শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ০৭:৩৬ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

হবিগঞ্জ জেলা আইনশৃঙ্খলায় দেশের এক নম্বর

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ১০ মার্চ, ২০১৫

78965হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : দেশের ছোট বিভাগের বড় জেলা হবিগঞ্জ। বানিয়াচং নামে পৃথিবীর বৃহত্তম গ্রাম এ জেলায় অবস্থিত। কৃষিনির্ভর এ জেলার সাম্প্রতিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির সফলতা তুলে ধরে এক্ষেত্রে হবিগঞ্জকে দেশের এক নম্বর জেলা হিসেবে দাবি করেছেন জেলা প্রশাসক। সম্পতি সঙ্গে জেলার সাফল্য-সম্ভাবনা এবং জেলার সামগ্রিক উন্নয়নে সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ ও পরিকল্পনা সম্পর্কে একান্ত সাক্ষাৎকারে হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. জয়নাল আবেদীন এ দাবি করেন।
দেশের অন্যান্য জেলার মতো ডিজিটালাইজেশনের ক্ষেত্রে হবিগঞ্জের অবস্থা সম্পর্কে জেলা প্রশাসক বলেন, এ ক্ষেত্রে হবিগঞ্জ যথেষ্ট এগিয়েছে। ডিজিটাল কি জিনিস এর সংজ্ঞা এখনো মানুষ ভাল করে বোঝেনা। তবে আমাদের সবগুলো ডিজিটাল সেবা গ্রহণ করলেই মানুষ বুঝবে ডিজিটাল কি জিনিস। তিনি জানান, ইতোমধ্যে জেলার ৭৭টি ইউনিয়নে ডিজিটাল সেন্টার স্থাপন করা হয়েছে। এসব সেন্টার থেকে লোকজন জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন, বিদ্যুৎ বিল প্রদান, পরীক্ষার ফলাফল সংগ্রহসহ বিভিন্ন ধরণের তথ্যসেবা পেয়ে থাকেন। এসব সেবাকেন্দ্রগুলোতে সবসময় যেনো বিদ্যুৎ থাকে এজন্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের পল্লী দারিদ্র বিমোচন কর্মসূচির আওতায় ইতোমধ্যে জেলার প্রায় সকল ডিজিটাল সেন্টারে সৌর বিদ্যুৎ স্থাপন করা হয়েছে।
তিনি বলেন, চেয়ারম্যান, মেম্বার ও সচিবগণ ইউপি অফিসে বসেই যাতে তাদের সম্মানী ভাতা উত্তোলন করতে পারেন এজন্য ডাচ বাংলা ব্যাংকের সঙ্গে চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে। এখন তারা অফিসে বসেই ভাতা উত্তোলন করতে পারছেন। জেলার তরুণ প্রজন্মকে ডিজিটাল করতে ঘরে বসে টাকা আয়সহ বিভিন্ন ধরণের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।
জনসেবা সম্পর্কে তিনি আরো জানান, জনগণের সুবিধার জন্য ভূমি উন্নয়ন কর ও অর্পিত সম্পত্তির বিল প্রদান এবং নামজারির বিষয়ে অভিযোগ ও তার নিষ্পত্তি বিষয়টি যাতে কিভাবে সংক্ষিপ্ত সময়ের মধ্যে করা যায় এজন্য ওয়েবসাইট তৈরি করা হয়েছে।
এ জন্য জেলার বানিয়াচং উপজেলায় ২৪ লাখ টাকা ব্যয়ে বানিয়াচং উপজেলায় দেশের একমাত্র মডেল উপজেলা হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে ভূমি উন্নয়ন বিষয়ে প্রজেক্ট তৈরি করা হয়েছে। ইতোমধ্যে এ বিষয়ে দেশের মধ্যে সবচেয়ে ভাল কাজ করায় বানিয়াচং উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) বি এম মশিউর রহমান প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক পুরস্কৃতও হয়েছেন।
হবিগঞ্জের শিক্ষা ব্যবস্থা সম্পর্কে সরকারের নানা উদ্যোগ তুলে ধরে তিনি বলেন, শিক্ষা ব্যবস্থার প্রসারে মানসম্মত শিক্ষা প্রদানে জেলার সবগুলো উপজেলা ভিজিট করেছেন।
জেলায় শিক্ষার প্রসারে বিয়াম ল্যাবরেটরি স্কুলকে তার সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত উদ্যোগে (আগের ডিসি মনীন্দ্র কিশোর মজুমদার সাহেব জায়গা-জমির ব্যবস্থা করেছিলেন। আধুনিকায়নের বড় রকমের উদ্যোগ নিয়েছেন। জেলার ইংলিশ মিডিয়ামের সর্বাধুনিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার লক্ষ্যে প্রায় কোটি টাকা সংগ্রহ করা হয়েছে।
তিনি জানান, জেলার নবীগঞ্জ উপজেলায় আরেকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে ফাউন্ডেশন গঠনের জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহির ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাশহুদুল কবিরকে বলেছেন। ইতোমধ্যে তিনি ব্যক্তিগত উদ্যোগে চার/পাঁচটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন। ফাউন্ডেশনটি গঠিত হলে নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হবে।
হবিগঞ্জে একটি অটিজম সেন্টার গড়ে তুলতে ১০ শতাংশ জমি বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। আয়ারল্যান্ড প্রবাসী এক ব্যক্তি এর অর্থায়ন করছেন। এ সেন্টারের মাধ্যমে প্রতিবন্ধীরা নানা সুযোগ-সুবিধা পাবে।
শিশুদের বিকাশ সম্পর্কে তিনি বলেন, মানসম্মত শিক্ষা বিস্তার লাভ করা গেলে ধীরে ধীরে শিশুদেরও বিকাশ হবে। শিশুদের লেখাপড়ার দিকে মনোনিবেশ করানোর মাধ্যমেই তাদের বিকাশ সম্ভব।
বাল্যবিয়ে সম্পর্কে তিনি বলেন, তিনি যেখানেই যাচ্ছি সেখানেই বাল্যবিয়ের কুফল সম্পর্কে বলছেন। লোকজনকে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে। ইউএনও এবং ইউনিয়নের পর্যায়ে বিভিন্ন কমিটির মাধ্যমে বাল্যবিয়ের কুফল সম্পর্কে বলা হচ্ছে। বাল্য বিয়ে প্রতিরোধের বিষয়টিকে বেশি অগ্রাধিকার দেওয়া হচ্ছে। কেউ কেউ এফিডেভিটের মাধ্যমে ছেলে-মেয়েদের বয়স বাড়িয়ে বিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করছেন। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে ওসি, এসি ল্যান্ডদের বলা হয়েছে। বয়স বাড়ানো-কমানো যাবে না। জন্মনিবন্ধনে যা থাকবে তা-ই সঠিক।
জেলার শিল্পায়ন সর্ম্পকে তিনি বলেন, এখানে যে শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলো গড়ে উঠছে, তা সম্পূর্ণ বেসরকারি উদ্যোগে। এখানে প্রচুর বিদ্যুৎ এবং গ্যাস সুবিধা থাকায় এবং ঢাকার কাছে হওয়ায় এ প্রতিষ্ঠানগুলো গড়ে উঠছে।
তিনি জানান, চুনারুঘাট উপজেলার চাঁনপুর চা বাগানের যেসব এলাকায় চা হয় না, ওই ৫১২ একর জায়গা স্পেশাল ইকোনমিক জোন করার প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। ইতোমধ্যে ওই জমি ভূমি মন্ত্রণালয় থেকে বরাদ্দও দেওয়া হয়েছে।
ওই জায়গাকে কেন্দ্র করে শুধু সিলেট নয়, সারাদেশের মধ্যে হবিগঞ্জ একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান হিসেবে পরিচিতি লাভ করবে। ওই জায়গায় কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে শত শত শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে উঠবে, লাখ লাখ লোকের কর্মসংস্থান হবে।
জেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সম্পর্কে তিনি বলেন, ৬৪টি দেশের মধ্যে হবিগঞ্জের অবস্থান সবচেয়ে ভাল। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি উন্নতির দিক থেকে এ পর্যন্ত দেশের এক নম্বর জেলা হবিগঞ্জ। গত নির্বাচনের সময়ও আমরা সারাদেশে প্রথম হয়েছি। গত উপজেলা নির্বাচনের সময়ও আমাদের আমাদের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভাল ছিল।
জেলার সমস্যা ও বিভিন্ন বিষয়ে অপ্রতুলতা সম্পর্কে তিনি বলেন, এখানে বড় ধরণের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আরও প্রয়োজন রয়েছে। শিক্ষার হার খুবই কম। সারাদেশের শিক্ষার হার শতকরা ৬৫ ভাগ। আর হবিগঞ্জে এর হার মাত্র ৪০ ভাগ। হবিগঞ্জের শিক্ষার হার ও মান বাড়ানো প্রয়োজন।
জেলায় কোনো শিশু পার্ক নেই। শিশুদের খেলাধুলার জন্য একটি শিশু পার্ক স্থাপন প্রয়োজন। হবিগঞ্জে শিশুপার্ক নির্মাণের জন্য উদ্যোগ নিয়েছি। আশা করা যায়, শিগগিরই তা বাস্তবায়ন করা হবে। হবিগঞ্জে একটি ট্রাক স্ট্যান্ড নির্মাণ করা হবে। এ ছাড়া জেলার প্রবেশমুখ মাধবপুরে ওয়েলকাম টু হবিগঞ্জ গেইট এবং জগদীশপুর মুক্তিযোদ্ধা চত্বরে সাত বীরশ্রেষ্ঠসহ মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন স্মৃতি নিয়ে মনুমেন্ট তৈরি করা হবে।
হবিগঞ্জের পর্যটন শিল্পের প্রসার সম্পর্কে তিনি বলেন, পর্যটন শিল্পের বিকাশ হওয়া প্রয়োজন। এখানে পর্যটন শিল্পের বিকাশে ব্যক্তিগতভাবে কেউ এগিয়ে আসে না। বেসরকারিভাবে হবিগঞ্জের বাহুবলে দি প্যালেস রিসোর্ট গড়ে উঠেছে। আরেকটি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এ ছাড়া সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান, কালেঙ্গা বনবিট, তেলিয়াপাড়া স্মৃতি সৌধ ও খাসিয়াপুঞ্জি রয়েছে দেখার মতো।
জেলা ক্রীড়া উন্নয়নে তিনি বলেন, হবিগঞ্জে জেলা প্রশাসক গোল্ডকাপ ফুটবল লীগ চালু করা হয়েছে। প্রতিটি উপজেলায় জেলা প্রশাসক ফুটবল লীগ হয়েছে। জেলা প্রশাসক ক্রিকেট লীগ হচ্ছে, প্রিমিয়ার ক্রিকেটলীগ হচ্ছে। কিছুদিনের মধ্যে হা-ডু-ডু খেলার আয়োজন করা হবে।
জেলার স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কে তিনি বলেন, হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতাল ১০০ শয্যা থেকে ২৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ভবন নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। হবিগঞ্জে মেডিকেল কলেজ হচ্ছে। ভবন নির্মাণ শেষে ২৫০ শয্যা হাসপাতালে পুরোপুরি কার্যক্রম শুরু হলে এটি সিলেট থেকে উন্নত হবে।
জেলার ভাটি এলাকার সার্বিক উন্নয়নে সরকারের কার্যক্রম সম্পর্কে তিনি বলেন, বড় বড় জলমহালগুলো নিয়ে সরকার বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণ করছে। হবিগঞ্জের গুঙ্গিয়াজুরী হাওর প্রকল্প বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া চলছে। এটি বাস্তবায়িত হলে হাওরাঞ্চলের লোকদের অনেক উন্নয়ন হবে।
জেলার উন্নয়ন কাজ সম্পর্কে তিনি বলেন, সরকার খাল খনন কর্মসূচির অংশ হিসেবে ৬০টি ড্রেজার মেশিন কিনেছে। জলাশয় খালের উন্নয়নের জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ড এবং নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় কাজ করছে।
যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন সর্ম্পকে তিনি বলেন, জেলার অলিপুর ও লস্করপুরসহ হবিগঞ্জের চারটি রেলক্রসিংয়ে শিগগিরই ফ্লাইওভার নির্মাণ করা হবে। এছাড়া মহাসড়ক প্রশস্তকরণের বিষয়টি নীতিগতভাবে অনুমোদন হয়েছে। অদূর ভবিষ্যতে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক ৪ লেনে উন্নীত হবে।
জেলার উন্নয়নকাজে জনপ্রতিনিধিদের সহায়তার ব্যাপারে তিনি বলেন, কেউ কেউ খারাপ আচরণের চেষ্টা করেন, আবার কেউ কেউ খুবই ভাল আচরণ করেন। সব মিলিয়ে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতা ও সমন্বয় ভালই আছে।
হবিগঞ্জে নিজের কাজের অভিজ্ঞতা ও জেলা সম্পর্কে জেলার শীর্ষ এ কর্তাব্যক্তির অভিমত, হবিগঞ্জের মানুষদের যারা সচেতন, তারা বেশ সচেতন। সার্বিক দিক দিয়ে হবিগঞ্জের মানুষ অনেক ভাল।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!