে বিক্রি করতেন। চার থেকে ছয় জোড়া শীল পাটা ভারে করে নিয়ে গ্রামে ফেরী করে বিক্রি করতে দেখা যেতো। সারাদিন এই গ্রাম ঐ গ্রাম ঘুরে সন্ধ্যায় শহরে ফিরতো ফেরিওয়ালারা। গ্রামের মহিলারা আগ্রহ নিয়ে শীলপাটা ক্রয় করতেন। সময়ের ¯্রােতে এখন আর শীল পাটার প্রচলন নেই। হারিয়ে গেছে দেশীয় সংস্কৃতির এই ঐতিহ্য।

ঘরের মহিলারা মরিচ, পেয়াজ, রসুন, আদা, বাখর ইত্যাদি মশলা শীল পাটা দিয়ে পিসতেন। গ্রামে তিন বেলা রান্নার পূর্বে মহিলারা মশলা পিসতে ব্য¯Í হয়ে পড়তেন। মশলা পিসা নিয়ে বিরোধও কম হত না। ঘরের ননদ-ভাবী আর জা’দের মধ্যে প্রায়ই মশলা পিসা নিয়ে বাদানুবাদ হত। ঘরের মুরব্বী হিসেবে শ্বশুর শাশুড়ীরা এ বিরোধ নিষ্পত্তি করে দিতেন। কে কখন মশলা পিসবেন তা নির্ধারণ করতেন। নববধুদের এ কাজ করতে অধিক কষ্ট হত। মরিচ পিসতে গিয়ে হাত জ্বালাপোড়া আর পিয়াজ পিসতে গিয়ে চোখের পানি অঝোরে ঝরতো নববধুদের। ভাবী ঘরে আসার সাথে সাথে ননদরা এ কাজ থেকে অবসর নিতে চাইলেও ছোটখাটো বিরোধ লেগেই থাকতো। এ ÿেত্রে বড় জা’দের ভূমিকা থাকতো রহস্যজনক।

শুধু মশলা নয়, মেহেদীও পিসা হতো শীল পাটা দিয়ে। শীল পাটায় পিসা মেহেদী পাতার রং ছিলো টকটকে লাল। হাতে মেখে বর কনে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতেন। সেই রং থাকতো কখনও কখনও মাসব্যাপী। আর এখনকার এসিডযুক্ত বিষাক্ত মেহেদী শীল পাটায় মেহেদী পিসার প্রচলন হারিয়ে ফেলেছে।

শীল পাটার প্রচলন বন্ধ করে দিয়েছে বর্তমান যুগের অটো মিলগুলো। সব ধরনের মশলা গুঁড়ো করে বিক্রি হচ্ছে বাজারে। পিঁয়াজ পিসার জন্য তৈরী হয়েছে বø্যান্ডার। হাত গুটিয়ে নিয়েছেন ঘরের মহিলারা। রান্নাবান্নায় এসেছে আধুনিকতা। নানান জাতের মসলা প্যাকেটজাত করে বাজারে বিক্রি হচ্ছে। কষ্ট করে শীল পাটায় আর পিসতে হয় না মশলা। তবে গৃহবধুরা জানিয়েছেন মশলা পিসার কাজে না লাগলেও শীল পাটা এখন পর্যন্ত অনেক ঘরে সংরÿণ করে রাখা হয়েছে। অনেকে মনে করেন সময়ের সাথে সাথে পাল্টে যাচ্ছে মানুষের জীবনমান। পাল্টে যাচ্ছে গৃহকর্মের ধরণও।

কিছু সংখ্যক মহিলাদের সঙ্গে আলাপ করলে তারা বলেন, ‘পাটাখান বিছাইয়া মরিছও পিশাইলে গো সই- জনপ্রিয় এই গানটি আমরা প্রায়ই গাইতাম। আর এই গানের কারণেই পাটা পুতাইল নিয়ে আবহমান বাংলার আমজনতাসহ সবার প্রাণে আজো বাজে। একসময় পাটা পুতাইল ছিল গৃহবধুদের নিত্যসঙ্গী। আজ সেই দেশীয় ঐতিহ্য হারিয়ে যাচ্ছে এটা সত্য। তবে এখনও অনেক বাসা বাড়িতে শীল পাটা সংরÿণ করে রাখা হয়েছে। আমি মনে করি সরকারী উদ্যোগে এ ধরনের দেশীয় সংস্কৃতির ঐতিহ্যকে সংরÿণ করে রাখা দরকার।

শীল পাটার ব্যবহার কালের আবর্তে হারিয়ে গেলেও মহিলাদের নিকট এর পরিচিত এখনও ব্যাপক। আমাদের ইতিহাস ঐতিহ্যের একটি অংশ শীল পাটা। সুতরাং ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে প্রয়োজন সরকারী এবং বেসরকারী উদ্যোগ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!